• Friday, 03 February 2023
কমলগঞ্জে কৃষকদের মধ্যে শীতকালিন সবজি চাষের ধুম পড়েছে

কমলগঞ্জে কৃষকদের মধ্যে শীতকালিন সবজি চাষের ধুম পড়েছে

রাজু দত্ত, কমলগঞ্জ প্রতিনিধি ।। মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে কৃষকদের মধ্যে শীতকালিন মৌসুমী সবজি চাষের ধুম পড়েছে। শীতের শুরুতেই বাজারে শীতকালীন শাকসবজি বাজারে তুলতে পারলেই অধিক টাকা উপার্জন করা সম্ভব বলে চারা তৈরি ও জমি পরিচর্যায় ব্যস্ত উপজেলার বিভিন্ন এলাকার কৃষকরা।


শীতকালীন বিভিন্ন সবজি রোপণের পাশাপাশি আগাম চাষ করা টমেটো বাজারজাতকরণের প্রস্তুতিও নিচ্ছেন কৃষকেরা। বিশেষ করে এ উপজেলা
থেকে আলু, টমেটো, ফুলকপি ও বাঁধাকপি, মুলা দেশের বিভিন্ন স্থানে বাজারজাত করা হয়। শীতকালীন বিভিন্ন জাতের সবজির চারা রোপণ ও
পরিচর্যায় কৃষক পরিবারগুলোতে ব্যস্ততা বেড়েছে। ক্ষেতগুলোতে এখন কৃষকদের পদভারে মুখরিত হয়ে উঠেছে ।তারা ক্ষেত পরিচর্যা, রোগ-বালাই
দমন ও অধিক ফলনের আশায় নাওয়া খাওয়া ভূলে দিনরাত হাড়ভাঙা পরিশ্রম করেছেন। উপজেলার সদর ইউনিয়নের জামিরকোনা, উত্তর তিলকপুর,উত্তর বালিগাঁও,লংগুরপাড়,নারায়নপুর,চৈতনগঞ্জ সহ ভানুগাছ, পতনউষার, আদমপুর, মাধবপুর, রানীরবাজার ও মুন্সীবাজার এলাকায় ব্যাপকহারে শাকসবজি চাষ হয়। সাম্প্রতিক সময়ের সবজির বাজার দর বিশ্লেষণ করে চাষিরা সবজি চাষ করে লাভবান হওয়ার আশায় তারা শীতকালিন সবজি চাষে ঝুঁকে পড়েছে। সবজির মধ্যে রয়েছে মুলা, বেগুন, শিম, ফুলকপি, বাঁধা কপি, লালশাক, তিতা করলা, টমেটো, ঢেরশ, পালংশাক ও পুঁই শাক ইত্যাদি।


আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এক মাসের মধ্যেই ক্ষেত থেকে উঠবে শীতকালীন শাকসবজি। বেশি লাভ ও বাম্পার ফলন হবে এমনটাই প্রত্যাশা
চাষি ও কৃষি বিভাগের। সরেজমিন কমলগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, চাষিরা ব্যাপকহারে শীতকালীন সবজি চাষ করছে। চারা তৈরি থেকে শুরু করে শাকসবজি রোপনে ব্যস্ত সময় পার করছেন এলাকার চাষিরা। পুরুষদের পাশাপাশি ঘরের নরীরাও একযোগে কাজ করছেন মাঠে। জামিরকোনা এলাকার কৃষক কাশেম মিয়া, বলেন, প্রতিবছরের মতো এবার ও শীতকালীন সবজি চাষে নেমেছি। তাই নাওয়া-খাওয়া ভুলে দিনরাত শ্রম দিচ্ছি সবজিক্ষেতে। সময়ের মধ্যে যদি সবজি তুলতে পারি তবে আশা করছি লাভবানহবো।স্থানীয় কয়েকজন কাচাঁমাল ব্যবসায়ী জানান, বর্তমানে বাজারে চড়া দামে সবজি বিক্রি হচ্ছে। যে কোনো সবজি যদি মৌসুমের শুরুতে বাজারে তোলা যায়, তবে তার দাম বেশি পাওয়া যায়। সবজি চাষি ঝুমন দত্ত বলেন, এবার আবহাওয়া ভালো থাকায় সবজির ভালো ফলন হবে। উপজেলার অনেক বেকার যুবক চাকরির দিকে না ঝুঁকে নেমে পড়েছেন মৌসুমী সবজি চাষে। এখন সবজি কম পাওয়া গেলেও মাসখানেকের মধ্যে ভরপুর হবে কমলগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বাজারগুলোতে। দাম কিছুটা বেশি হলেও ভোক্তারা স্বাদ নেবে এসব সবজির।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় ১ হাজার ৫৯৫ হেক্টর জমিতে রবি ফসল ও ৫২৮ হেক্টর জমিতে দেশি আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ২২০ হেক্টর জমিতে সবজি চাষ করা হয়েছে। মৌসুমের শুরু থেকে
গ্রীষ্মকাল আসার আগ পর্যন্ত এখানকার কৃষকেরা সবজি চাষ ও বিক্রি করবেন। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. জনি খান বলেন, এই উপজেলার মাটি ভালো থাকায় সবধরনের ফসল অতি সহজে উৎপাদন করা যায়। এখানকার সবজি দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্রি হয়। শীতকালীন আগাম সবজি চাষে কৃষকেরা বেশি লাভবান হন।

comment / reply_from