ধামইরহাটে কনকনে শীত উপেক্ষা করে বোরো রোপণে ব্যস্ত কৃষক

মো. রিফাতুল হাসান চৌধুরী সৈকত,ধামইরহাট থেকেঃ নওগাঁর ধামইরহাটে কনকনে শীত উপেক্ষা করে ইরি-বোরো মৌসুমে ধান রোপণে কোমর বেঁধে মাঠে নেমে পড়েছে কৃষক। আমন ঘরে তোলার পরে বাজারে ফসলের দাম ভালো থাকায় শীত উপেক্ষা করে কৃষক বোরো চাষাবাদ নিয়ে দেখছেন নতুন স্বপ্ন।

উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন এবং ১টি পৌরসভা মিলে চলতি মৌসুমে ইরি- বোরো ধান চাষের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে মোট ১৮হাজার ২১০ হেক্টর জমিতে।ইতিমধ্যে রোপণ কাজ সম্পূর্ণ হয়েছে প্রায় ৭হাজার হেক্টর জমিতে। বরেন্দ্র অঞ্চলে ফসলি মাটি অনেকটা উর্বর হওয়ায় একদিকে শৈত প্রবাহ ও ঘন কুয়াশা থাকার পরেও চাষীদের দমাতে পারে না।

উপজেলার প্রতিটি ফসলি মাঠে সকাল থেকে সন্ধা অবদি পুরোদমে চলছে ধানের চারা রোপণ কাজ। চলতি মৌসুমে উপজেলায় জিরা, কাটারী, ব্রি-ধান ৮১, ৮৮,৮৯, ৯২সহ নানান জাতের ধানের চারা রোপণ করা হচ্ছে। উপজেলার কয়েকজন কৃষকদের সহিত কথা বলে জানা গেছে,চলতি মৌসুমে বাজারে ডিজেল তেল এর দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় জমি প্রস্তুতকরণসহ বাজারে কীটনাশক ঔষুধের দাম বৃদ্ধিতে বিঘা প্রতি প্রায় দেড় হাজার টাকা খরচ বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন কৃষকরা। এত খরচ দিয়ে বোরো চাষাবাদ করে সঠিক সময়ে ফসলের কাঙ্খিত বাজার মূল্য নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন কৃষকরা।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো.আসাদুজ্জামান জানান, উপজেলা কৃষি অফিসের উদ্যোগে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তারা প্রতিটি কৃষি বুকে দিনে দুইটি কৃষক মিটিং এর মাধ্যমে জমিতে লাইন-লোগো, প্রাচিং এবং সঠিক বয়সের চারা সঠিক নিয়মে রোপণ করার জন্য পরামর্শ প্রদান করেছেন। চলতি মৌসুমে ২০২১-২২ অর্থবছরে কৃষকদের মাঝে কৃষি প্রণোদনার আওতায় ৬হাজার কৃষকদের বোরো ধানের প্রণোদনা প্রদান করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

Exit mobile version