Logo
শনিবার, ২৪ জুলাই, ২০২১ | ৯ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আলীকদমে ডায়রিয়ায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১

প্রকাশের সময়: ১১:৪৮ পূর্বাহ্ণ - বৃহস্পতিবার | জুন ১৭, ২০২১

তৃতীয় মাত্রা
ওমর ফারুক, বান্দরবান : বান্দরবানের আলীকদমে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে এই পর্যন্ত ১১জনের মৃত্যু হয়েছে। গত আট দিনে  মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ১১জনে। বুধবার পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা ৮জনে থাকলেও বৃহস্পতিবার ৩জনের মৃত্যুতে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ১১জনে। গতকাল মৃত্যুবরণকারীরা হলেন মানরুম পাড়ার সংপুর ম্রো (৪১) সংরিং ম্রো (৬) ও কাইকেউ ম্রো (১৮)। এদিকে আশঙ্কা জনক অবস্থায় আংচং ম্রো (৭০) মেনলে ম্রো (৫) ও রেপং ম্রো (১৫) কে বুধবার (১৬ জুন) দুপুরে সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টারে করে বান্দরবান সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছে।
এলাকাবাসী ও সেনাসুত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার (১০ জুন) থেকে রবিবার পর্যন্ত আলকিদম উপজেলার দূর্গম কুরুকপাতা ইউনিয়নের তিনটি পাড়ায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ৮জন মারা যায়। ডায়রিয়া রোগে আক্রান্ত হয় আরও শতাধিক মানুষ।  দূর্গম এবং ভাল যাতায়ত ব্যবস্থা না থাকার কারণে ও সঠিক চিকিৎসার অভাবে বুধবার (১৬জুন) পর্যন্ত ১১জন মারা যায়। পরে খবর পেয়ে সেনাবাহিনীর সদস্যরা হেলিকপ্টারে করে ঔষধপত্র বিশুদ্ধ খাবার পানি পৌঁছে দেয় এবং আক্রান্তদের চিকিৎসা প্রদানে সেখানে একটি ফিল্ড হাসপাতাল তৈরী করে। আরো তিন জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে তাদেরকে সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টারে করে ঘটনাস্থল থেকে এনে বান্দরবান সদর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। কুরুকপাতা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড মেম্বার কাইংক্য ম্রো জানান, বুধবার সকালে মাংরুং পাড়ায় কাইকেউ ম্রো (১৮) নামে আরও একজন মারা যায়। এর আগে মঙ্গলবার আরো দুজন মারা যায়। আক্রান্তের সংখ্যা ৫০জনের মত হবে। সেনাবাহিনী ও স্বাস্থ্য বিভাগের ডাক্তাররা আক্রান্তদের চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে।
বান্দরবান সেভেন ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্স এর ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর মো. সাইফুল ইসলাম বলেন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মোট ১১জন মারা গেছে। আশঙ্কাজনক ৩জনকে হেলিকপ্টারে নিয়ে আসা হয়েছে। তাদের বান্দরবান সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আক্রান্ত এলাকায় সেনা সদস্যরা কাজ করছে। সেখানে একটি ফিল্ড হাসপাতাল তৈরী করা হয়েছে। স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীদের সাথে সেনাবাহিনীর চিকিৎসকরা তাদের সেবা দিচ্ছে। খাবার পানি স্যালাইন, পানি বিশুদ্ধকরন বড়ি সরবরাহ করা হয়েছে। পরিস্থিতি এখন অনেকটা নিয়ন্ত্রনে এসেছে। পরিস্থিতি বিবেচনা করে দূর্গতদের সকল ধরনের সহায়তার জন্য ২৪পদাতিক ডিভিশনের ৬৯পদাতিক ব্রিগেড সর্বদা প্রস্তুত রয়েছে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী যে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত সকল ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর যেকোন আপদকালীন সময়ে তাদের পাশে থেকে সর্বাত্মক সহায়তা প্রদান করে আসছে এটি তারই একটি দৃষ্টান্তমূলক উদাহরণ। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ভবিষ্যতেও পার্বত্য এলাকার ক্ষুদ্র-নৃ-গোষ্ঠী সহ সকল জাতি ও ধর্মের মানুষের পাশে থেকে তাদের জীবনমান উন্নয়ন এবং তাদের যে কোন প্রয়োজনে সর্বদা নিরলস ভাবে কাজ করে যাবে।
বান্দরবানের সিভিল সার্জন অংশৈপ্রু মার্মা জানান, হাসপাতালে চিকিৎসাধীনদের অবস্থা স্থিতিশীল। তবে আশা করি অবস্থার দ্রুত উন্নতি হবে।
উল্লেখ্য, গত ৯জুন থেকে আলিকদম উপজেলার দূর্গম কুরুকপাতা ইউনিয়নে ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে ৪ দিনে আক্রান্ত হয়ে ৮ জন মারা যায়।
Read previous post:
বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১৭ কোটি ৬৯ লাখ ছাড়িয়েছে

তৃতীয় মাত্রা বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১৭ কোটি ৬৯ লাখ ছাড়িয়েছে। আর মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৩৮ লাখ ৩০ হাজার। জনস...

Close

উপরে