শ্রীপুরে তৃতীয় বারের মত টিউলিপ ফুটেছে কৃষি উদ্যোক্তা দেলোয়ারের বাগানে

136

বাংলাদেশে ফুটবে শীত প্রধান দেশের ফুল টিউলিপ, এটা ছিলো শুধু কল্পনা। এটাকে বাস্তবে রূপ দিয়েছেন গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার কেওয়া পূর্বখণ্ড গ্রামের কৃষি উদ্যোক্তা মৌমিতা ফ্লাওয়ার্স এর মালিক দেলোয়ার হোসেন।
২০২০ সালে দেশে প্রথমবারের মতো টিউলিপের চাষ করেন দেলোয়ার হোসেন। টিউলিপ বাগান দেখতে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে মানুষ তার শ্রীপুরের বাড়িতে ভিড় জমান। ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে দেলোয়ারের বাগানে দ্বিতীয় বারের মতো টিউলিপ ফুল ফোটে।

শ্রীপুরে তৃতীয় বারের মত টিউলিপ ফুটেছে কৃষি উদ্যোক্তা দেলোয়ারের বাগানে

এ বছর দেশের টিউলিপ নজর কেড়েছিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারও। বাগান পরিদর্শন করেছিলেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক ও শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনিসহ কৃষি দফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।
এবছর তৃতীয় বারের মত তার বাগানে টিউলিপ ফুল ফুটেছে তার বাগানে। শীতপ্রধান দেশ নেদারল্যান্ড ও ভারতের কাশ্মীরে এ ফুল বেশি দেখা যায়। দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে ফুলের বাগানসহ নার্সারি কাজে সম্পৃক্ত দেলোয়ার। সফল ফুল চাষি হিসেবে ২০১৭ সালে বঙ্গবন্ধু কৃষি পদকও পান দেলোয়ার হোসেন।

কৃষি উদ্যোক্তা দেলোয়ার হোসেন জানান, টিউলিপ মূলত শীত প্রধান দেশের ফুল। টিউলিপ ফুল ফুটতে সাধারণত ১১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার প্রয়োজন হয়। তবে শীত মৌসুমে আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে টিউলিপ ফুলের চাষ করা যায়। বিশেষ করে উত্তরের জেলাগুলোতে এই ফুল চাষ উপযোগী।

শ্রীপুরে তৃতীয় বারের মত টিউলিপ ফুটেছে কৃষি উদ্যোক্তা দেলোয়ারের বাগানে

তিনি আরো জানান, এ বছর উত্তরে জেলা পঞ্চগড়ের তেতুলিয়ায় তার পরামর্শ ও সহযোগিতায় ৪০ হাজার  টিউলিপ বাল্ব রোপণ করা হয়েছে। এছাড়াও রাজশাহীতে ১ হাজার বাল্ব রোপন করা হয়েছে এবং তার বাগানে ২৩ হাজার টিউলিপ বাল্ব রোপণ করা হয়েছে।তার বাগানে কয়েকটি প্রজাতির ১৩ কালারের টিউলিপ চাষ করা হয়েছে। এরমধ্যে ডাচ সানরাইস (ইয়েলো), পারপেল প্রিন্স (পারপেল), টাইমলেস (রেড হোয়াইট শেডি), মিল্কসেক (লাইট পিংক), বারসেলোনা (ডার্ক পিংক) নামে টিউলিপ ফুল ফুটেছে। এছাড়া অ্যাড রেম (অরেঞ্জ), লালিবেলা (রেড), দি ফ্রান্স (রেড), রিপ্লে (অরেঞ্জ), ডেনমার্ক (অরেঞ্জ), স্ট্রং গোল্ডসহ (ইয়েলো) ছাড়াও বিভিন্ন প্রজাতির টিউলিপ রয়েছে। ঢাকার কাছে হওয়ায় প্রতিদিন শত শত দর্শনার্থী বাগান পরির্দশনে আসছেন। কেউ ফুল এবং চারা কিনতে চাইলে বাগান থেকে টিউলিপ ফুল প্রতি পিস ১৩০ টাকা ও টবসহ ফুলের চারা ৫০০ টাকায় কিনে নিয়ে যাচ্ছেন।

শ্রীপুরে তৃতীয় বারের মত টিউলিপ ফুটেছে কৃষি উদ্যোক্তা দেলোয়ারের বাগানে

শ্রীপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মূয়ীদুল হাসান জানান, দেলোয়ারের টিউলিপ ফুলের চাষ দেশে ফুলচাষীদের মাঝে নতুন মাত্রা যোগ করেছে। তবে যেহেতু এটি শীতপ্রধান দেশের একটি ফুল সেহেতু খুব ভালোভাবে জেনে-বুঝে এ ফুল চাষ করতে হবে।