Logo
রবিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২১ | ১লা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

যোগদান ও এমপিওবঞ্চিত শিক্ষকদের জন্য সুখবর

প্রকাশের সময়: ৯:৫৭ অপরাহ্ণ - বুধবার | জুন ১০, ২০২০

তৃতীয় মাত্রা

এনটিআরসিএর মাধ্যমে স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় বিভিন্ন স্কুল-কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ পাওয়ার এক বছরের বেশি পর আজ হতাশ আট শতাধিক নিবন্ধিত শিক্ষক। এনটিআরসিএর দ্বিতীয় চক্রে নিয়োগ সুপারিশ পাওয়া আট শতাধিক প্রার্থী এমপিওভুক্ত হতে পারেনি। তাদের হতাশার মূল কারণ ভুল তথ্য দেয়া শূন্যপদে নিয়োগ সুপারিশ, মহিলা কোটা, নবসৃষ্ট পদ, প্যাটার্ন বহিভূর্ত পদে নিয়োগ সুপারিশ সর্বোপরি ভুল তথ্য দেয়া শূন্যপদে নিয়োগ সুপারিশ পাওয়ায় এ জটিলতা সৃষ্টি হয়। এছাড়া  বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ সুপারিশ পেয়েও যোগদান করতে পারেননি অনেক প্রার্থী। তাদের সকলের জটিলতা নিরসনে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

গতকাল মঙ্গলবার (৯ জুন) শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সভাপতিত্বে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ এনটিআরসিএর সার্বিক কার্যক্রম অবহিতকরণ সভায় ভুক্তভোগী এসব প্রিয় শিক্ষক এবং প্রার্থীদের জটিলতা নিরসনে এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে৷ শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন, এনটিআরসিএর ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল হাওলাদার, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সৈয়দ মো. গোলাম ফারুকসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বুধবার (১০ জুন) সভার সিদ্ধান্ত সম্পর্কে দৈনিক শিক্ষা ডটকমকে নিশ্চিত করেছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল খায়ের।

সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে, মহিলা কোটা পূরণের বিষয়টি আবশ্যিকভাবে অনুসরণ করে প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ভুল তথ্যের কারণে মহিলা কোটায় নিয়োগপ্রাপ্তদের নিয়মিতকরণের বিকল্প ব্যবস্থা নিতে হবে। একই সঙ্গে এ বিষয়ে ভুল তথ্য প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের তালিকা প্রণয়ন করে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের শোকজ করা হবে।

ভৌত বিজ্ঞান, ব্যবসা শিক্ষা, ইংরেজি, আইসিটি বিষয়ের সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগপ্রাপ্তদের এমপিওভুক্তকরণ বিষয়ে প্রবর্তিত অর্থ বছর অনুসারে এমপিওভুক্ত করার ব্যবস্থা নিতে হবে। তবে, বাংলার সহকারী শিক্ষকদের বিষয়টি অর্থ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে মতামত নিয়ে পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। সংশ্লিষ্ট মহাপরিচালকরা এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।

সভায় আরও সিদ্ধান্ত হয়, সূচনালগ্ন থেকে এ অব্দি সুপারিশকৃত প্রার্থীদের যোগদানে ব্যর্থতা ও অপারগতার কারণসহ সর্বশেষ অবস্থা জানিয়ে তথ্য প্রেরণের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে চিঠি পাঠিয়ে প্রকৃত নিয়োগ বঞ্চিতদের পূর্ণাঙ্গ তথ্য প্রস্তুত করে প্রকৃত চিত্র  শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠাতে হবে। আর বেসকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শূন্য পদ না থাকা, কাঠামো বহির্ভূত চাহিদা, ভুল তথ্য প্রেরণের কারণে সুপারিশ পেয়েও নিয়োগ বঞ্চিতদের তালিকা প্রস্তুত করে মন্ত্রণালয়ে পাঠাতে হবে। যাদের বয়স ৩৫ বছর অতিক্রম করেনি তাদের এসএমএস করে তারা সুপারিশপ্রাপ্ত পদে চাকরি করতে আগ্রহী কিনা জানতে হবে এবং তারপর আগ্রহী প্রার্থীদের ভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শূন্য পদের বিপরীতে পদায়নের জন্য এনটিআরসিএ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

সভায় আরও সিদ্ধান্ত হয়েছে, কম্পিউটার বিষয়ের সহকারী শিক্ষক পদে সুপারিশকৃতদের মধ্যে ৬ মাসের ডিপ্লোমায় আদালতের রায়ের প্রেক্ষিতে যারা এখনো এমপিওভুক্ত হতে পারেনি তাদের এমপিওভুক্ত চূড়ান্তকরণে মহাপরিচালক প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেবেন।

আর সুপারিশকৃত প্রার্থীর যোগদানে প্রতিষ্ঠানের যৌক্তিক অপারগতার ক্ষেত্রে বিকল্প প্রার্থী রাখার কোন বিধান প্রচলিত আইনে সন্নিবেশনে রাখার সুযোগ রয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখতে এনটিআরসিএকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

গত বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি এনটিআরসিএর মাধ্যমে নিয়োগ সুপারিশ পেয়ে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যোগদান করে অনেক প্রার্থীই নানা জটিলতায় এমপিওভুক্ত হতে পারছেন না। জটিলতা নিরসনে শিক্ষা মন্ত্রণালয় উদ্যোগ নিলেও এমপিওভুক্ত হতে পারেননি। প্রার্থীদের মতে শূন্যপদের ভুল তথ্য দেয়ায় এমপিওভুক্তি এসব শিক্ষকের জন্য এখন সোনার হরিণ। কয়েক দফা এনটিআরসিএর কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করেও জটিলতা নিরসন করতে পারেনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদারাসা শিক্ষা বিভাগ।  এছাড়া শূন্যপদের ভুল তথ্য দেয়া সহ নানা অজুহাতে অনেক প্রার্থী যোগদান করতে দেয়নি প্রতিষ্ঠানগুলো। শিক্ষা মন্ত্রণালয় এসব সিদ্ধান্তের এসব প্রার্থী জটিলতা নিরসন হবে।

প্রার্থীরা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, প্রিলিমিনারি, লিখিত ও  মৌখিক পরীক্ষার মুখোমুখি হয়ে যোগ্যতা প্রমাণ করে নিবন্ধিত হয়েছি। অনেক আশা করে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের আবেদন করেছিলাম। সে অনুযায়ী নিয়োগ সুপারিশ পেয়েছি। চাকরির শুরুর বছর পার হলেও জোটেনি বেতন-ভাতা। এমপিওভুক্ত হতে পারিনি।  ভুল তথ্য দেয়া শূন্যপদে নিয়োগ সুপারিশ পাওয়ায় এ জটিলতা সৃষ্টি। আটশ’র বেশি প্রার্থী এ জটিলতায় ভুক্তভোগী।

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে দৈনিক শিক্ষার চ্যানেলের সাথেই থাকুন। ভিডিওগুলো মিস করতে না চাইলে এখনই দৈনিক শিক্ষাডটকমের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং বেল বাটন ক্লিক করুন। বেল বাটন ক্লিক করার ফলে আপনার স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে সয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিওগুলোর নোটিফিকেশন পৌঁছে যাবে।

Read previous post:
করোনা মোকাবিলা ও মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাপন অব্যাহত থাকবে: প্রধানমন্ত্রী

তৃতীয় মাত্রা করোনাভাইরাস মোকাবিলার পাশাপাশি মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাপনের জন্য যা যা করণীয়, তা করে যাওয়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ...

Close

উপরে