Logo
বুধবার, ১২ মে, ২০২১ | ২৯শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

অনেকদিন পর তানিয়া আহমেদ

প্রকাশের সময়: ২:০৫ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার | মে ৪, ২০২১

তৃতীয় মাত্রা

উপস্থাপনা ও মডেলিংয়ে দেখা গেলেও অভিনয়ে দীর্ঘদিন অনুপস্থিত এক সময়ের ব্যস্ত মডেল, অভিনেত্রী ও পরিচালক উপস্থাপক তানিয়া আহমেদ। তবে আসছে ঈদের মাধ্যমে সেই বিরতি ভাঙছেন তিনি। ঈদের দিন রাত ৭টা ৪০ মিনিটেই অভিনয়ে দেখা মিলবে তার। ওইদিন প্রচারিত হবে তানিয়া অভিনীত ঈদের বিশেষ নাটক ‘শহরের শেষ বাড়ি’। প্রয়াত কথা সাহিত্যিক রাবেয়া খাতুনের গল্প অবলম্বনে এবং মাসুম শাহরিয়ারের চিত্রনাট্যে নাটকটি পরিচালনা করেছেন আবু হায়াত মাহমুদ। এতে তানিয়া আহমেদের বিপরীতে অভিনয় করেছেন শহীদুজ্জামান সেলিম। নাটকের গল্প সম্পর্কে তানিয়া আহমেদ জানান, নাটকের নামই দেওয়া হয়েছে ‘শহরের শেষ বাড়ি’। গল্পটাই তাই বাড়িটাকে কেন্দ্র করে। এই বাড়িটা অনেক পুরনো। পুরনো প্রতিটা বাড়িরই বিচিত্র রকম গল্প থাকে। সেসব গল্প থেকে যায় আমাদের অজানা। এক সময়ের শহরতলীর শেষ বাড়িটার চারপাশেই এখন বড় বড় অট্টালিকা। কিন্তু পুরনো এক একটা বাড়ি বিচিত্র রকমের ঘটনার সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। তেমনি একটা বাড়ির গল্প, শহরের শেষ বাড়ি। এই বাড়ির আমানুলস্নাহ এক সময় পুলিশে চাকরি করতেন। অনিয়মের অপরাধে, এখন তার চাকরি নেই। অনেক বছর আগে এই বাড়িটা তিনি কৌশলে কব্জা করেছিলেন এক আসামির কাছ থেকে। তার স্ত্রীর নাম গোলাপজান। এদের দুই ছেলে-মেয়ে বিদেশে পড়াশোনা করে। এক সময় বাড়িতে লোক ছিল। এখন তাদের সঙ্গে থাকে অল্প বয়সের এক কাজের মেয়ে আর রহিম নামের এক ড্রাইভার। গোলাপজানের ছোট ভাই মনোয়ার ছেলেবেলা থেকেই তার বোনের কাছেই বড় হয়। দুলাভাইর অনৈতিকতা, বোনের অহংবোধ মনোয়ারকে কষ্ট দেয়। কাজেই সামান্য একটা চাকরি নিয়ে সে চলে যায় ঢাকার বাইরে। সেই মফস্বল শহরেই মনোয়ারের পরিচয় হয় রেজওয়ানা নামের এক তরুণীর সঙ্গে। পিতৃ-মাতৃহীনা রেজওয়ানাও বড় হয়েছে তার ফুপুর কাছে। ঘটনাক্রমে রেজওয়ানা এবং মনোয়ার বিয়ে করে ফেলে। এভাবে গল্প এগিয়ে যায়। নাটকটি দেখে অবশ্যই দর্শকের ভালো লাগবে বলে আমার বিশ্বাস।

এর আগে প্রায় দেড় বছর বিরতি শেষে অভিনয় করেছিলেন তানিয়া আহমেদ। মাঝের এই সময়ে ব্যক্তিগত কাজে যুক্তরাষ্ট্রে ছিলেন তিনি। গত বছরের মাঝামাঝিতে তার দেশে ফেরার কথা থাকলেও করোনার কারণে আসতে পারেননি। ফেরার আগেই ‘১০০তে একশো’ নামের একটি ধারাবাহিকে তিনি চুক্তিবদ্ধ হয়েছিলেন। তবে ধারাবাহিকের বাইরে অনেকদিন পর একক নাটকে অভিনয় করলেন তিনি। সর্বশেষ ২০১৯ সালের শেষের দিকে ‘দে দৌড়’ নামের একটি একক নাটকে দেখা গিয়েছিল তাকে। তানিয়া আহমেদ বলেন, ‘অভিনয়ের মধ্যেই সব সময় থেকেছি। পছন্দের এই জায়গা থেকে দূরে থাকাটা কষ্টের। তবে কাজের চেয়ে দেশের মানুষের জন্য অনেক চিন্তিত। করোনার কারণে অনেক গুণী মানুষকে হারিয়েছি। এজন্য মন খারাপও হয়েছে। তারপরও পেশা হিসেবে শুটিং ইউনিটকে অনেক মিস করি।’ তানিয়া জানান, দীর্ঘদিন পর সেই লাইট-ক্যামেরা অ্যাকশন আর চেনা মানুষদের সঙ্গে ভালোই সময় কাটছে তার। দেশের বর্তমান নাটক ও করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সহকর্মীদের সঙ্গে কথা হয়েছে। করোনার মধ্যে কীভাবে সবাই শুটিং করেছেন, সেগুলো নিয়ে ইউনিটের অনেকের সঙ্গেই কথা হয়েছে। তিনি বলেন, ‘শুটিং সেটে যতটুকু পারা যায় সচেতন থাকার চেষ্টা করছি। কারণ, মাস্ক পরে তো আর শুটিং করা যায় না। ইউনিটের ছেলেরা কিছুটা মানছে। তবে আরেকটু সচেতন হলে ভালো হতো। কারণ, এখন অনেকেই নিয়ম মানতে চাইছে না। সবাইকে বুঝতে হবে, একমাত্র স্বাস্থ্যবিধি মানলেই করোনার প্রকোপ থেকে রেহাই পাওয়ায় যাবে। করোনাকে রোধ করা সম্ভব হবে।’

দীর্ঘ ১৪ মাস পর গত ১৯ জানুয়ারি আমেরিকা থেকে দেশে ফিরে এসে জিটিভির নারীদের নিয়ে বিশেষ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘অনন্যা’র উপস্থাপনায় নিয়মিত হন তিনি। দীর্ঘ ৮ বছরেরও বেশি সময় ধরে অনুষ্ঠানটি নিয়মিত উপস্থাপনা করছেন তানিয়া আহমেদ। ‘অনন্যা’র উপস্থাপনা প্রসঙ্গে তানিয়া আহমেদ বলেন, ‘বলা যায়, জিটিভি চালু হওয়ার শুরু থেকেই আমি অনন্যা অনুষ্ঠানের উপস্থাপনা করে আসছি। শ্রদ্ধাভরে কৃতজ্ঞতা জানাই শ্রদ্ধেয় মোস্তাফিজুর রহমান ভাইকে। কারণ তিনিই আমার ওপর আস্থা রেখেছিলেন বিধায় আমি অনুষ্ঠানটি বেশ আন্তরিকতা নিয়ে উপস্থাপনা শুরু করি। মোস্তাফিজ ভাই অনেক নাটকের ক্ষেত্রেও আগে আমার নামই প্রস্তাব করতেন। তার কেমন যেন একটা আলাদা বিশ্বাস ছিল আমার ওপর। এমন গুণী মানুষের সম্পৃক্ততা থাকার কারণে অনন্যায় আমি যথেষ্ট মনোযোগ দিয়ে উপস্থাপনা করেছি। আর দীর্ঘদিনের এ পথচলায় এই অনুষ্ঠানটিকে আমার নিজের সন্তানের মতোই অনুভূত হয়। এখন কয়েক বছরে অনুষ্ঠানের আঙ্গিক কিছুটা বদলেছে। তবে মূল বিষয় যা ছিল তাই আছে। এখনও অনুষ্ঠানের রেকর্ডিং শুরুর আগে আমরা রিহার্সেল করে নিই, যেমন সুবর্ণা আপারা টিভি নাটকে অভিনয় করার আগে রিহার্সেল করে নিতেন। ধন্যবাদ জিটিভি কর্তৃপক্ষকে আমার ওপর আস্থা রাখার জন্য।’

Read previous post:
বাজারে মিলছে দেশি জাতের লিচু

তৃতীয় মাত্রা মধুমাস জ্যৈষ্ঠ আসতে এখনো কয়েক দিন বাকি। এর আগেই রাজশাহীর বাজারে লিচুর উপস্থিতি জানান দিচ্ছে মধুমাস আসছে। দেশি...

Close

উপরে