• Friday, 03 February 2023

ইরানি ফুটবলাররা অবশেষে জাতীয় সঙ্গীত গাইলেন

ইরানি ফুটবলাররা অবশেষে জাতীয় সঙ্গীত গাইলেন

'সঠিকভাবে হিজাব না পরায়' রাষ্ট্রীয় বাহিনী কর্তৃক মাশা আমিনী হত্যাকাণ্ড এর ঘটনার প্রতিবাদে গত কয়েকমাস ধরেই ইরান উত্তাল হয়ে আছে। সেই প্রতিবাদের ঢেউ লেগেছে এবার বিশ্বকাপেও। ইরানের ম্যাচে গ্যালারিতে দেখা যাচ্ছে এ প্রতিবাদ। আজ ওয়েলসের বিপক্ষে ইরানের ২-০ গোলে জয় পাওয়া এ ম্যাচেও এর ব্যতিক্রম হয়নি।

তবে, ইরানের ফুটবলাররা আজ তাদের জাতীয় সঙ্গীতের সাথে ঠোঁট মিলিয়েছেন।

মাশা আমিনির হত্যা ও দেশে হিজাব বিরোধী আন্দোলনের প্রতিবাদে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে জাতীয় সঙ্গীত গাননি ইরানের ফুটবলাররা। অনেকেই মনে করেছিলেন যে, দ্বিতীয় ম্যাচেও তাদের এ প্রতিবাদী মনোভাব বজায় থাকবে। কিন্তু, দ্বিতীয় ম্যাচে আজ ২৫ নভেম্বর শুক্রবার তাদের জাতীয় সঙ্গীত গাইতে দেখা যায়। যদিও কাউকেই স্বতঃস্ফুর্ত মনে হয়নি। এখন প্রশ্ন উঠেছে যে, ‘ইরান সরকারের চাপেই কি মাথা নোয়ালেন ফুটবলাররা?’

প্রথম ম্যাচে ফুটবলারদের প্রতিবাদ এমন দেখে ইরান সরকারের পক্ষ থেকে তাদেরকে হুঁশিয়ার করা হয়। একাধিক মন্ত্রী বলেছিলেন, ‘পরের ম্যাচে একই জিনিস দেখা গেলে দেশে ফেরার পর ফুটবলাররা শাস্তির মুখে পড়বেন। এমনকি গ্রেপ্তারও করা হতে পারে। ইতিমধ্যেই সরকারের বিপক্ষে মুখ খুলে গ্রেপ্তার হয়েছেন ইরানের সাবেক ফুটবলার। এখনকার ফুটবলারদেরও একই হাল হতে পারে। মনে করা হচ্ছে, শাস্তির ভয়েই এই ম্যাচে জাতীয় সঙ্গীতে গলা মিলিয়েছেন ফুটবলাররা।’

গ্যালারিতে থাকা ইরানের সমর্থকরা অবশ্য আজ শুক্রবারও প্রতিবাদ করেছেন। জাতীয় সঙ্গীত বাজার সময় তারা তীব্রভাবে ব্যাঙ্গাত্মক শিস দিয়েছেন। পতাকা নাড়িয়ে ও নারীদের স্বাধীনতার দাবিতে একাধিক পোস্টারও দেখা যায় মাঠে। এ সময় অনেক নারী দর্শক সমর্থকই কান্নায় ভেঙে পড়েন। এছাড়া, পুরুষ সমর্থকদেরও কাঁদতে দেখা যায়। এ সময় এক নারী দর্শক মাশা আমিনির নাম লেখা জার্সি পরে এসেছিলেন। মুখ এমন ভাবে রাঙিয়েছিলেন যেযাতে বোঝা যায় যে চোখ দিয়ে রক্ত পড়ছে। মাঠের বাইরেও ছিলো প্রতিবাদ।

comment / reply_from