পীরগঞ্জে পুরুষ থেকে নারীতে রুপান্তর

236

পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে নিজের লিঙ্গ পরিবর্তন করে এক ছেলে থেকে মেয়ে হয়েছেন। পীরগঞ্জ উপজেলার ৫নং সৈয়দপুর ইউনিয়নের থুমনিয়া গ্রামের ২নং ওয়ার্ডে এ ঘটনাটি ঘটে। এ নিয়ে চলছে এলাকায় তোলপাড়। দল বেধে লোকজন ছুটে আসছে বিভিন্ন এলাকা থেকে তাকে এক নজর জন্য তার বাড়িতে। পরিবার ও এলাকাবাসী জানান, ১৯৯৯ সালে ২৭ জানুয়ারি থুমুনিয়া গ্রামে ছেলে হয়ে জন্ম গ্রহন করেন সুবল শীল।

গ্রামের প্রাকৃতিক পরিবেশে বড় হয়ে ওঠেন সুবল। সুবলের আচরণ ছিল মেয়েদের মতো কিশোর বয়স থেকে । শাড়ি, চুড়ি, আলতা, লিপষ্টিক পড়তে ভালো লাগতো তার। এগুলো পড়া দেখে এলাকার বন্ধুরা তাকে ‘হিজড়া’ বলে হাসাহাসি করতো । সুবল মনেমনে ভাবতো সে পুরুষ নাকি মেয়ে। এই নিয়ে সুবলের মনে যেন দুশ্চিন্তার শেষ ছিলো না । বাবা জগেশ শীল ও মা আলো রানী জানান, সুবল ছোটবেলা থেকে মেয়েদের মতো আচরণ করতো। মেয়েদের মতো সাজগোজ করতে তার ভালো লাগতো। আমরা দুইজনেই সুবলকে নিয়ে চিন্তা করছিলাম। আমরা অনেক চেষ্টা করেও তার আচরণ পরির্বতণ করতে পারিনি।

বর্তমানে আমার ছেলে সুবল এখন মেয়েতে রূপান্তরিত। চিকিৎসার মাধ্যমে নিজের লিঙ্গ পরিবর্তন করে সুবল শীল থেকে হয়েছেন মেঘা শর্মা গত বছর ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে। পুরুষ থেকে রূপান্তরিত নারী হওয়া মেঘা। মেঘা জানায় ছোট থেকেই মেয়ের সাজে সাজতো সে কারণে বাড়ির লোকজন বাধা দিতো। তখন তার মনে হতো সে ছেলে না মেয়ে। দ্বিধাদন্দ্বে ভুগতো। স্কুল—কলেজে ছাত্রদের সারিতে বসতে ইতস্ততো বোধ করতো। মনের মধ্যে সব সময় মেয়ে হওয়ার ইচ্ছা তাকে সবসময় তাড়া করতো। এক পর্যায়ে তার মধ্যে নারী সত্বার আবিভার্ব ঘটে। তাই সব কিছু ছাপিয়ে গত বছর ভারতে গিয়ে অপারেশনের মাধ্যমে রুপান্তরিত নারী হয়েছে সে। দিনাজপুর জেলার কাহারোল উপজেলার জয়নন্দ এস সি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এস.এস.সি ঢাকার রেসিডেন্সিয়াল ল্যাবরেটরী কলেজ থেকে এইচ.এস.সি পাশ করেন। ঢাকার কবি নজরুল সরকারি কলেজে রসায়ন বিভাগে তৃতীয় বর্ষে পড়াশুনা করছেন।

পড়শুনার পাশাপাশি এক কোম্পানীতে চাকরি করেন, এয়ার হোসট্রেস বা মডেল হওয়ার স্বপ্ন দেখেন মেঘা। স্থানীয় বাবলা রাণী বলেন, কিশোর বেলা থেকেই সুবলের কথা ও চলাফেরা মেয়েদের মতো ছিল। এমন স্বভাবের জন্য তাকে নিয়ে অনেকেই হাসাহাসি করতো। পরিবার অনেক চেষ্টা করেও তার এমন স্বভাব বদলাতে পারেনি। পীরগঞ্জ আজাদ স্পোটিং ক্লাবের সহ সভাপতি ও সাংস্কৃতি কর্মী আসাদুজ্জামান আসাদ মনে করেন, মেঘা শর্মার পরিচয় সে একজন মানুষ। তাকে কটাক্ষ না করে সহযেগিতা করা উচিৎ। তার সমঅধিকার নিশ্চিৎ হবে সমাজে এটাই প্রত্যাশা করি।

এ বিষয়ে ৫নং সৈয়দপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিবেকানন্দ্র রায় নিমাই বলেন, বিষয়টি আমি জানি আমার বাড়ির পার্শ্বে তার বাড়ি তাকে আমি ছোট বেলা থেকে ছেলে হিসেবে দেখেছি কিন্তু তার কথাবার্তা ও চলাফেরায় মেয়েদের মতো আচরন ছিল। সে এখন মেঘা শর্মা নামে পরিচিত। পীরগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা রেজাউল করিম জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি এবং ৫নং সৈয়দপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমাকে জানিয়েছেন, পুরুষ থেকে রূপান্তরিত মেয়ে হয়েছে একজন যার নাম মেঘা শর্মা। সে একজন দরিদ্র পরিবারের সন্তান । মেঘার শর্মার পরিবার সাহায্যের জন্য আবেদনও করেছেন। উপজেলা প্রসাশন পক্ষ থেকে যতটুকু সম্ভব সহযোগিতা করবো।