শেরপুর জেলা পরিষদের নির্বাচনে সীমানা নির্ধারণের জটিলতায় অভিযোগ দায়ের

শেরপুর জেলা পরিষদের নির্বাচনে সীমানা নির্ধারণের জটিলতায় অভিযোগ দায়ের
শেরপুর জেলা পরিষদের নির্বাচনে সীমানা নির্ধারণের জটিলতায় অভিযোগ দায়ের

গোলাম রব্বানী-টিটু:(শেরপুর) প্রতিনিধি : শেরপুর জেলা পরিষদের আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে শেরপুরের বিদায়ী জেলা প্রশাসকের নিকট সীমানা নির্ধারণের জটিলতা দেখা দেওয়ার ফলে অভিযোগ দায়ের করেছেন অনেকেই । ১৩৪ নং স্মারকমুলে শেরপুর জেলার ৫টি উপজেলার ৫২টি ইউনিয়ন ও ৪টি পৌরসভাকে দুটি সংরক্ষিত ওয়ার্ড

ঘোষনা করেছেন। শেরপুর-শ্রীবরদী উপজেলা ও পৌরসভা সহ ২৬টি ইউনিয়নকে ১নং ওয়ার্ড এবং নকলা, নালিতাবাড়ী, পৌরসভা ও ঝিনাইগাতীর ইউনিয়ন সহ ৩০টি ইউনিয়নকে ২ নং ওয়ার্ড ঘোষনা করেছেন। ঘোষিত প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী জেলা পরিষদের সংরক্ষিত আসনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে সাধারণ জনতা ও জনপ্রতিনিধিরা

ভোগান্তির শিকার হবে । এখানে শ্রীবরদী, নকলা, নালিতাবাড়ী ও ঝিনাইগাতী উপজেলার রাজনীতিবিদ এবং জনসাধারণের সাথে কথা বলে জানা গেছে, যাতায়াত ও জনস্বার্থের সুবিধার্থে নকলা ব্যতীত ঝিনাইগাতী, শ্রীবরদী ও নালিতাবাড়ীর একাংশকে সংরক্ষিত ২ নং ওয়ার্ড ঘোষনার করা হলে জনপ্রতিনিধিদের সেবার মান ভালো হবে।

নকলা, নালিতাবাড়ী ও ঝিনাইগাতীকে ২নং ওয়ার্ড হিসেবে চূড়ান্তকরণ করলে সাধারণ জনগণ ও জনপ্রতিনিধিরা ব্যাপক ভোগান্তির শিকার হবে বলে অনেকেই জানান। সেই কারণে শেরপুর, নকলা ও নালিতাবাড়ীর একাংশকে ১নং ওয়ার্ড এবং ঝিনাইগাতী শ্রীবরদী ও নালিতাবাড়ীর আরেকটি অংশ যুক্ত করে ২নং ওয়ার্ড ঘোষনার দাবি তুলে

অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, যেহেতু জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শেরপুরকে-১, নকলা-নালিতাবাড়ীকে-২ এবং ঝিনাইগাতী- শ্রীবরদীকে-৩ আসনে বিভক্তি করা হয়েছে। সংসদ সদস্যর পদ পৃথক, সেই কারণে নকলা-নালিতাবাড়ীতে ঝিনাইগাতী যুক্ত না করে ঝিনাইগাতী- শ্রীবরদী ও নালিতাবাড়ীর একাংশকে অথবা ঝিনাইগাতী,

শ্রীবরদী ও শেরপুরের একাংশকে যুক্ত করে ২নং ওয়ার্ড ঘোষনা করা হলে স্থায়ী সমাধান হবে বলে জানান ভূক্তভোগীরা। এ সমন্ধে ঝিনাইগাতী উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক ও জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য আয়েশা সিদ্দিকা রুপালী বলেন, ডিসি মহোদয়ের স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনটি প্রকাশ হওয়ার পর প্রায় অর্ধশতাধিক অভিযোগ

পত্র বিদায়ী জেলা প্রশাসক বরাবর দাখিল করা হয়েছে। কিন্তু বাস্তবায়ন না হলে এই সীমানা নির্ধারণের বিরুদ্ধে তিনি আদালতে মামলা করবেন বলে জানান। এ ব্যাপারে নবাগত জেলা প্রশাসক সাহেলা আক্তার জানান আমি সদ্য যোগদান করেছি, অভিযোগ দেখে একটা সিদ্বান্ত নেয়া হবে । শেরপুর-৩ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ

প্রকৌশলী এ,কে,এম ফজলুল হক বলেন, জেলা প্রশাসন কর্তৃক প্রকাশিত সীমানা নির্ধারণটি কিছু ত্রুটিপূর্ণ রয়েছে তা সংশোধনের প্রয়োজন। চুড়ান্ত ভাবে প্রস্তুতের সময় তিনি বিষয়টি দেখবেন বলে জানা গেছে।

Exit mobile version