বেলকুচিতে সূর্যমুখী ফুল চাষে অধিক লাভের স্বপ্ন দেখছেন কৃষক

107

এম এ মুছা,বেলকুচি (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জ বেলকুচিতে সূর্যমুখী ফুল চাষে অধিক লাভের স্বপ্ন দেখছেন কৃষক। চলতি মৌসুমে কৃষকরা ব্যাপক হারে জমিতে সূর্যমুখী ফুলের চাষ করেছেন ইতি মধ্যে গাছে ফুল ধরতে শুরু করেছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বেলকুচি উপজেলার মেঘুল্লা, আমবাড়িয়াসহ বিভিন্ন স্থানে কৃষি জমিতে সূর্যমুখী ফুল হাসিমুখে সূর্যের হাসি ছড়াচ্ছে চারিদিকে। হলুদ ফুল আর সবুজ গাছের অপরূপ দৃশ্য। সূর্যমুখীর সৌন্দর্য দেখতে আশ পাশের বিভিন্ন স্থান থেকে দর্শনার্থীরা জমির পাশে ভিড় জমাচ্ছেন। কেউ কেউ আবার ফুলের সঙ্গে দাঁড়িয়ে ছবিও তুলছেন। স্থানীয় কৃষক সাইফুল ইসলাম জানান, উপজেলা কৃষি অফিস থেকে বিনামূল্যে বীজ ও সার পেয়ে আমি জমিতে সূর্যমুখী ফুলের চাষ করেছি।

অল্প সময়ে কম পরিশ্রমে ফসল উৎপাদন ও ভালো দাম পাওয়া যায় সূর্যমুখী ফুল চাষে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে সূর্যমুখী ফুল থেকে আমি আর্থিকভাবে লাভবান হবো। বেলকুচি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কল্যাণ প্রসাদ পাল জানান, বেলকুচিতে ব্যাপক হারে সূর্যমুখী ফুলের চাষ হয়েছে। বেলকুচি উপজেলা থেকে ৩ শত কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার প্রদান করা হয়েছে। চলতি মৌসুমে কৃষকদের উদ্ধুদ্ধ করতে ৩ শত বিঘা জমিতে সূর্যমুখী চাষ করা হচ্ছে।

প্রতি বিঘা জমিতে ১ কেজি বীজ দিতে হয়। ৭ থেকে ৮ ইঞ্চি অন্তর অন্তর একটি করে বীজ বপণ করতে হয়। একটি সারি থেকে আরেকটি সারির দূরত্ব রাখতে হয়। মাত্র ১৩০থেকে ১৪০ দিনের মধ্যে বীজ বপণ থেকে শুরু করে বীজ উৎপাদন করা সম্ভব। প্রতি বিঘা জমিতে ৮ থেকে প্রায় ১০ মণ সূর্যমুখী ফুলের বীজ পাওয়া যাবে। কৃষকদের স্বাবলম্বী করতেই সূর্যমুখী ফুল চাষে উৎসাহিত করা হয়েছে। আগামীতে সূর্যমুখী ফুলের চাষ আরও বাড়বে বলে প্রত্যাশা করছি।