পূর্বধলায় সড়ক মেরামতে নেমেছেন ভ্যান চালক উজ্জ্বল

0
93
পূর্বধলায় সড়ক মেরামতে নেমেছেন ভ্যান চালক উজ্জ্বল
পূর্বধলায় সড়ক মেরামতে নেমেছেন ভ্যান চালক উজ্জ্বল
Spread the love

নেত্রকোনা প্রতিনিধি: পূর্বধলায় পাকা সড়কের পিচ ,ইট, বালু উঠে চলাচলের অনুপযোগী সড়কের মাঝে মাঝেই খানাখন্দ। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হাজার হাজার মানুষ চলাচল করে প্রতিনিয়ত। বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকা থাকলেও কর্তৃপক্ষের টনক নড়েনি। অবশেষে নিজ উদ্যোগে সড়ক মেরামত করতে নেমেছেন এ আর উজ্জ্বল বাবুর্চি নামের এক ভ্যান চালক। সে পূর্বধলা উপজেলার আগিয়া ইউনিয়নের পূর্ববুধী গ্রামের ভ্যানচালক।

সোমবার ( ৬ জুন ) সকাল থেকে তিনি একাই একটি ভ্যান গাড়ী নিয়ে সড়ক মেরামত কাজ শুরু করেছেন।কাজের ফাঁকে ফাঁকে তিনি এখনো গর্ত ভরাটের কাজ করে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে পূর্বধলা স্টেশন রোডের মধ্যে বড় বড় গর্তগুলো ইট দিয়ে ভরাট করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

ভাঙাচোরা এ সব সড়কে মানুষের দুর্দশার সীমা নেই। ভাঙ্গা সড়কের বড় বড় গর্তগুলো ভরাট করতে উপজেলা পরিষদ এবং অন্যান্য স্থান থেকে পরিত্যাক্ত সরকারি ইট,রাবিস, ভ্যান গাড়ী দিয়ে এনে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে সংস্কারের মাধ্যমে চলাচলের উপযোগী করার চেষ্টা করছেন তিনি।

ভ্যান চালক এ আর উজ্জ্বল বাবুর্চি বলেন, উপজেলার মানুষের চলাচলের সড়কের বেহাল সড়কগুলিতে বড় বড় গর্তগুলোর জন্য রিক্সা, ভ্যান, অটোরিকশা সহ অন্যান্য গাড়ী চলাচলে অসুবিধা হয়। তারপরে আবার কয়েক জায়গায় ভাঙাচোরা ও গর্ত হয়ে চলাচলের অনুপযোগী প্রায়। কিছুদিন আগে ২/১টি সড়কে কাজ করলেও অল্প সময়ে রাস্থাগুলি ভেঙে যায়। বড় বড় গর্তগুলো মেরামতের চেষ্টার মধ্য দিয়ে আপাতত যানবাহনের চলাচল স্বাভাবিক করার চেষ্টা করছেন তিনি। বেতনের কথা জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন মানুষের কষ্টের কথা চিন্তা করেই মূলত এ কাজটি করা, এতে মানুষের কাছে দোয়া কামনা করেন তিনি।

এবিষয়ে পথচারী ও সাংবাদিক মো.শফিকুল ইসলাম খান এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কিছুদিন পূর্বে ভাঙা রাস্তায় ইট-বালু দিয়ে রোলার করা হয়, পরবর্তীতে পিচ ঢালাই করে চলাচলের উপযোগী করা হয়েছে কিন্তু ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় বৃষ্টির পানি আটকে অল্প সময়ের মধ্যেই রাস্তার পিচ উঠে নষ্ট হয়ে যায়। সরকারি দপ্তর কবে মেরামত করবে সে আশায় বসে থাকলে এলাকার মানুষের কষ্ট কমবে না। কিন্তু রাস্তাগুলো মেরামত করা খুবই জরুরি। আপনার মাধ্যমে সড়কগুলি দ্রুত সংস্কারের জন্য কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।

সড়ক মেরামতস্থলে উপস্থিত অনেকেই এ শুভ উদ্যোগ এলাকার মানুষের কষ্ট কমানোর পাশাপাশি অন্য মানুষদেরও ভালো কাজে উদ্বুদ্ধ করবে বলে জানান।
পূর্বধলা উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ সাদিকুল জাহান রিদান বলেন, স্বেচ্ছাশ্রমের বিষয়টা আমার জানা ছিল না, এলজিইডি’র রাস্তাগুলো বড় ধরনের ভাঙাচোরা ছাড়া মেরামত করা যায় না। পূর্বধলা সদরের সড়কগুলির যে বেহালদশা সে ব্যাপারে অবগত আছি। রাস্তাগুলো সংস্কারের জন্য প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে, আগামী অর্থবছরের পাস হলে টেন্ডার হবে এবং কাজ শুরু হবে। সেক্ষেত্রে মেরামতের কাজ সমাপ্ত হলে জনদুর্ভোগ কেটে যাবে।