Logo
বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১ | ৩রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

নাঙ্গলকোটের ঢালুয়া বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ১৪টি দোকান ভষ্মিভূত

প্রকাশের সময়: ৩:১২ অপরাহ্ণ - সোমবার | মে ৩১, ২০২১

তৃতীয় মাত্রা

জাকির হোসেন ভূঁইয়া, নাঙ্গলকোট থেকে : কুমিল্লা নাঙ্গলকোটের ঢালুয়া বাজারে রবিবার গভীর রাতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ১৪টি দোকান ভষ্মিভূত হয়েছে। এতে অন্তত ২কোটি টাকার মালামাল ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা দোকান ও মালামাল হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েন।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ঢালুয়া উত্তর বাজারে রবিবার রাত প্রায় দেড়টায় হাফেজ হারেছ আহম্মদের রাইচ মিল দোকানের বিদ্যুতের শর্ট সার্কিট থেকে অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত ঘটে মুহুর্তের মধ্যে ১৪টি দোকান ভূষ্মিভূত হয়। এতে দোকানঘর এবং মালামালসহ অন্তত ২ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত দোকানগুলো হচ্ছে, ছায়েদ মিয়ার, নুরুল আলমের শুটকি দোকান, আবুল হাসেমের পান, সিগারেটের ও কসমেটিকস দোকান, হাফেজ হারেছ আহমেদের রাইচ মিল ও ঘড়ি দোকান, ছকন মিয়ার রেস্তোঁরা, আবদুর রউফের লাইব্রেরী ও কসমেটিকস দোকান, সাইদুল হকের স্টেশনারী দোকান, ডাঃ মামুনের ঔষুধ দোকান, আবুল হাসেমের স্টেশনারী দোকান, জয়নাল আবেদীনের সারের গোডাউন, ও নুরুজ্জামান কাসেমীর বীজ ভান্ডার দোকান।

আগ্নিকান্ডের খবর পেয়ে ব্যবসায়ী ও স্থানীয় এলাকাবাসী আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালিয়েও ব্যার্থ হয়। লাকসাম ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছার আগেই আগুনে পুড়ে দোকানপাট ও মালামাল সম্পূর্ণ ভষ্মিভূত হয়।

ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী হাফেজ হারেছ আহম্মেদ বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমি ব্যবসায় করে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। অগ্নিকান্ডে আমার প্রায় ১৮লক্ষাধিক টাকার মালামাল ভষ্মিভূত হয়ে আমি এখন নিঃস্ব হয়ে পড়েছি। ছায়েদ মিয়া রেস্তোঁরার মালিক আবদুস ছাত্তার বলেন, আমরা ব্যবসায়ীরা এবং স্থানীয় এলাকাবাসী প্রাণপণ চেষ্টা করে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্যার্থ হই। আগুণে পুড়ে সব শেষ হওয়ার পর ফায়ার সার্ভিসের লোকজন এসে উপস্থিত হয়। আগুণ আমার সব শেষ করে দিয়েছে।

ঢালুয়া বাজার কমিটির সভাপতি ও ঢালুয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নাজমুল হাসান বাছির ভূঁইয়া বলেন, অগ্নিকান্ডে বাজারের ১৪টি দোকান ভষ্মিভূত হয়েছে। এতে অন্তত ২ কোটি টাকার অধিক সম্পদ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসন ও অর্থমন্ত্রীর সহকারি একান্ত সচিব কে এম সিংহ রতনকেও ঘটনাটি অবহিত করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার লামইয়া সাইফুল বলেন, অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত বাজার পরিদর্শন করে ব্যবসায়ীদের সমবেদনা জানিয়েছি। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানকে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয় করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য বলা হয়েছে। প্রতিবেদন পাওয়া গেলে ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা করা হবে।

Read previous post:
বাঁশখালী উপজেলায় আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক সভা

তৃতীয় মাত্রা ছৈয়দুল আলম, বাঁশখালী থেকে : চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলা অফিসারস্ ক্লাব মিলনায়তনে সোমবার (৩১ মে) সকাল ১১টায় উপজেলা আইন...

Close

উপরে