নারীর প্রতি নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গী সমাজকে গ্রাস করছে : মিতা রহমান

64

জাতীয় নারী আন্দোলনের সভাপতি ও বাংলাদেশ ন্যাপের সাংগঠনিক সম্পাদক মিতা রহমান বলেছেন, মানব সমাজের সামগ্রিক বিকাশ ও অগ্রগতিতে নারীরা পুরুষের সাথে সমানভাবে ক্ষেত্রবিশেষে অধিক অবদান রাখলেও নারীর প্রতি পশ্চাৎপদ ও নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গী এখনও সমাজকে গ্রাস করে রেখেছে। মানুষ হিসাবে নারীর মানবধিকার, সমমর্যাদা, সমঅধিকারের দাবি নিদারুনভাবে এখনও উপেক্ষিত হচ্ছে।

মঙ্গলবার (৮ মার্চ) নয়াপল্টনে যাদু মিয়া মিলনায়তনে “আন্তর্জাতিক নারী দিবস” উপলক্ষে জাতীয় নারী আন্দোলন আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বহুক্ষেত্রেই রাজনৈতিক ক্ষমতাও ধর্ষণ-নির্যাতনসহ নারীর প্রতি সহিংসতায় অপব্যবহার হচ্ছে। ঘরে-বাইরে নারীর প্রতি সকল বৈষম্য ও সহিংসতর অবসান, সমকাজে সমমজুরী নিশ্চিত করা সহ নারীর প্রতি সকল ধরণের বৈষম্যের অবসানে সকল মানবতাবাদী, যুক্তিবাদী, গণতান্ত্রিক, প্রগতিশীল রাজনৈতিক দল ও সামাজিক সংগঠনকে ঐক্যবদ্ধভাবে সংগ্রাম গড়ে তুলতে হবে।

তিনি আরো বলেন, আন্তর্জাতিক নারী দিবস নারীর হাজার বছরের লড়াই সংগ্রামের এক অর্জন, এ দিবসটি উদযাপনের পেছনে রয়েছে নারী শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের সংগ্রামের ইতিহাস। বিদ্যমান পুঁজিবাদী সমাজব্যবস্থা ক্রমশঃ বিকাশের ফলে ১১২তম নারী দিবসে এসেও নারীর সামগ্রিক অবস্থান তেমন কোনো পরিবর্তন হয়নি।

মিতা রহমান বলেন, পুঁজিবাদ নারীকে পণ্যে পরিণত করে তার মুনাফা অর্জনের জন্য নারী অধন্ততা, নারী নির্যাতন এবং বৈষম্যের সকল উপাদানকে টিকিয়ে রাখে, কাজেই নারীমুক্তির মূল শত্রু পুঁজিবাদকে রুখে দেয়ার মধ্য দিয়ে নারীমুক্তির লড়াইকে বেগবান করতে হবে।

তিনি বলেন, দেশে যখন গণতন্ত্র থাকে না সমাজে তখন শোষণ নিপীড়ন বাড়তেই থাকে এবং এর ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয় নারী সমাজ। যার কারণে আজকে বাংলাদেশে যে কোনো সময়ের চেয়ে নারী নির্যাতন খুন-ধর্ষণ ও শিশু হত্যা ভয়াবহ আকরে বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রতিদিনই দেশের, কোনো না কোনো প্রান্তে নারী ও শিশুরা খুন-ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। এর বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

জাতীয় নারী আন্দোলনের সভাপতি মিতা রহমানের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন তৃণমূর বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুখসানা আমিন সুরমা, নারী আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক নাজমা রহমান, সহ-সভাপতি জীবন নাহার, যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ারা বেগম, সাংগঠনিক সম্পাদক কাকলি রহমান, কেন্দ্রীয় নেত্রী কবি আইরিন আক্তার দিবা, তাহমিনা রহমান, আফরোজা আক্তার, সোনিয়া আক্তার, আবৃতি শিল্পী নাজু চৌধুরী, সালাম সাত্তার চৌধুরী প্রমুখ।