বাংলাদেশ পুলিশের গর্বিত সদস্য বোরহানউদ্দিনের জীবন মাহমুদ

209

মানুষ থেকেই মানুষ আসে, বিরুদ্ধতার ভিড় বাড়ায়। আমিও মানুষ, তুমিও মানুষ  তফাৎ শুধু শিরদাঁড়ায়। আমাদের সমাজে অনেক বিত্তবান রয়েছে যারা নিজেদের আখের গোছানোর কাজেই সব সময় ব্যাস্ত থাকেন।বিত্তবানরা যদি অসহায়দের পাশে থাকত তাহলে দেশের অসহায়দের সংখ্যা বিলুপ্তপ্রায় হতো। 

সমাজের এহেন পরিস্থিতির মধ্যেও বেঁচে আছে বহু মানবিক মানব। যাদের চিন্তাই থাকে কিভাবে অসাহায়দের সেবা করা যায়। এমনই একজন মানব সেবক ভোলা জেলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার টবগী ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের দফাদার বাড়ীর মোঃ শাহাবুদ্দীন মিয়ার ছেলে মোঃ জীবন মাহমুদ। যিনি পেশায় বাংলাদেশ পুলিশ সদস্য। যখন যেখানে অসহায় কারো খোঁজ পান, তখনই চেস্টা করেন কিভাবে সাহায্য করা যায়।
এই পর্যন্ত কাকে কিভাবে সাহায্য করা হয়েছে জানতে চাইলে জীবন মাহমুদ জানায়, আমি করোনার প্রথম থেকে শুরু করে প্রায় ১৫০ জনের মতো অসহায় মানুষকে ১ মাসের বাজার করে দিয়েছি। ব্লাড বিষয়ে যখন যে ব্লাড চেয়েছে নিজের সর্বোচ্চটা দিয়ে সংগ্রহ করে দিয়েছি। সর্বদা রাস্তায় থাকে এমন মানুষগুলোকে এক টানা ১ মাস রাতের খাবার দিয়েছি। যারা মানসিক রোগীদের খাবার দিয়েছি মোট ১০জন লোকের কর্ম সংস্থান করে দিয়েছি। ৩টি হুইল চেয়ার ও ৪জন অসহায়কে ৪টি ঘর করে দিয়েছি। ২৫ জন অসহায় রোগীর চিকিৎসার দ্বায়িত্ব নিয়ে পরিপূর্ণ সুস্থতা পর্যন্ত নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়েছি এবং এরই মধ্যে একজন মারা গেলে খুব কষ্ট পাই। 
পরিবার থেকে নিখোঁজ হয়ে রাস্তায় থাকা ৩জন অসহায় লোককে তাদের পরিবারের নিকট পৌঁছাই। নিজ এলাকার অসহায় মানুষের জন্য টেলিমেডিসিন সেবা, বিনামূল্যে কোরআন ও মৃত ব্যক্তির কাপনের কাপর দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেই। 
২টি মসজিদ মাদ্রাসার নির্মাণ কাজের জন্য সিমেন্ট ও ইট দেওয়া হয়। ৮ জন এতিম এর সম্পূর্ণ পড়ালেখা করার দায়িত্ব নেই। নিজ দায়িত্বে ২ জন বৃদ্ধকে প্রতি মাসে বাজার দেয়া হয়। এই শীতে ১০০ অসহায় মানুষ কে কম্বল দেওয়া হয় এবং ২৫০ জন লোক কে শীতের পোশাক কিনে দিয়েছি।
উক্ত কাজ গুলো আমার ব্যক্তিগত ভাবে করা আমার ফেসবুক আইডির মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ এবং আমার নিজের বেতনের অর্থ থেকে সেবা দেওয়া হয়। নিজ ডিউটির বাহিরেও শেরেবাংলা হাসপাতালে অসহায় রোগীদের পাশে থাকি। লঞ্চ দূর্ঘটনায় আহতদের ও পাশে ছিলাম।
এরকম অনেক উদাহরন তিনি সৃষ্টি করেছেন।এই ধরনের সাহায্য কি উদ্যেশ্যে করেন, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি একজন মানুষ আর অসাহায় মানুষকে সাহায্য করা এটা আমার বিবেক করতে বলে। তাছাড়া অসহায় মানুষের একটু সহায় হতে পারলে আমার মন থেকে খুব ভালো লাগে।
তিনি সমাজের বিত্তবানদের উদ্যেশ্যে বলেন, আমি চাই বিত্তবানরা যেন অসহায়দের পাশে সামার্থ্যনুযায়ী সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দেয়।