মালয়েশিয়ায় আজ থেকে কলিং ভিসা আবেদন শুরু

113
মালয়েশিয়ায় আজ থেকে কলিং ভিসা আবেদন শুরু
মালয়েশিয়ায় আজ থেকে কলিং ভিসা আবেদন শুরু

এম এ আবির, মালয়েশিয়া প্রতিনিধি : আজ ২৮শে জানুয়ারি পূর্ব নির্ধারিত বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী বিভিন্ন দেশ থেকে মালয়েশিয়ায় বিদেশি কর্মী নিয়োগের কলিং ভিসার আবেদন শুরু হয়েছে। কোম্পানি বা মালিক তাদের চাহিদা অনুযায়ী অনলাইনে আবেদন করতে পারবে প্লান্টেশন সেক্টরে প্রাথমিক ভাবে। আগামী ১৫ই ফেব্রুয়ারি থেকে সকল সেক্টরের জন্য আবেদন করতে পারবে।

মালয়েশিয়ায় বিদেশি কর্মী নিয়োগে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিদেশি কর্মীর (বিভিন্ন সেক্টর) জন্য রেফারেন্সসহ ভিসা (ভিডিআর) আবেদন করা যাবে।বুধবার (২৬ জানুয়ারি) দেশটির ইমিগ্রেশন বিভাগের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নিয়োগ কর্তাদের অন্তর্ভুক্তে যারা ২০১৯ সালের ১ নভেম্বর থেকে ২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ভিডিআর চিঠি ইস্যু করেছে বা যারা ২০২০ সালের ১ নভেম্বর থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ভিডিআর পেমেন্ট করেছেন কিন্তু চিঠি ছাপা হয়নি তারা আবেদন করতে পারবে। নিয়োগকর্তারা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়ান-স্টপ অ্যাপ্রুভাল সেন্টার (ওএসসি) থেকে বিদেশি কর্মীদের চাকরির জন্য শর্তসাপেক্ষ অনুমোদনের পত্রের একটি এক্সটেনশন পেয়েছে নিয়োগকর্তাদের বৈধ বায়োমেডিকাল পরীক্ষার রিপোর্ট, কোভিড-১৯ কভারেজ সহ বীমা এবং বিদেশী কর্মীদের জন্য নতুন স্বাস্থ্য বীমা সুরক্ষা প্রকল্প জমা দিতে হবে, বৃক্ষরোপণ খাত ছাড়া। নিয়োগকর্তা বা নিয়োগকর্তার প্রতিনিধিকে অবশ্যই ইমিগ্রেশন সদর দফতরে বা প্রয়োজনীয় নথি জমা দেওয়ার জন্য নিয়োগকর্তার ঠিকানা অনুযায়ী রাজ্য অভিবাসন অফিসে উপস্থিত থাকতে হবে।

উল্লেখ, বহুল কাঙ্ক্ষিত শ্রমবাজার মালয়েশিয়ায় বিদেশি কর্মী নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে। দেশটির কোম্পানী বা নিয়োগকারীরা প্ল্যান্টেশন খাতে বিদেশি কর্মী নিয়োগের লক্ষ্যে আজ ২৮শে জানুয়ারি থেকে অনলাইনে আবেদন করতে পারবে এবং ১৫ ই ফেব্রুয়ারি থেকে সকল সেক্টরের জন্য আবেদন করতে পারবে বলে গত সাপ্তাহে জানিয়েছিলেন দেশটির মানবসম্পদমন্ত্রী এম সারাভানান। শনিবার মন্ত্রনালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে এতথ্য জানিয়েছেন।

বৃক্ষরোপণ খাতসহ অন্যান্য খাতে ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে বিদেশি কর্মী নিয়োগে নিয়োগকর্তারা নির্ধারিত ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন। এর আগে গত ১০ই জানুয়ারি মানবসম্পদ মন্ত্রী এম সারাভানান নিয়োগকর্তাদের উদ্দেশে বলেন, যারা বিদেশি কর্মী নিয়োগ করতে চান, তারা প্রকৃত প্রয়োজনের ভিত্তিতে আবেদন জমা দিতে পারবেন। নিয়োগকর্তাদের আবেদন প্রক্রিয়া দ্রুততর করতে এবং প্রতারকদের প্রতারণা এড়াতে মধ্যস্থতাকারী বা তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে কোনো অর্থ লেনদেন করতে নিষেধ করেছেন মানবসম্পদমন্ত্রী। আজ শনিবার মানবসম্পদমন্ত্রী স্বাক্ষরিত এক নোটিশে বলা হয়েছে, দেশটিতে বৃক্ষরোপণ খাতে শ্রমিক ঘাটতি কমাতে গত বছরের সেপ্টেম্বরে ৩২ হাজার বিদেশি শ্রমিক আনার জন্য সরকার বিশেষ অনুমোদন দিয়েছে। গত ১০ ডিসেম্বর মন্ত্রিসভার বৈঠকে বৃক্ষরোপণ খাত ছাড়া অন্য সব সেক্টরে বিদেশি কর্মী নিয়োগের বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়। বৈঠকে অনুমোদিত খাতগুলো হলো কৃষি, উৎপাদন, পরিষেবা, খনি এবং খনন, নির্মাণ এবং গৃহকর্মী। এদিকে, মানবসম্পদমন্ত্রী নিয়োগকর্তাদের সরকার থেকে নির্ধারিত বিদেশি কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর (এসওপি) মেনে চলার কথাও মনে করিয়ে দিয়েছেন। তিনি বলেন, এসওপি চারটি পর্যায়ে ভাগ করা হয়েছে। যথা প্রি রিলিজ, আগমনের পর, আগমনের পরে (সংগনিরোধ) এবং পোস্ট-কোয়ারান্টিন। সব বিদেশি কর্মীকে সাতদিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে, যার মধ্যে তাদের কোভিড-১৯ এর জন্য দুবার স্ক্রিন করা হবে এবং নিয়োগকর্তাদের খরচ বহন করতে হবে। এছাড়া বর্তমানে সব কোয়ারেন্টাইন কেন্দ্র, পাশাপাশি কোয়ারেন্টাইনের নির্ধারিত হোটেলগুলো ক্লাং উপত্যকায় ছিল এবং তারা একবারে ১০ হাজার লোককে সেবা দিতে প্রস্তুত। এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, কোয়ারেন্টাইন সেন্টার হিসেবে ব্যবহারের সুবিধা দিতে আগ্রহীদের স্বাগত জানিয়েছে মন্ত্রণালয়।