Logo
রবিবার, ২৫ জুলাই, ২০২১ | ১০ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

জার্সি বাহিনী যদি সন্ত্রাসী হয়, সকল খেলোয়াড়ই কী সন্ত্রাসী?

প্রকাশের সময়: ৯:১৯ অপরাহ্ণ - বুধবার | জুন ১৬, ২০২১

তৃতীয় মাত্রা

হামিদ সাব্বির : জার্সি বাহিনী যদি সন্ত্রাসী হয়, তাহলে পৃথিবীর সকল খেলোয়াড়ই কী সন্ত্রাসী? এই প্রশ্ন আপনাদের কাছে আমার। উল্লেখিত কথাগুলো বললেন, মীরপুর পল্লবীতে অবস্থিত ফ্রেন্ডস এ্যান্ড ফ্যামিলির সমবায় সমিতির (এফএনএফ) গ্রুপের নির্বাচিত সভাপতি হাজী শেখ মোহাম্মাদ আলী আড্ডু। সম্প্রতি একটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় প্রথম পাতায় “পল্লবীর আতঙ্ক জার্সি বাহিনী” শিরোনামে উক্ত এফএনএফের গ্রুপের সভাপতি আড্ডুকে জার্সি বাহিনীর গ্রুপের প্রধান হিসেবে আখ্যায়িত করেন। দৈনিক তৃতীয় মাত্রার পক্ষ থেকে উক্ত বিষয় নিয়ে আড্ডুর সাথে প্রতিবেদক কথা বললে তিনি ক্ষোভের সাথে জানায়, সমাজে আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য একটি কুচক্রী মহল আমার বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছে। উক্ত পত্রিকায় আমাকে নিয়ে মিথ্যা বানোয়াট একটি সম্পন্ন ব্যতিক্রমী কাহিনী তৈরি করেছে , তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন।
হাজী শেখ মোহাম্মাদ আড্ডুর সাথে যে সমস্ত কথা হয় তা হুবহু তুলে ধরা হল:
প্রশ্ন : এলাকায় সন্ত্রাসী হিসেবে আপনাকে মনে করা হয়? কী বলবেন?
উত্তর : ঢাকা মহানগর উত্তর পল্লবী থানাধীন আওয়ামী লীগের যুবলীগ কর্মী হিসেবে কাজ করছি। আমি এলাকার কোন অন্যায়ের সাথে জড়িত নই। আমি সব সময় সুস্থ ধারার রাজনীতি করে আসছি। আগামিতে
ঢাকা উত্তরের আওয়ামী লীগের যুবলীগের একটি গুরুত্বপূর্ন দায়িত্বে থাকব বলে আশা করি। আমার কিছু সংখ্যক রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের লোকজন রয়েছে, তারা এই দুর্নাম রটাচ্ছে। ভাল দিক তাদের চোখে পড়ে না।
প্রশ্ন : জার্সি বাহিনী কেন বলা হল? এটা কি সন্ত্রাসী বাহিনী?
উত্তর : আমাদের একটি সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক সামাজিক সংগঠন রয়েছে। ফ্রেন্ডস এ্যান্ড ফ্যামিলি (এফএনএফ) গ্রুপ এবং মিরপুর ইয়াং ক্রিকেটার্স রয়েছে। এদুটি গ্রুপের মধ্যে প্রতি মাসে চার-পাঁচটি খেলা হয়। পাশাপাশি প্রতি বছর দুটি করে ট্যু’র হয়। এই সংগঠনের সাথে চাকরিজীবী, আইনজীবী, ডাক্তার, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন পেশার লোকজন জড়িত। উক্ত অরাজনৈতিক সংগঠনের কিছু সামাজিক কর্মকান্ড তুলে ধরে তিনি বলেন, করোনাকালে দুই হাজার থেকে আড়াই হাজার পরিবারকে বেশ কয়েকবার খাদ্যপন্য ও সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে। বন্যা কবলিত এলাকায় জরুরী ভিত্তিতে খাদ্য এবং নগদ অর্থ প্রদান করা হয়েছে। মিরপুর ১১ নং নাভানার পাশে তালতলা বস্তিতে আগুনে ক্ষতিগ্রস্থ ব্যক্তিদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী ও কাপড়সহ নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়েছে। অসহায় ও গরীবদের মেয়ের বিয়েতে নগদ অর্থ প্রদান এবং আড্ডু নিজ অর্থে ৬টি দরিদ্র পরিবারে বিয়ে সম্পন্ন করেছে। অবশ্য যুবলীগের কর্মী হিসেবে এই মহৎ কাজ করেন। অসহায় মানুষ মারা গেলে তাদের দাফন-কাফনের ব্যবস্থাসহ প্রয়োজন বোধে গ্রামের বাড়িতে লাশ পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। ক্যাম্প এবং বস্তিতে শীতবস্ত বিতরণ করা হয়েছে। আড্ডুর নিজ উদ্যোগে করোনায় প্রায় ৩৫০০ অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্র্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। সামাজিক এবং বিভিন্ন যে সমস্ত অরাজনৈতিক সংগঠনের সাথে যুক্ত থেকে কাজ করে যাচ্ছেন, তারমধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য, ৪ বছর যাবৎ ১১ নং সেকশনে বড় মসজিদ ও মাদরাসা ৩ নং সহ-সভাপতি, ১১নং সেকশনের বাইতুল মামুর জামে মসজিদ ও মাদরাসার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এবং কোরবানির পশুর চামড়া কমিটির সভাপতি, মিরপুর ১১ নং প্যারিস রোডে বাইতুল ফালাহ মসজিদের সিনিয়র সদস্য, মরহুম শেখ মোহাম্মাদ সেলিম হাফেজিয়া মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন, ফ্রেন্ডস এ্যান্ড ফ্যামিলির প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি, ফ্রেন্ডস এ্যান্ড ফ্যামিলি সমবায় সমিতির নির্বাচিত সভাপতি এবং নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক মো: পারভেজ মোল্লাহ্ , যুব উদ্যোগ সঞ্চয় ও ঋণ দান সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, আবাহনী ক্রিকেট টিমের সমর্থকগোষ্ঠীর সদস্য, মিরপুর ইয়াং ক্রিকেটার্সের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ১৯৯৬ সাল থেকে এবং দলীয় অধিনায়কও বটে। তরুনদের প্রিয় সংগঠন সোনার বাংলা যুব সংঘের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের পূর্ব শাখার সিনিয়র সহ-সভাপতি এবং বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের গেট ম্যানেজমেন্ট কমিটির লিয়াজুঁ অফিসার।
প্রশ্ন : আপনি সেকেন্ট ইন কমান্ড। কথাটি কতখানি সত্য?
উত্তর : আমাকে কিসের সেকেন্ট ইন কমান্ড বলা হচ্ছে তা আমি নিজেই জানি না। পারিবারিকভাবে আমি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত, কিন্তু সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে আমি একজন ক্রিকেট খেলোয়াড়। জার্সি বাহিনী যদি সন্ত্রাসী হয়, তাহলে পৃথিবীর সকল খেলোয়াড়ই কী সন্ত্রাসী? এই প্রশ্ন আপনাদের কাছে আমার।
প্রশ্ন : কিলার সুমনের সাথে আপনার কিসের সম্পর্ক?
উত্তর : সুমন আগে ছাত্রলীগ করত, আমি নিজে আওয়ামী যুবলীগের সাথে জড়িত। রাজনীতির কারণে তার সাথে আমার পরিচয়। এলাকার কুচক্রী মহল সুমনের সাথে জড়িয়ে যে গল্প-কাহিনী তৈরি করে প্রতিবেদন ছাপা হয় তা মিথ্যা বানোয়াট এবং ভিত্তিহীন। কুচক্রী মহলের দ্বারাই মিথ্যা অপবাদ দিয়ে আমাকে সমাজে হেয় করার চেষ্টা করেছে।

Read previous post:
কুষ্টিয়ার খোকসায় পরিত্যক্ত অবস্থায় একটি গ্রেনেড উদ্ধার

তৃতীয় মাত্রা সুজন কুমার কর্মকার, কুষ্টিয়া থেকে : কুষ্টিয়ার খোকসায় পরিত্যক্ত অবস্থায় একটি গ্রেনেড উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার উপজেলার শিমুলিয়া...

Close

উপরে