নীলফামারীতে অরক্ষিত রেলক্রসিংয়ে ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত ৪, আহত ৫

আমিরুল হক, নীলফামারী জেলা প্রতিনিধি : নীলফামারীতে ট্রেনে কাটা পড়ে উত্তরা ইপিজেডের চার নারী শ্রমিক নিহত হয়েছেন। বুধবার (২৬ জানুয়ারী) সকাল ৭টার দিকে ইজিবাইকে করে কর্মস্থলে যাওয়ার পথে জেলা সদরের দারোয়ানী এলাকায় অরক্ষিত রেলক্রসিংয়ে ওই দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ইজিবাইকের চালকসহ আরও পাঁচ শ্রমিক গুরুতর আহত হয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে উত্তরা ইপিজেডের আটজন নারী শ্রমিক ইজিবাইকে করে কর্মস্থলে যাচ্ছিলেন। ইজিবাইকটি দারোয়ানি রেলক্রসিং অতিক্রমের সময় চিলাহাটিগামী আন্তনগর সিমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে যাত্রীসহ ইজিবাইকটি দুমড়ে—মুচড়ে রেলপথ থেকে প্রায় ২০ ফিট দূরে ছিটকে যায়।

এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান সদরের সোনারায় ইউনিয়নের ধনীপাড়ার আশরাফ আলীর স্ত্রী শেফালী বেগম (৩৫)। স্থানীয়রা আহতদের দ্রুত উদ্ধার করে নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। হাসপাতালে নেওয়ার পথে কোরানীপাড়ার বেলাল হোসেনের স্ত্রী সায়রা বানু (২৬) ও ধনীপাড়ার মোশাররফ হোসেন বদির স্ত্রী রোমানা আকতারের (২৫) মৃত্যু হয়। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান ধনীপাড়ার আরমান হোসেনের স্ত্রী মিনারা আকতার।

এ দুর্ঘটনায় আহতরা হলেন, ইজিবাইকচালক আপন হোসেন (২৮), যাত্রী নাজমিন আকতার (৩০), মিনা আকতার (৩০), রওশন আরা (৩৪) ও রোমানা আকতার (২৮)। এদের সবার বাড়ি দারোয়ানী এলাকায়।

সোনারায় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম শাহ বলেন, ঘন কুয়াশার কারণে দুর্ঘটনাটি ঘটতে পারে। এই রেলপথে অরক্ষিত রেলক্রসিং থাকায় এসব যানবাহন নির্বিঘেন চলাচল করায় দুর্ঘটনার সংখ্যা বাড়ছে।

সৈয়দপুর রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রহমান বিশ্বাস জানান, অটোরিকশায় ৮ জন যাচ্ছিলেন উত্তরা ইপিজেডে। কুয়াশার কারণে বুঝতে না পারায় রেলক্রসিং অতিক্রম করার সময় ট্রেন দুর্ঘটনায় পড়েন তারা।

Exit mobile version