• Friday, 27 January 2023

কাতার বিশ্বকাপ ফাইনালে এমবাপের হ্যাটট্রিক

কাতার বিশ্বকাপ ফাইনালে এমবাপের হ্যাটট্রিক

১১ জনের আর্জেন্টিনার বিপক্ষে কাতার বিশ্বকাপের ফাইনালটা যেন একাই খেললেন ফুটবল তারকা কিলিয়ান এমবাপে। এ ম্যাচের ৭৮ মিনিট পর্যন্ত দল যখন হেরে যাওয়ার পথে তখন কী স্নায়ুর জোরটাই না দেখালেন কিলিয়ান এমবাপে! এ ম্যাচের মাত্র ১ মিনিটের ব্যবধানে দুই গোল ফরাসি ফরোয়ার্ডের। অতিরিক্ত সময়েও আবারও দলের ত্রাতা হলেন এমবাপে। এ ম্যাচে ১১৮ তম মিনিটে গোল করে দলকে হারের মুখ থেকে বাঁচিয়ে দেওয়ার পরে তুলে নিলেন বিশ্বকাপ ফাইনালে হ্যাটট্রিকও।

এই হ্যাটট্রিকে নতুন রেকর্ডের মালিক হয়েছেন ফুটবল তারকা এমবাপে। জিও ফোর্স্টের পরে দ্বিতীয় খেলোয়াড় হিসেবে বিশ্বকাপ ফাইনালে হ্যাটট্রিক করার গৌরব অর্জন করলেন ফরাসি সুপারস্টার। এ ম্যাচের শেষ গোলটা করে এবারের বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ গোল সংগ্রাহকও হলেন তিনি। আর ৮ গোল করে ফুটবল মহাতারকা লিওনেল মেসিকে পেছনে ফেলেছেন তিনি।

দুই বিশ্বকাপ মিলিয়ে পূটবল তারকা এমবাপের গোলসংখ্যা এখন ১২। আর দ্বাদশ গোলে বিশ্বকাপে গোলসংখ্যার দিক দিয়ে এখন পেলের সমান পিএসজি ফরোয়ার্ড।

উল্লেখ্য, টাইব্রেকারে চতুর্থ গোলের সাথে সাথেই লুসাইল স্টেডিয়াম যেন ফেটে পড়ল উল্লাসে। কাতারের লুসাইল স্টেডিয়াম রূপ নিলো হট ফেভারিট দল আর্জেন্টিনার বুয়েন্স আয়ার্সে। আর সমর্থকদের কোলাহলে তখন কানে তালা লেগে যাওয়ার যোগাড়। আর এ চিৎকার যেন আকাশই ছুঁয়ে ফেলতে চাইলো।আর এমন উল্লাস হবেই বা না কেন! এ দিনটির জন্য যে আর্জেন্টাইনদের অপেক্ষা ছিল ৩৬ বছর ধরে! ম্যারাডোনার পরে লিওনেল মেসি যে আর্জেন্টিনাকে শিরোপা এনে দিলেন!

বিশ্বকাপ ফাইনাল তো বটেই এ ম্যাচ, আর ফুটবল ইতিহাসেরই অন্যতম সেরা ম্যাচ এটা কি না তা নিয়ে জোর তর্কই হতে পারে। এ ম্যাচে ছয় গোল, হ্যাটট্রিক ও টাইব্রেকার সবই যে হয়েছে এই ম্যাচে। এ ম্যাএচর নির্ধারিত সময়ে ২-২ গোলে সমতা, আর অতিরিক্ত সময়ে ৩-৩। এরপরে টাইব্রেকার রোমাঞ্চ ছাড়িয়ে ৪-২ গোলে জয় আর্জেন্টিনা দলের, আর তাতেই তৃতীয় বারের মতো বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন আকাশি-সাদারা।

পেন্ডুলামের মতো দুলছিলো এ ম্যাচ। তবে, এ ম্যাচের প্রথমার্ধের পুরোটা জুড়ে ছিল জনপ্রিয় দর আর্জেন্টিনার প্রতাপ। এ ম্যাচের ৭৭ মিনিট পর্যন্ত ২-০ গোলের লিড ছিল আর্জেন্টিনার। ফুটবল তারকা এমবাপে ঝলকে সমতা আনে ফ্রান্স। এ ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ে প্রথমার্ধ দুই দল লড়ল সমানে সমান। খেলার দ্বিতীয়ার্ধে মেসির গোলে ৩-২ লিড পায় আর্জেন্টিনা দল। আর মিনিট তিনেক পরে আবার ফ্রান্সের সমতা। আবারও পেনাল্টি থেকে গোল করেন ফুটবল তারকা এমবাপে।

গত ১৯৬৬ সালে ইংল্যান্ডের জিওফ হার্স্টের পরে বিশ্বকাপ ফাইনালের দ্বিতীয় হ্যাটট্রিক করেন এমবাপে। এরপরেও এ ম্যাচের আকর্ষণ বাকি ছিল। আর্জেন্টিনা দলের প্রায় গোল হওয়া বাঁচিয়ে দেন লরিস। অন্যদিকে এমবাপেও আরও গোলের সুযোগ তৈরি করেছিলেন। তবে এতে লাভ হয়নি, এ ম্যাচের ১২০ মিনিটের আগে আর কোনো গোল পায়নি কোনো দল। আর এ খেলাটা গড়ায় টাইব্রেকারে।

এ ম্যাচের টাইব্রেকারে এমবাপের গোল দিয়ে শুরু। এরপরে ফুটবল মহাতারকা জনপ্রিয় ফুটবলার মেসিও গোল করেন। আর আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ এরপরে কিংসলে কোম্যানের শট সেভ করেন।

comment / reply_from