• Friday, 03 February 2023
আদমদীঘিতে বৃষ্টিতে আঞ্চলিক মহাসড়ক কাদায় মাখামাখি, জনদুর্ভোগ চড়ম

আদমদীঘিতে বৃষ্টিতে আঞ্চলিক মহাসড়ক কাদায় মাখামাখি, জনদুর্ভোগ চড়ম

রাকিবুল হাসান, আদমদীঘি(বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বৃষ্টির আগে ধুলা এবং বৃষ্টির পর কাদায় মাখামাখি আদমদীঘির আঞ্চলিক মহা সড়ক। বগুড়ার সান্তাহার পৌর এলাকা সহ পুরো আদমদীঘি উপজেলায় সড়ক-মহাসড়কে এমন অবস্থা চলছে দীর্ঘ দিন থেকে। জনভোগান্তির এঘটনায় জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসন যেন নীরব দর্শক। অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে অবৈধ ট্রাক্টর ও মাটি কারবারিরা। গত মঙ্গলবার রাতে হওয়া এক পশলা বৃষ্টির পানিতে আঞ্চলিক মহাসড়ক ও গ্রামীন সড়কে সৃষ্টি হয়েছে কাদায় মাখামাখি অবস্থা।

গত তিন দিন ধরে চলছে জনদুর্ভোগ। ফসলি জমিতে অবৈধ ভাবে পুকুর খনন এবং খনন করা মাটি দিয়ে ফসলি জমি ভরাট ও ইট ভাঁটাতে পরিহবন করা অবৈধ ট্রাক্টরট্রলি থেকে পড়া মাটিতে পাকা সড়কগুলোর এমন বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এঅবস্থায় চরম দুর্ভোগে পরেছেন সড়কে চলা বাস, ট্রাক, অটো রিক্সা, ইজিবাইক, ভ্যান, মোটর সাইকেল চালক ও পথচারিরা। প্রায়ই ঘটছে ছোটখাট দুর্ঘটনা।

যে কোন মুহুর্তে ঘটতে পারে বড় ধরণের দূর্ঘটনা। গণঅভিযোগে জানা গেছে, বছরের পর বছর ধরে অবৈধ ট্রাক্টরট্রলি মালিক-শ্রমিকরা সান্তাহার-বগুড়া এবং সান্তাহার-নাটোর আঞ্চলিক বাইপাস মহাসড়ক এবং উপজেলার শহর ও গ্রামীন পাকা সড়ক দিয়ে অবাধে মাটি পরিবহন করে আসছে। ট্রাক্টরের ট্রলি থেকে পড়া মাটিতে কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে সড়কজুড়ে জমাট বেধেঁ যায় মাটির পুরু আস্তরণ। সড়কে জমা হওয়া মাটি বৃষ্টির আগে প্রচন্ড ধুলা এবং বৃষ্টির পরে সড়কে কাদায় মাখামাখি অবস্থার সৃষ্টি করে।

দেখে মনে হয় ইটের খোয়া, পাথর ও বিটুমিনের পরিবর্তে মাটি দিয়ে নির্মান করা সড়ক। সরেজমিনে দেখা গেছে, সান্তাহার-বগুড়া, সান্তাহার-নাটোর বাইপাস রোড, ছাতিয়ানগ্রাম রোড, চাঁপাপুর রোড, কুন্দুগ্রাম রোডসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক মহাসড়ক ও শহর-গ্রামীন পাকা সড়ক গুলো কাদার সড়কে পরিণত হয়েছে। পথচারীরা গায়ে কাদা মাটি লাগার ভয়ে চলাচল করতে পারছে না। বিশেষ দুর্ভোগে পড়েছেন সাইকেল ও মোটরসাইকেল চালকেরা। তাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। পিছলে গিয়ে প্রায়ই ঘটছে ছোটখাট দুর্ঘটনা।

বৃষ্টির পুর্বে সড়কগুলো ছিল ধুলায় আচ্ছাদিত। রাণীনগর থেকে সান্তাহারে আসা মটরসাইকেল আরোহী আবু বিন জাহেদ বলেন, আমি প্রতিদিন মেয়েকে নিয়ে সান্তাহারের একটি প্রাইভেট সেন্টারে যাতায়াত করি। এই রাস্তয় অবধৈ ট্রাক্টরের বেপরোয়া চলাচলের কারনে কি যে কষ্ট হয়েছে তা ভাষায় প্রকাশ করা দুরুহ। বৃষ্টি কারণে কর্দমাক্ত রাস্তায় মটরসাইকেল নিয়ে কয়েকবার কাদায় পরে গেছি। ফিরোজ খান নামের এক মটরসাইকেল আরোহী বলেন, জমির উপড়ি ভাগের মাটি কেটে এবং ফসলি জমি কেটে পুকুর খনন করা মাটি ইট ভাঁটায় এবং বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তৈরির জন্য ভরাটের কাজে ট্রাক্টরে করে মাটি বহনের সময় রাস্তায় পড়ে জমে থাকে। সেই মাটি রোদের সময় প্রচন্ড ধুলা আর বৃষ্টি হলেই কাদায় পরিণত হয়।

comment / reply_from