• Tuesday, 31 January 2023
কর্ণফুলীর নৌপথে সদরঘাট থেকে কাপ্তাই নৌযান

কর্ণফুলীর নৌপথে সদরঘাট থেকে কাপ্তাই নৌযান

মুবিন বিন সোলাইমান, চট্টগ্রাম: বাংলাদেশ-ভারতের আন্তঃসীমান্তে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের একটি প্রধান নদী 'কর্ণফুলী। ভারতের মিজোরাম প্রদেশের লুসাই পাহাড় থেকে উৎপন্ন হয়ে রাঙ্গামাটি জেলার বরকল উপজেলা দিয়ে কর্ণফুলী বাংলাদেশে প্রবেশ করে। বরকলের পর রাঙ্গামাটি সদর ও কাপ্তাই, রাঙ্গুনিয়া, রাউজান, বোয়ালখালী, পটিয়া উপজেলা দিয়ে প্রবাহিত হয়ে চট্টগ্রাম শহর থেকে প্রায় ১৭ কিলোমিটার সম্মুখে বঙ্গোপসাগরে পতিত হয়েছে।

৩২০ কিলোমিটার দীর্ঘ এই নদীর নৌপথ দেশের সবচেয়ে প্রাচীন যোগাযোগ ব্যবস্থা মধ্যে একটি। মুঘল আমলে বর্তমান রাঙ্গুনিয়া সরফভাটার দেশীয় মদ ও মরিয়মনগরের তৈল, তুলা সহ বিভিন্ন পণ্য নৌপথ হয়ে মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপে রপ্তানি হত। ১৯৫৫ সালের আগে কাপ্তাই সড়ক নির্মাণ হওয়ার পূর্বে রাঙ্গুনিয়ার সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা নাজুক ছিল, তখন নদীপথই ছিল যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম।

বাংলাদেশে নৌপরিবহন অনেক সহজ ও সাশ্রয়ী। স্বল্পমূল্যে যাত্রী ও মালামাল পরিবহনে নৌযান ও নৌপথের কোনো বিকল্প নেই। বিভিন্ন সমস্যা এবং সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও আগের চেয়ে নৌপথ এখন অনেক বেশি নিরাপদ ও পরিবেশবান্ধব।

উন্নত বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নৌপথ হলো যোগাযোগে সবচেয়ে নিরাপদ মাধ্যম। নদীমাতৃক বাংলাদেশে তিনভাগ জল। অথচ বিশাল জলপথকে পুরোপুরি সদব্যবহার করা সম্ভব হয়নি। ইউরোপ আমেরিকার বেশির ভাগ দেশগুলোর মধ্যে নৌপথের ব্যবহার রয়েছে, এশিয়ার মধ্যে উন্নত দেশগুলোতেও নৌপথ ব্যবহৃত হচ্ছে, এছাড়া মধ্যপ্রাচ্যের দেশ গুলোর মধ্যে কৃত্রিমভাবে নৌপথ সৃষ্টি করা হয়েছে। অথচ কর্ণফুলীর প্রাকৃতিকভাবে পাওয়া এই সম্পদ চোখের সামনে নষ্ট হচ্ছে।

কর্ণফুলী নদীর তীরবর্তী এলাকাতে নৌপথে নৌযান সার্ভিস রাঙ্গুনিয়া বাসীর জন্য সময়ের দাবি, রাঙ্গুনিয়া উপজেলার বেতাগী, সরফভাটা, মরিয়মনগর, গোচরা, কোদালা, চন্দ্রঘোনাসহ অনেক এলাকার একসময়ের ব্যস্ততম ঘাট গুলো সড়ক পথে যাতায়াতের কারণে এখন জরাজীর্ণ ও জন মানব শূন্য হয়ে পড়েছে। নৌপথ ব্যবহারে ঘাটগুলো আগের ন্যায় সচ্ছল হয়ে নদীকেন্দ্রিক মানুষ গুলো নৌপথে অভ্যস্ত হবে এবং একসময়ের নৌযানকেন্দ্রিক জীবিকা নির্বাহি কিছু মানুষের কর্মসংস্থান হবে বলে মনে করেন এলাকাবাসী।

কাপ্তাই সড়কে যানবাহন ভাড়ার বৃদ্ধির সাথে সাথে বেড়েছে যানবাহন ও সড়ক দুর্ঘটনা, ট্রাফিক জ্যামের কারণে যথাসময়ে গন্তব্যে যেতে পারছে না নানা কর্মমুখী মানুষ, রাঙ্গুনিয়ায় নৌপথে নৌযান চলাচল শুরু হলে কাপ্তাই সড়কে যানবাহনের চাপ ও দুর্ঘটনা কিছুটা কমবে এবং সহজ ও সাশ্রয়ী যাতায়াত ব্যবস্থা হবে বলে মনে করেন সাধারণ জনগণ।

এছাড়াও প্রবাসীরা চট্টগ্রাম বিমানবন্দর যাতায়াতে সড়ক পথে দীর্ঘজ্যাম ও বিভিন্ন দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে, ফ্লাইট মিস হওয়ার ঘটনাও ঘটেছে অনেক। চট্টগ্রাম উত্তরাঞ্চলে নৌপথে নৌযান ব্যবহারে স্বল্প সময়ে সবচেয়ে সহজ ও নিরাপদ হবে বলে মনে করেন প্রবাসীরা।

অন্যদিকে মালবাহী যানবাহনের কারণে প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছোট বড় অনেক সড়ক নষ্ট হচ্ছে প্রতিনিয়ত, নৌপথ ব্যবহার করলে স্বল্প সময়ে পণ্য আনা নেওয়া ও কাপ্তাই সড়কে মালবাহী যানবাহনের চাপ কমাতে নৌপথ ব্যবহারের গুরুত্ব অপরিসীম বলে মনে করেন ব্যবসায়ীরা।

প্রাকৃতিক সবুজনিকুঞ্জের লীলাভূমি এই রাঙ্গুনিয়াতে রয়েছে ১০০০ বছরের প্রাচীন ইতিহাস ও বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া সভ্য নগরীর নিদর্শন। ভ্রমণপিয়াসুরা চিত্তাকর্ষক স্থানগুলো উপভোগ করতে পারবে ইউরোপ, আমেরিকা ও মধ্যপ্রাচ্যের মতো কর্ণফুলী নদীর পর্যটকদের সংখ্যাও বৃদ্ধি পাবে।

নৌপথ ব্যবহারের উপযোগী করে নৌযানের সার্ভিস চালু করে কাপ্তাইসড়কের চাপ কমিয়ে নিরাপদ যাতায়াতের ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন জানাচ্ছেন প্রশাসনের কাছে সাধারণ জনগণ।

comment / reply_from