দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এখন ফাঁকা ময়দান, গাড়ির জন্য ফেরির অপেক্ষা

59

মইনুল হক মৃধা, রাজবাড়ী থেকে : দেশের ব্যস্ততম দৌলতদিয়া ঘাট এখন ফাঁকা। সড়কে নেই কোন যানবাহনের সিরিয়াল। যাত্রী ও যানবাহনের চালকরা অপেক্ষায় না থেকে মুহূর্তের মধ্যে পেয়ে পাচ্ছেন ফেরির নাগাল। আগে যেখানে প্রতিনিয়ত এ ঘাটে যানবাহনের সিরিয়াল থাকত। ঢাকা-খুলনা মহাসড়কেও কয়েক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যানবাহনের লম্বা সিরিয়াল লেগে থাকত। ফেরির নাগাল পেতে অপেক্ষা করতে হতো দিনের পর দিন ঘণ্টার পর ঘণ্টা। অথচ সেই ঘাট এখন অনেকটাই ফাঁকা। পদ্মা সেতু চালুর পর থেকে দৌলতদিয়া ঘাটে যানবাহনের কোন সিরিয়াল তো দূরের কথা, যানবাহনের জটই চোখে পড়ে না।

রবিবার (৪ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টা থেকে বেলা ১১ টা পর্যন্ত ঘাটে অবস্থান করে দেখা যায়, ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক ও দৌলতদিয়া ফেরিঘাট  ফাঁকা। কাউন্টারের সামনে নেই কোনো দালালদের তৎপরতা। গাড়ির চালক বা সহকারীরা স্বচ্ছান্দে ফেরির টিকিট কেটে ফেরিতে উঠছে। অধিকাংশ ঘাট গুলোতেই যানবাহনের জন্য ফেরিগুলো অপেক্ষা করছে।

বেলা ১১ টার দিকে দৌলতদিয়া  ৫ নম্বর ঘাটে রো রো (বড়) ফেরি শাহ্ জালাল ভেড়ানো রয়েছে। ফেরিটি ৫টি মোটরসাইকেল নিয়ে অন্য গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছে।

ঢাকা থেকে আসা কুষ্টিয়াগামী মাইক্রোবাস চালক ইনামুর রহমান বলেন, ঢাকা মিরপুর সকাল ৯টার দিকে যাত্রী নিয়ে রওনা হয়েছি।দেড় ঘন্টর মধ্যে পাটুরিয়া ঘাটে এসে সরাসরি ফেরিতে উঠতে পেরেছি। কিন্তু ফেরিতে গাড়ি কম থাকায় আধাঘন্টা ধরে পাটুরিয়া ঘাটে অপেক্ষা করে তারপর পর এসেছি। পদ্মা সেতু চালুর পর ঘাট এমন ফাঁকা হয়ে যাবে কখনো ভাবতেও পারিনি।

৫নং ফেরিঘাটের চা দোকানি জিলাল বলেন, এখন গাড়ি নেই বললেই চলে। দুপুরের পর কিছু পণ্যবাহী ট্রাক গাড়ি আসে। এর আগে কখনই এ রকম দেখা যায়নি। সারা দিন গাড়ির চাপ না থাকায় আমাদেরও বেচাকেনা নেই। আগে প্রতিনিয়তি ঘাট এলাকাসহ মহাসড়ক ব্যস্ত ছিল। তবে পদ্মা সেতু চালুর পর ঘাটে যানবাহনের চাপ প্রায় অর্ধেকে নেমে আসে। এর ওপর আবার জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি, দুই দফায় ফেরির ভাড়া বৃদ্ধির কারণে যানবাহনের সংখ্যা আরও কমে গেছে। আমরা এখন পরিবার নিয়ে দুশ্চিন্তার পড়ে গেছি।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. সালাহউদ্দিন বলেন, আগে ২৪ ঘণ্টায় শুধু দৌলতদিয়া প্রান্ত থেকে চার হাজার থেকে সাড়ে চার হাজার যানবাহন নদী পাড়ি দিত। এখন গড়ে দুই থেকে আড়াই হাজারের মতো গাড়ি পার হয়। বর্তমানে এ নৌপথে ছোট-বড় ১৬টি ফেরি চলাচল করছে। এরমধ্যে  ছোট-বড় ১০টি ফেরি চলাচল করছে। যানবাহন কম থাকায় ৬টি ফেরি বসিয়ে রাখা হয়েছে।