• Friday, 27 January 2023
চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয়ে বিশ্ব এইডস দিবস পালন

চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয়ে বিশ্ব এইডস দিবস পালন

 

স্টাফ রিপোর্টার:  চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. মোঃ সাখাওয়াত উল্লাহ বলেছেন, এইচআইভি একটি ভাইরাস যা শুধু মানুষের শরীরে সংক্রমিত হয়। এইডস ও এইচআইভি সৃষ্ট কতগুলো রোগের লক্ষণ এবং এটা মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমিত হয়। এ রোগে আক্রান্ত হয়ে সারাদেশে অনেক লোক মারা যাচ্ছে। হেপাটাইটিস-বি যেভাবে ছড়ায়, এইডস ও সেভাবে ছড়ায়। ইনজেকশনের মাধ্যমে শরীরে ড্রাগ নিলে বা যৌনকর্মীদের পেছনে
ছুটলে এ রোগ মারাত্বকভাবে ছড়ায়। কারো শরীরে এইচআইভি ভাইরাস আছে কিনা তা একমাত্র রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমেই জানা সম্ভব। সরকারের পাশাপাশি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানগুলো সারাদেশে এসটিডি ও এইচআইভি এইডস নির্মূলে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করেছে। জনগণের সক্রিয় অংশগ্রহণ ছাড়া এইডস নির্মূল করা সম্ভব নয়।

এটি প্রতিরোধে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থাগুলোকে আরো আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে। আজ ১ ডিসেম্বর  বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০ টায় সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত বিশ্ব এইডস দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে-‘অসমতা দূর করি, এইডস মুক্ত বিশ্ব গড়ি’। আলোচনা সভার পূর্বে বিশ্ব এইডস দিবস উপলক্ষে একটি র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করেন। সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, এইডস প্রতিরোধে পাড়া-মহল্লাসহ সর্বত্র ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা অব্যাহত রেখে জনগণকে সচেতন করতে হবে। বাঁচতে হলে জানতে হবে, জানতে হলে বুঝতে হবে।

এইডসমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে সবাইকে দায়িত্ব নিতে হবে। বর্তমান সরকারের আন্তরিকতায় জেলা ও মহানগর পর্যায়ে টিবি রোগের পাশাপাশি সম্পূর্ণ বিনামুল্যে এইডস রোগীদের চিকিৎসা সেবা মিলছে। ধর্মীয় অনুশাসন ও নিয়ম মেনে না চললে এইডস হবেই। যারা সমকামিতায় অভ্যস্ত তাদের বেশির ভাগই এইডসের ঝুঁকিতে থাকে। তাদের থেকে এ রোগ ছড়িয়ে পড়ে। উপজেলা-ইউনিয়ন পর্যায়ে এইডস রোগের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে সরকার ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। এইডস নিয়ন্ত্রণে থাকলে সুস্থ ও সুন্দর জাতি গঠন সম্ভব। সভায় জানানো হয়, বিগত ২০২১ সালে চট্টগ্রামে ৭১৯ জন এইচআইভি এইডস রোগী সনাক্ত হয়, মৃত্যুবরণ করেন ২০৫ জন এবং ১৯৮৯ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত মোট এইচআইভি এইডস রোগী সনাক্ত হয় ৮ হাজার ৭৬১ জন ও মৃত্যুবরণ করেন ১ হাজার ৫৮৮
জন।
জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও জেলা স্বাস্থ্য তত্ত্বাবধায়ক সুজন বড়ুয়ার সঞ্চালনায় অনুষ্টিত বিশ্ব এইডস দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. মোঃ সাখাওয়াত উল্লাহ। বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সেখ ফজলে রাব্বি ও আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মোস্তফা জামাল হায়দার। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিভিল সার্জন কার্যালয়ের এমওসিএস ডা. মোঃ নওশাদ খান। মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে এসটিডি ও এইচআইভি এইডস নির্মূল বিষয়ে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সিভিল সার্জন কার্যালয়ের এমওডিসি ডা. মোহাম্মদ নুরুল হায়দার।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা.মোহাম্মদ ওয়াজেদ চৌধুরী অভি, ডিএসএমও (টিবি) ডা. প্রমিতি কর্মকার, বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা এফপিএবি’র জেলা কর্মকর্তা মোঃ কামরুজ্জামান উজ্জ্বল, ব্র্যাক’র জেলা ম্যানেজার মোঃ জামাল উদ্দিন, নন্দনকানন বৌদ্ধ বিহারের জয়জ্যোতি ভিক্ষু অন্তেবাসী, বন্ধু সোস্যাল ওয়েল ফেয়ারের প্রতিনিধি নুরুল হাসেম, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের (চমেক) হেলথ
এডুকেটর সম্পদ দে, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের প্রধান সহকারী মোঃ আবু তৈয়ব, প্রধান সহকারী (প্রেষণে) সাহিদুল ইসলাম, পিএটু সিভিল সার্জন মফিজুল আলম, স্যানিটারী ইন্সপেক্টর টিটু পাল, সূর্যের আলো হিজড়া সংস্থার প্রতিনিধি মিঠু হিজড়া প্রমূখ।


অনুষ্ঠানে সিভিল সার্জন কার্যালয়ের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা পদক্ষেপ, ছায়াপথ, সূর্যের আলো, বন্ধু, ব্র্যাক, ঘাসফুল, মমতা, আশার আলো, এফপিএবি ও সেইভ দ্যা চিলড্রেনমহ বিভিন্ন এনজিও সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

comment / reply_from