সীমানা টপকে পদ্মা সেতুর উপরে উঠে গেলেন উৎসুক জনতা (ভিডিও)

312

মাওয়া প্রতিনিধি : অবশেষ দীর্ঘ প্রতিক্ষার অবসান হলো। বহুল প্রতীক্ষিত স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন হলো।

শনিবার সকাল ১১টা ৫৮ মিনিটে মাওয়া পয়েন্টে টোল পরিশোধের পর উদ্বোধনী ফলক ও ম্যুরাল-১ উন্মোচনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর তিনি সেতু উদ্বোধন উপলক্ষ্যে সেখানে মোনাজাতে অংশ নেন।

এদিকে পদ্মা সেতু উন্মুক্ত হওয়ার পর এক নজর খুব কাছ থেকে দেখার জন্য উদগ্রিব হয়ে ওঠেন সাধারণ মানুষ। শুধু তাই নয়, উৎসুক জনতা রক্ষণাবেক্ষণের সীমানা টপকে সেতুর উপরেও উঠে পড়েন। অবশ্য সেতুতে ওঠার পরও কোনো রকম বাধার মুখে পড়তে হয়নি তাদের।

এর আগে মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষ্যে আয়োজিত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদান করেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে ডাক টিকেট অবমুক্ত ও সেতু নির্মাণের সাথে জরিতদের সঙ্গে ছবি তোলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, পদ্মা সেতু শুধু নদীর দুই পারের বন্ধন সৃষ্টি নয়, শুধু ইট সিমেন্টের সেতু নয়। এটি আমাদের মর্যাদার প্রতীক। আমাদের সক্ষমতার পরিচয়।

এসময় দেশবাসীর পাশাপাশি পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নে জড়িত সকলকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, বাংলাদেশের জনগণই আমার সাহসের ঠিকানা। আমি তাদের সেলুট জানাই।

এর আগে সকাল ১০টা ৫ মিনিটে পদ্মা সেতুর থিম সং পরিবেশনের মধ্য দিয়ে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। সেতু উদ্বোধন করতে হেলিকপ্টারে পদ্মার মাওয়া প্রান্তে পৌঁছান শেখ হাসিনা ও তার সফরসঙ্গীরা। সকাল ১০টায় সভা মঞ্চে পৌঁছান তিনি।

সুচী অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী মাওয়া পয়েন্ট থেকে শরীয়তপুরের জাজিরা পয়েন্টের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করবেন। জাজিরা পয়েন্টে পৌঁছে সেতু ও ম্যুরাল-২ এর উদ্বোধনী ফলক উন্মোচন করেন। সেখানেও মোনাজাতে যোগ দেন তিনি।

এরপর মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার কাঁঠালবাড়িতে সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত দলের জনসভায় যোগ দেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে হেলিকপ্টারে জাজিরা পয়েন্ট থেকে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করেন।

সীমানা টপকে পদ্মা সেতুর উপরে উঠে গেলেন উৎসুক জনতা