মামীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা, তারপর যা ঘটলো…

529
৮ বছর আগে সারপুকুর ইউনিয়নের দেল্লারপাড় এলাকার রুমী বেগমের সাথে বিয়ে হয় কালীগঞ্জ উপজেলার চন্দ্রপুর ইউনিয়নের আপেল মিয়ার। বিয়ের কিছুদিন পরই আপেলের আপন ভাগ্নে নুরুজ্জামানের সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন মামী রুমী বেগম।
৮ বছর আগে সারপুকুর ইউনিয়নের দেল্লারপাড় এলাকার রুমী বেগমের সাথে বিয়ে হয় কালীগঞ্জ উপজেলার চন্দ্রপুর ইউনিয়নের আপেল মিয়ার। বিয়ের কিছুদিন পরই আপেলের আপন ভাগ্নে নুরুজ্জামানের সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন মামী রুমী বেগম।

মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাফা, লালমনিরহাট প্রতিনিধি : আপন মামীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়ে এলাকাবাসীর হাতে গণধোলাই খেয়েছে ভাগ্নে নুরুজ্জামান (৩৫)। পরে পুলিশ তাকে থানায় নিয়ে গেছে।

বৃহস্পতিবার (১৪ জুলাই) বিকেলে লালমনিরহাটের আদিতমারীতে জনতার হাতে আটক নুরুজ্জামানকে থানায় নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদিতমারী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোক্তারুল ইসলাম।

আটককৃত নুরুজ্জামান চন্দ্রপুর এলাকার নুরল হকের ছেলে এবং কালীগঞ্জ উপজেলার চন্দ্রপুর ইউনিয়ন যুব দলের সাংগঠনিক সম্পাদক।

৮ বছর আগে সারপুকুর ইউনিয়নের দেল্লারপাড় এলাকার রুমী বেগমের সাথে বিয়ে হয় কালীগঞ্জ উপজেলার চন্দ্রপুর ইউনিয়নের আপেল মিয়ার। বিয়ের কিছুদিন পরই আপেলের আপন ভাগ্নে নুরুজ্জামানের সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন মামী রুমী বেগম। এক পর্যায়ে এলাকায় জানাজানি হলে এ নিয়ে বিচার-সালিসও হয় কয়েকবার। কিন্তু আপোষ মিমাংসার কিছুদিন যেতে না যেতেই আবার শুরু হয় তাদের অবৈধ পরকীয়া প্রেম। পরে স্বামী আপেল মিয়া রুমী বেগমকে তার বাপের বাড়ি আদিতমারী সারপুকুরে পাঠিয়ে দেন।

এরপর থেকে বাপের বাড়িতেই বসবাস করে আসছেন মামী রুমী বেগম। এরই এক পর্যায়ে বুধবার রাত ৯টার দিকে সারপুকুরস্থ বাপের বাড়িতে থাকা মামীর সাথে দেখা করতে যায় ভাগ্নে নুরুজ্জামান। পরে মামী-ভাগ্নেকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পেয়ে ভাগ্নে নুরুজ্জামানকে গণধোলাই দেয় এলাকাবাসী।

এ বিষয়ে আদিতমারী উপজেলার সারপুকুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ কবির হোসেন বলেন, স্থানীয়রা তাকে (নুরুজ্জামান) আটক করে আমাকে সংবাদ দিলে আমি থানা পুলিশের মাধ্যমে থানায় তাকে হস্তান্তর করি।

আদিতমারী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ মোক্তারুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে আসামীকে থানায় আনা হয়েছে। তিনি আরও জানান, মামলার প্রস্তুতি চলছে। মামলা হলে আদালতের মাধ্যমে আসামীকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হবে।