• Tuesday, 07 February 2023
করোনায় প্রতিদিন মারা যাচ্ছে ৯ হাজার মানুষ

করোনায় প্রতিদিন মারা যাচ্ছে ৯ হাজার মানুষ

আন্তর্জাতিক.

নিয়মিত শনাক্তকরণ পরীক্ষা, উপসর্গবিহীন রোগীর সংখ্যা প্রকাশ বন্ধসহ বেইজিং তার ‘শূন্য কোভিড’ নীতি থেকে সরে আসায় এ মাসে পরিস্থিতি এখন আরও নাজুক আকার ধারণ করেছে। চলতি ডিসেম্বরের প্রথম দিন থেকে এ পর্যন্ত কোভিডে ১ কোটি ৮৬ লাখ লোক আক্রান্ত আর মৃত্যু ১ লাখে পৌঁছেছে বলে এয়ারফিনিটি তাদের বৃহস্পতিবারের বিবৃতিতে ধারণা দিয়েছে। জানুয়ারির ১৩ তারিখে সংক্রমণ তার প্রথম চূড়ায় পৌঁছাবে, সে সময় চীনে প্রতিদিন ৩৭ লাখ কোভিডে আক্রান্ত হবে বলেও অনুমান এ ব্রিটিশ গবেষণা প্রতিষ্ঠানের। তাদের এই মূল্যায়নের সঙ্গে চীনা কর্তৃপক্ষের দেওয়া তথ্যের ব্যাপক গরমিল দেখা যাচ্ছে। বিপুল সংখ্যক রোগীর চিকিৎসার দায় এড়াতে কর্তৃপক্ষ দেশ জুড়ে অসংখ্য পিসিআর শনাক্তকরণ পরীক্ষা কেন্দ্র বন্ধ করে দেওয়ার পর চীনের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ দেশটিতে এখন প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষের দেহে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের উপস্থিতির কথা জানাচ্ছে।

এয়ারফিনিটির অনুমান, চীনে কোভিডে মৃত্যু চূড়ায় পৌঁছাবে ২৩ জানুয়ারি, সে সময় প্রতিদিন ২৫ হাজার মৃত্যু দেখবে দেশটি, আর ডিসেম্বর থেকে সে পর্যন্ত চীনে করোনা ভাইরাসে মোট মৃত্যুও পৌঁছাবে ৫ লাখ ৮৪ হাজারে। ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহেই চীন তাদের কোভিডে মৃত্যুর সংজ্ঞায় বড় ধরনের বদল আনে। ঐ সময় থেকে এখন পর্যন্ত দেশটি করোনা ভাইরাসে মাত্র ১০ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে। তাদের নতুন সংজ্ঞায়, কেবল তারাই কোভিডে মৃত বলে গণ্য হবেন, যাদের মৃত্যু হবে করোনা ভাইরাসজনিত নিউমোনিয়া বা শ্বাসকষ্টে। কোভিডে আক্রান্ত কেউ যদি অন্য কোনো অসুখে মারা যান, তাহলে তার নাম কোভিডে মৃত্যু তালিকায় যুক্ত হবে না। মহামারি শুরুর পর বুধবার পর্যন্ত সরকারি হিসেবে চীনে কোভিডে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ২৪৬। আর এয়ারফিনিটির অনুমান, আগামী বছরের এপ্রিলের মধ্যে চীন জুড়ে করোনা ভাইরাসে মৃত্যু পৌঁছাবে ১৭ লাখে।

 প্রতিদিন করোনা ভাইরাসে ৯ হাজারের কাছাকাছি মানুষের মৃত্যু হচ্ছে বলে অনুমান করছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক স্বাস্থ্য তথ্য প্রতিষ্ঠান এয়ারফিনিটি। সপ্তাহখানেক আগে তারা এ সংখ্যা ৫ হাজার বলে উল্লেখ করেছিল। বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল দেশটিতে সংক্রমণ পরিস্থিতি মারাত্মক আকার ধারণ করায় মৃত্যুসংখ্যা এখন আগের ধারণার দ্বিগুণের কাছে পৌঁছে গেছে বলেই তারা মনে করছে।

চীনের প্রধান মহামারিবিদ উ জুনিয়ু বৃহস্পতিবার বলেছেন, চীনের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের একটি দল মৃতের সংখ্যার ব্যবধান পর্যালোচনার পরিকল্পনা করছে। দলটি চলতি প্রাদুর্ভাবে কোভিডসহ বিভিন্ন রোগে মানুষের মোট মৃত্যুর সঙ্গে মহামারি না হলে সম্ভাব্য কতজনের মৃত্যু হতো, সেই সংখ্যার পার্থক্য খতিয়ে দেখবে, ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের উ এমনটাই বলেছেন। এই ‘অতিরিক্ত মৃত্যুর’ হিসাব, চীন কোন কোন জায়গায় কম নজর দিয়েছে তা বের করতে কাজে দেবে, বলেছেন তিনি।

 

comment / reply_from