নদী পারের অপেক্ষায় কয়েক’শ পণ্যবাহী ট্রাকের দীর্ঘ সারি

80

মইনুল হক মৃধা,রাজবাড়ী প্রতিনিধি : ঈদ শেষে কর্মস্থলে ফেরা মানুষের চাপ না থাকলেও অতিরিক্ত যানবাহনের চাপ রয়েছে দৌলতদিয়া প্রান্তে। ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোয়ালন্দ ফায়ার সার্ভিস পর্যন্ত ৪ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে পণ্যবাহী ট্রাকের দীর্ঘ সারি সৃষ্টি হয়েছে। এর মধ্যে ২ কিলোমিটারে যাত্রীবাহী বাসের সিরিয়াল রয়েছে। এতে ফেরির নাগাল পেতে ট্রাক চালকদের সময় লাগছে ৮-১০ ঘন্টা ।

এ ছাড়া যাত্রীবাহী যানবাহনের যাত্রীদেরও ৪-৫ ঘন্টার সিরিয়ালে অপেক্ষা করে ফেরির নাগাল পেতে হচ্ছে। শুক্রবার (১৩ মে) দুপুর ২টার দিকে ঘাটে অবস্থান করে এ দৃশ্য দেখা যায়। এদিকে ঘাটের ওপর চাপ কমাতে ঘাট থেকে ১৪ কিলোমিটার দূরে গোয়ালন্দ মোড় এলাকায় রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কে প্রায় দুই কিলোমিটারজুড়ে পণ্যবাহী ট্রাকের দীর্ঘ সারি রয়েছে।

এদিকে সড়কের খোলা আকাশের নিচে থেকে খাবার, গোসল ও টয়লেট সমস্যায় পড়ছেন ট্রাকচালক ও সহকারীরা। সময় মতো মালামাল পরিবহন করতে না পেরে বেড়ে যাচ্ছে পরিবহন খরচের পাশাপাশি চালকদের ব্যক্তিগত খরচও। তবে ভোগান্তি কমাতে বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাট কর্তৃপক্ষ যাত্রীবাহী যানবাহন ও পচনশীল পণ্যবাহী ট্রাকগুলোকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করলেও অপচনশীল ট্রাক গুলোকে দীর্ঘক্ষণ সড়কে ফেরী পারের জন্য অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে।

কুষ্টিয়া থেকে কার্টুন বোঝাই করে আসা ঢাকাগামী  ট্রাকচালক ওবায়দুল ইসলাম বলেন, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২ টার দিকে গোয়ালন্দ মোড়ে এসে আটকা পড়ি। ভোরে ওখান থেকে ছেড়ে এসে আবারো ঘাটে এসে আটকা পড়েছি।গরমে আর ভালো লাগছেনা। সিরিয়ালে থেকে আমাদের বাজে মালের ট্রাকগুলো কম ছাড়ছে। পরিবহন ও কাঁচামালের গাড়িগুলো বেশী টানছে। মনে হচ্ছে নদী পার হতে আরো ৫-৬ ঘন্টার মতো লাগবে।

তিনি আরো বলেন, এভাবে ঘাটে থেকে খরচ বেড়ে যাচ্ছে এবং মহাজনের কাছে দেনা হয়ে যাচ্ছি। ঠিকমত গোসল-টয়লেট, খাওয়া-দাওয়াও করতে পারছি না। বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাট শাখার ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. শিহাব উদ্দিন বলেন, ঈদ শেষে অতিরিক্ত পণ্যবাহী যানবাহনের চাপে সিরিয়াল তৈরি হচ্ছে।

যাত্রীবাহী যানবাহন ও ছোট গাড়ি পারাপার চলমান রয়েছে। কয়েকশ’ পণ্যবাহী ট্রাক সিরিয়ালে রয়েছে। তবে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যাত্রীবাহী পরিবহন ও পচনশীল পন্যবাহী ট্রাক পারাপার করা হচ্ছে। বর্তমানে এ রুটে ছোট-বড় ২০টি ফেরি চলাচল করছে।