Logo
শুক্রবার, ০৫ মার্চ, ২০২১ | ২০শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ দূতাবাস, স্টকহোমে মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন

প্রকাশের সময়: ২:৫৪ অপরাহ্ণ - সোমবার | ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২১

তৃতীয় মাত্রা

২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১, রবিবার: যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে সুইডেনে পালিত হয়েছে মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। ২১ ফেব্রুয়ারি সকালে দেশটির রাজধানী স্টকহোমে বাংলাদেশ দূতাবাস প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও অর্ধনমিতকরণের মধ্য দিয়ে দিবসের কার্যক্রম শুরু হয়। পরে বিকালে অনলাইনে জুম প্লাটফর্মে একুশে ফেব্রুয়ারির তাৎপর্য নিয়ে এক মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ অনুষ্ঠানে সুইডেন, নরওয়ে এবং ফিনল্যান্ডে অবস্থানরত বাংলাদেশী কমিউনিটির সদস্যবৃন্দ অনলাইনে এবং দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারিগণ দূতাবাস প্রাঙ্গন থেকে যোগদান করেন ।
অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র ধর্মগ্রন্থ থেকে পাঠ শেষে দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ও অনলাইনে অংশগ্রহণকারী অতিথিদের সমবেত শুদ্ধ স্বরে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। জাতীয় সংগীত পরিবেশনের পর এক মিনিট নীরবতা পালনের মাধ্যমে মহান ভাষা আন্দোলনের শহীদদের আত্মত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়। এরপর রাষ্ট্রদূত মো. নাজমুল ইসলামের নেতৃত্বে দূতাবাস প্রাঙ্গণে স্থাপিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বানী পাঠ করেন দূতাবাস কর্মকর্তাগণ। এরপর মহান শহিদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস নিয়ে নির্মিত একটি বিশেষ প্রামান্যচিত্র এবং একুশের গান নিয়ে আরেকটি প্রামান্যচিত্র প্রদর্শিত হয়।
অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় ভাগে অনলাইনে উপস্থিত সুইডেন, নরওয়ে এবং ফিনল্যান্ডে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্যের ওপর আলোকপাত করে উন্মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। বক্তারা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রেক্ষাপট, বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস এবং বাংলাদেশের স্বাধিকার আন্দোলন ও স্বাধীনতা অর্জনে অমর একুশের সুদূরপ্রসারী প্রভাবের নানা দিক নিয়ে আলোচনা করেন। বক্তারা বলেন, সার্বজনীন ও বহুল প্রচলিত বাংলা ভাষা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক প্রচেষ্টায় বিশ্ব দরবারে স্বীকৃতি পেয়েছে। বাংলা ভাষাকে হৃদয়ে ধারণ করে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে একুশের চেতনাকে সুপ্রতিষ্ঠিত করার ব্যাপারে সকলকে একযোগে কাজ করার জন্য বক্তারা আহবান জানান। একই সাথে আলোচনায় বিদেশে বেড়ে ওঠা বাংলাদেশের নতুন প্রজন্মকে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি চর্চার প্রতি গুরুত্ব আরোপ করা হয়। বক্তাগণ জাতিসংঘের অন্যতম দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে বাংলাকে প্রতিষ্ঠিত করা, আদালতের রায় প্রকাশে বাংলা ভাষার ব্যবহার সুনিশ্চিত করা এবং সুইডেন ও ফিনল্যান্ডে স্থায়ী শহীদ মিনার স্থাপনের জন্য প্রস্তাব উত্থাপন করেন।
রাষ্ট্রদূত মো. নাজমুল ইসলাম তাঁর বক্তব্যে গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে মাতৃভাষার মর্যাদা রক্ষায় ভাষাশহীদদের অবদান, ভাষা আন্দোলন ও তৎপরবর্তী সব আন্দোলনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদান কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করেন। এছাড়াও বাংলা ভাষার জন্য এবং পরবর্তীতে ২১ শে ফেব্রুয়ারিকে আনর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভের জন্য যে সকল ব্যক্তিত্ব অবদান রেখেছেন তাঁদের সবাইকে ধন্যবাদ জানান। মান্যবর রাষ্ট্রদূত জানান, সুইডেন ও ফিনল্যান্ডে স্থায়ী শহীদ মিনার স্থাপনের ব্যপারে দেশগুলোর প্রশাসনের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ হচ্ছে। নতুন প্রজন্মকে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি চর্চার জন্য উৎসাহিত করতে তিনি অভিভাবকদের ভূমিকা রাখার ব্যপারে গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, ইউনেস্কো কর্তৃক একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি লাভ করায় আমাদের দায়িত্ব সুপ্রসারিত হয়েছে। মাতৃভাষা বাংলাকে সংরক্ষণ করার পাশাপাশি পৃথিবীর অন্য সকল মাতৃভাষাকেও সংরক্ষণের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন পূর্ণতা লাভ করবে।
পরিশেষে সকলের, সুস্থতা, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে অনুষ্ঠান সমাপ্ত করা হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

Read previous post:
আগুনে পুড়লো ঘর, ঘুমন্ত মা ও ২ছেলে অগ্নিদগ্ধ

তৃতীয় মাত্রা হাসানুজ্জামান হাসান, লালমনিরহাট : লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলায় চুলার আগুন থেকে সুত্রপাত হয়ে ভয়াভহ অগ্নিকান্ডে ঘরবাড়ী সহ এক পরিবারের...

Close

উপরে