সিরাজগঞ্জে হারাতে বসেছে ঐতিহ্যবাহী বাঁশেরশিল্প

159
সিরাজগঞ্জে হারাতে বসেছে ঐতিহ্যবাহী বাঁশেরশিল্প
সিরাজগঞ্জে হারাতে বসেছে ঐতিহ্যবাহী বাঁশেরশিল্প

সিরাজগঞ্জের চাহিদা ও কদর কমে গেছে বাঁশের তৈরি পণ্যের। শুধু সিরাজগঞ্জে নয়, এমনি চিত্র সারাদেশের। সেখানে স্থান করে নিয়েছে প্লাস্টিকের পণ্য। বাঁশের সঙ্গে গ্রামের মানুষের নাড়ির সম্পর্ক। কিন্তু এই মানুষগুলোর ভাগ্যের পরিবর্তন হচ্ছে না।

বাজারে বাঁশের তৈরি আসবাব পত্রের চাহিদা না থাকায় হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী বাঁশশিল্প। ফলে মানবেতর জীবনযাপন করছেন এই শিল্পের সঙ্গে জড়িতরা।সিরাজগঞ্জ তথা সদর উপজেলার গুটি কয়েক পরিবার এ ঐতিহ্য জীবন ও জীবিকার তাগিদে বাঁশশিল্পকে আঁকড়ে ধরে রেখেছেন। বাড়ির উঠানে কিংবা বাড়ির ওপর দিয়ে চলে যাওয়া মেঠোপথ অথবা বাড়ির পাশে ফাঁকা জায়গায় বসে বাঁশ দিয়ে নানা পণ্য তৈরি করছেন গ্রামের এসব মানুষ।

নিজ বাড়ির উঠানে বসে কাজ করছিলেন সদর উপজেলার রতনকান্দি ইউনিয়নের একডালা গ্ৰামের ময়েজউদ্দিন (৫৫), শ্রী নইমা পাটনী (৬০), শ্রীমতি মায়া রানী (৪৬), পাঁচ ঠাকুরির সোরহাব আলী( ৮৫), জয়নগরের আঃসোলামান আলী (৫৫)। তারা বলেন, এটা বাপ-দাদার পেশা তাই আঁকড়ে ধরে আছি। এতে পরিশ্রম বেশি তবে লাভ কম।

রতনকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন জানান, এ শিল্পের সঙ্গে জড়িতরা অর্থনৈতিক কারণে পিছিয়ে রয়েছে। তাদের ঋণ প্রদানে ব্যাংকগুলোর সঙ্গে সম্পৃক্ত করে দেওয়া হচ্ছে। ছোনগাছা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ তিনি বলেন এসব শিল্পের সাথে আমার এলাকায় অনেক মানুষ আছে কিন্তু এদের যদি সরকারি কোন সহায়তা প্রদান করা যায় তাহলে এই শিল্প ধরে রাখা সম্ভব তবে আমি চেষ্টা করবো যেন এদের যে কোন ভাবে সরকারি সহযোগিতা করা যায়।