• Thursday, 09 February 2023
চকরিয়া শান্তিবাজার-ইয়াংছা আন্তঃজেলা মহাসড়ক উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

চকরিয়া শান্তিবাজার-ইয়াংছা আন্তঃজেলা মহাসড়ক উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি: 
 
কক্সবাজারের চকরিয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বের অংশ হিসেবে ইয়াংছা-মানিকপুর-শান্তিবাজার আন্তঃজেলা মহাসড়ক উন্নয়ন কার্যক্রম সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।
 
২১ ডিসেম্বর(বুধবার) সকাল ১০ টায় প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারাদেশের দুই হাজার কিঃমিঃ উন্নয়নকৃত মহাসড়কের আওতায় কক্সবাজার সড়ক বিভাগের আওতাধীন সড়কটি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন। 
 
৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সড়কটিতে এরই মধ্যে যানচলাচল শুরু হয়েছে। সড়কটির উদ্বোধনের লক্ষ্যে কক্সবাজার সড়ক বিভাগ ইতোমধ্যে জিদ্দাবাজার অংশে সড়কে রঙিন পতাকা, ফেস্টুন, প্রধানমন্ত্রীর নাম ফলক স্থাপন করে দিয়ে সাজিয়ে নিয়েছে।
 
কক্সবাজার জেলার ইয়াংচা-মানিকপুর-শান্তিবাজার জেলা মহাসড়ক (জেড-১১২৬) দিয়ে ওই এলাকার বিশাল জনগোষ্ঠী যাতায়াত করে। সড়কটি ঢাকা (যাত্রাবাড়ী)-কুমিল্লা (ময়নামতি)-চট্টগ্রাম- টেকনাফ জাতীয় মহাসড়কের (এন-১) সঙ্গে চকরিয়া উপজেলা ও লামা উপজেলাকে সংযুক্ত করেছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজতর হওয়ায় চকরিয়া,লামা ও আলীকদম উপজেলার জনগণ উপকৃত হয়েছে। অত্র অঞ্চলের উৎপাদিত পণ্য ও সেবা সমূহ দ্রুততার সাথে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পরিবহণের মাধ্যমে এলাকার আর্থসামাজিক উন্নয়ন সাধিত হচ্ছে এবং জনগণ সুফল ভোগ করতে শুরু করেছে।
 
সড়কটি অপ্রশস্ত ও কিছু অংশ বিচ্ছিন্ন থাকায় বর্তমান সরকার সড়কটিকে ৩.৭০ মিটার হতে ৫.৫০ মিটারে প্রশস্তকরণ সহ ১৯ কিলোমিটার সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করেন। জেলা সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প (চট্টগাম জোন) (২য় পর্যায়) এর আওতায় এ প্রকল্পে নতুন সড়ক নির্মাণ ৮ কিঃমিঃ, কালভার্ট নির্মাণ ১১টি, রিজিড পেভমেন্ট ৩০০ মিটার, ফ্লেক্সিবল পেভমেন্ট প্রায় ১১.৫০ কিঃমিঃ, সসার ড্রেইন ১৫শ মিটার, কংক্রিট স্লোপ প্রটেকশন এবং আরসিসি রিটেইনিং ওয়াল ইত্যাদি নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। ০১ জুলাই ২০১৮ ইং তারিখে প্রকল্পটি শুরু হয়ে ৩০ জুন ২০২২ ইং তারিখে সমাপ্ত হয়।
 
কক্সবাজার সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ শাহে আরেফীন বলেন,গত ৭ ডিসেম্বর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজার সফরকালে সড়ক বিভাগের সদ্য সমাপ্ত তিনটি প্রকল্প উদ্বোধন করেন। আজ ২১ ডিসেম্বর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক সারাদেশে ২০০০ কিঃমিঃ উন্নয়নকৃত মহাসড়কের শুভ উদ্বোধনের মাধ্যমে দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থায় এক নতুন মাইলফকের সৃষ্টি হলো যা সামগ্রিক অর্থনীতিতে সুফল বয়ে আনবে"।
 
সড়ক বিভাগ চকরিয়ার উপ-সহকারী প্রকৌশলী মোহাম্মদ দিদারুল ইসলাম জানান, সড়কটির উন্নয়নের ফলে চকরিয়া হতে লামা ও আলীকদম উপজেলার সাথে দূরত্ব কমার পাশাপাশি ফাঁসিয়াখালী, সুরাজপুর -মানিকপুর, কাকারা, লক্ষ্যারচর, কৈয়ারবিল ও বরইতলী ইউনিয়ন সমূহের যোগাযোগ ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। এছাড়া এসব জনপদে উৎপাদিত কৃষিপণ্য সহজেই দেশের বিভিন্ন জেলায় পৌঁছানো যাচ্ছে।

comment / reply_from