Logo
বুধবার, ১২ মে, ২০২১ | ২৯শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শেরপুরে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত

প্রকাশের সময়: ৩:৫৫ অপরাহ্ণ - রবিবার | এপ্রিল ২৫, ২০২১

তৃতীয় মাত্রা

আবু বকর সিদ্দিক শেরপুর থেকে : সারা বিশে^ করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ায় ঘরে থাকার নির্দেশ দিয়েছে সব দেশের রাষ্ট্র প্রধানরা। তার ব্যতিক্রম ঘটেনি বাংলাদেশেও। করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে দেশের সকল মানুষকে ঘরে থাকার নির্দেশ দিয়েছিল সরকার। তখন মানুষজন বলছিল ঘরে থাকব খাব কি? ঘরেতো খাবার নেই। এই কথা বলে সরকারকে বেকায়দায় ফেলেছিল সবাই। অথচ শপিংমলগুলো খুলে দেয়ায় সেখানে মানুষের কমতি নেই। একেই বলে বাঙালি। ঘরে থাকতে বললে খাবার নেই অথচ মার্কেটে গেলে টাকার অভাব নেই। ২৫ এপ্রিল রোববার সকালে এমনই চিত্র দেখা গেছে বগুড়ার শেরপুরের মার্কেটগুলোতে। অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের শেষের দিকে চীনের উহান প্রদেশে প্রথম করোনা ভাইরাসের উৎপত্তি হয়। ২০২০ সালের জানুয়ারী মাসেই পর্যায়ক্রমে সারা বিশে^ই ছড়িয়ে পড়ে এই ভাইরাস। মার্চ মাসের ৮ তারিখে বাংলাদেশেও ধরা পড়ে করোনা ভাইরাসটি। তার পর থেকে বিশ্লেষকদের সাথে পরামর্শের পর লকডাউন বিধি চালু করে দেশের সর্বস্তরের মানুষকে জরুরী প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে না বেড়োনোর জন্য নির্দেশ দেন সরকার। কিন্তু কে শোনে কার কথা। আমরা যে বাঙালি। যেটা করতে বলা হবে তা করে উল্টোটা করতেই আমরা বেশি পছন্দ করি। তাইতো সবাই বললো ঘরে থাকবো খাব কি ? ঘরেতো খাবার নেই। অথচ সিমিত আকারে স্বাস্থ্য বিধি মেনে ২৫ এপ্রিল থেকে শপিংমল খুলে দেয়ার কথা শুনেই সবাই আনন্দে ভাসতে লাগলো। স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দুরত্বের তোয়াক্কা না করে ধুমছে চলছে সবার কেনা কাটা। বগুড়ার শেরপুরের মার্কেটগুলোতে মানুষের ঢল দেখেই বোঝা যায় যে এদের টাকার কোন অভাব নেই। সামাজিক দুরত্ব, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার, মাস্কের ব্যবহারের কথা জানতে চাইলে শেরশাহ নিউ মার্কেটের কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, আমরা ক্রেতাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে দোকানের সামনে আসতে বলছি কিন্তু তারা তো শুনছেইনা। তাহলে আমরা কি করতে পারি? এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা মো. ময়নুল ইসলাম বলেন, সরকারি নির্দেশ মোতাবেক স্বাস্থ্যবিধি মেনে মার্কেটগুলো খোলা রাখার কথা। মাার্কেট ব্যবসায়ী নেতাদের সেই রকম নির্দেশনাই দেয়া হয়েেেছ। সরেজমিনে গিয়ে বিষয়গুলো দেখব। যদি ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা স্বাস্থ্যবিধি না মানে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Read previous post:
হাওরে আগাম জাতের ধান চাষে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে: কৃষিমন্ত্রী

তৃতীয় মাত্রা কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, হাওরে পর্যাপ্ত পরিমাণ ধান হয়, যা দেশের খাদ্য নিরাপত্তার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।...

Close

উপরে