করোনা নিয়ে ভয়ঙ্কর তথ্য : রাজধানীর ড্রেনের পানিতে করোনাভাইরাস

150
দেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের হার কমেছে
দেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের হার কমেছে

করোনাভাইরাস নিয়ে ভয়ঙ্কর এক তথ্য উঠে এসেছে ঢাকা ওয়াসা এবং আইসিডিডিআরবি’র যৌথ গবেষণায়। গবেষণার ফলাফলে বলা হয়েছে, রাজধানীর ড্রেনের পানিতে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে।

আজ সোমবার, ৩০ মে রাজধানীর ওয়াসা ভবনে ঢাকা ওয়াসা এবং আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআর, বি) পরিচালিত যৌথ গবেষণার ফলাফল প্রকাশ করা হয়।

গবেষণার ফলাফলে বলা হয়েছে, রাজধানীর পয়োনিষ্কাশনের ড্রেনের পানি ছাড়াও কর্দমাক্ত জায়গায় করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ৫৬ শতাংশ ড্রেনের পানি এবং ৫৩ শতাংশ কর্দমাক্ত জায়গায় অদৃশ্য প্রাণঘাতী ভাইরাসটির অস্তিত্ব রয়েছে বলে জানা গেছে ঢাকা ওয়াসা এবং আইসিডিডিআরবি পরিচালিত গবেষণায়।

গবেষণার ফলাফলে আরও বলা হয়েছে, ওয়াসার পরিশোধিত পানিতে করোনাভাইরাসের কোনো উপস্থিতি পাওয়া যায়নি। এছাড়া ঢাকা সিটির ভেতরে অবস্থিত পুকুর এবং নদীর পানিতেও করোনার জীবাণু পাওয়া যায়নি।

ছয় মাসব্যাপী পরিচালিত এই গবেষণায় নমুনা হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে রাজধানীর বাসাবো ও নারিন্দার পয়োপাম্পিং স্টেশন এবং পাগলা স্যুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট থেকে নেওয়া পয়োনিষ্কাশনের পানি ও কর্দমাক্ত বর্জ্য।

গবেষণায় নমুনা হিসেবে আরও ব্যবহার করা হয়েছে তুরাগ নদী এবং বুড়িগঙ্গা নদীর পানি, মিরপুর মাজার পুকুর ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুটি পুকুরের পানি এবং ঢাকা সিটির ভূ-পৃষ্ঠের পানি।

উল্লেখ্য, ঢাকা ওয়াসা এবং আইসিডিডিআরবি ‘ঢাকা শহর এবং এর আশপাশে সার্স কোভ-২ এর উপস্থিতির জন্য পয়োনিষ্কাশন এবং অন্যান্য দূষিত পৃষ্ঠের পানি এবং শোধিত পানির উৎস’ শীর্ষক এই গবেষণার কাজ শুরু করে ২০২০ সালের আগস্ট মাস। গবেষণা চলে ২০২১ সালের জানুয়ারি মাস পর্যন্ত।

ছয় মাসব্যাপী বিশেষ এই গবেষণায় নেতৃত্বে ছিলেন আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআর, বি) এর বিশিষ্ট বিজ্ঞানী ড. সিরাজুল ইসলাম।