শেখ কামাল বেঁচে থাকলে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির পথ আরও সুগম হতো : শিল্প প্রতিমন্ত্রী

93
শেখ কামাল বেঁচে থাকলে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির পথ আরও সুগম হতো : শিল্প প্রতিমন্ত্রী
শেখ কামাল বেঁচে থাকলে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির পথ আরও সুগম হতো : শিল্প প্রতিমন্ত্রী

আব্দুর রশিদ: শিল্প প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জ্যেষ্ঠ পুত্র, মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং বিশিষ্ট ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল ১৯৪৯ সালের ৫ আগস্ট তদানীন্তন গোপালগঞ্জ মহকুমার টুঙ্গীপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন, আজ তাঁর ৭৩তম জন্মবার্ষিকী।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালরাতে ঘাতকের নির্মম গুলিতে মাত্র ২৬ বছর বয়সে শহীদ হওয়ার আগে তিনি দেশ ও জাতির কল্যাণে গুরুত্ব পূর্ণ অবদান রেখে গেছেন। তিনি বেঁচে থাকলে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির পথ আরও সুগম হতো এবং এতোদিনে হয়তো বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে উঠতো।

আজ ০৫ আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ তারিখ রোজ- শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর মিরপুর-১৩ এলাকায় বায়তুর রেজা জামে মসজিদে পবিত্র জুম্মার নামাজ আদায়ের পূর্বে উপস্থিত মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে প্রদত্ত বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

শিল্প প্রতিমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতা-উত্তর যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ পুনর্গঠণ ও পুনর্বাসন কর্মসূচীর পাশাপাশি সমাজের পশ্চাৎপদ জনগোষ্ঠীর ভাগ্যোন্নয়নে তাঁর অসামান্য অবদান রয়েছে। তিনি উপমহাদেশের অন্যতম ক্রীড়া সংগঠন আবাহনী ক্রীড়া চক্রের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি ছাত্রলীগের একজন নিবেদিত, সংগ্রামী ও আদর্শবাদী কর্মী হিসেবে ১৯৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান ও ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। তাঁর অকাল মৃত্যুতে দেশের অপূরণীয় ক্ষতি সাধিত হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাই ক‌ওমী সনদের স্বীকৃতি দিয়েছেন উল্লেখ করে কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির পাশাপাশি ইসলামের প্রচার ও প্রসারেও আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বর্তমান সরকারের উদ্যোগেই প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে সর্বমোট ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপিত হয়েছে।

তিনি বলেন, করোনা মহামারীর কবলে সমগ্র বিশ্ব বিপর্যস্ত হলেও পরম করুণাময়ের অসীম কৃপায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ সর্বস্তরের মানুষের জন্য বিনামূল্যে কোভিড-১৯ এর টিকার সুব্যবস্থাসহ অত্যন্ত সফলভাবে করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়েছে, যা আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছে।

শিল্প প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশরত্ন শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে বাংলাদেশ উনয়নের মহাসড়কে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে চলেছে বলেই একসময়ের তথাকথিত তলাবিহীন ঝুড়ির দেশ‌ই এখন বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। বঙ্গবন্ধুকন্যার গতিশীল নেতৃত্বেই সকলের আন্তরিক প্রচেষ্টায় বিদ্যমান করোনাসহ সকল বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে ২০৪১ সালের মধ্যেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে উঠবে, ইনশাআল্লাহ।

কামাল আহমেদ মজুমদার এমপির উপস্থিতিতে জুম্মার নামাজের পর সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী, স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালরাতে নির্মম হত্যাকান্ডের শিকার বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যবৃন্দসহ সকল শহীদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনায় বিশেষ দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

বিকালে তিনি রাজধানীর রূপনগর এলাকায় মনিপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ভবনের অডিটোরিয়ামে বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল এর ৭৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করেন।

শিল্প প্রতিমন্ত্রী অন্যান্য অতিথিবৃন্দকে সাথে নিয়ে ৭৩ পাউন্ড ওজনের কেক কেটে বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল এর ৭৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন এবং সকল শহীদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাতের জন্য সকলের নেক দোয়া কামনা করেন।

এসময় মনিপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের এডহক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক রাশেদা আক্তারসহ অন্যান্য সদস্যগণ, অধ্যক্ষ মোঃ ফরহাদ হোসেন, বিভিন্ন ব্রাঞ্চের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।