টেকনাফে খোলাবাজারে চাল ক্রেতাদের সরকারী স্বাস্থ্যবিধি মানাতে পরামর্শ

81

টেকনাফ পৌরসভায়ও অতি দরিদ্রদের মাঝে খোলাবাজারে ওএমএস এর চাল বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়ে চলমান রয়েছে। সকাল থেকে টেকনাফ পৌরসভার ৪টি কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, তদারকির দায়িত্বে নিয়োজিত ট্যাগ অফিসারদের উপস্থিতিতে ডিলারদের মাধ্যমে এ কার্যক্রম চলছে।

পুরান পল্লান পাড়া কেন্দ্রের ডিলার মোস্তাক আহমেদ বলেন, মাস্ক পড়িয়ে ও দুরত্ব বজায় রেখে আমরা চাল বিতরণ করে যাচ্ছি। টেকনাফ উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি অফিসার ও ট্যাগ অফিসার মোঃ শফিউল আলম বলেন, সুশৃঙ্খলভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে উপকারভোগীদের আইডি কার্ডের মাধ্যমে চাল বিতরণ করা হচ্ছে। এছাড়া প্রতিদিন আমি আমার দায়িত্বে থাকা চাল বিতরণ কেন্দ্র তদারকি করি।

প্রত্যেকে আইডি কার্ড দেখিয়ে প্রতি কেজি ৩০ টাকা করে ৫ কেজি করে চাল পাবে। সাপ্তাহিক শুক্রুবার ছাড়া দৈনিক সকাল ৯ টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত এ চাল বিতরণ করা হবে। পাশাপাশি আমি স্বাস্থ্যবিধি মানাতে নিয়মিত পরামর্শও দিয়ে যাচ্ছি। এদিকে চাল বিতরণের সকল কেন্দ্রে পরিদর্শনে যান, টেকনাফ খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিদুৎ চৌধুরী। তিনি ডিলার ও উপকারভোগীদের উদ্দেশ্যে বলেন, করোনা ভাইরাস দিনদিন বেড়ে চলছে।

তাই আপনারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, মাস্ক পড়ুন। আপনাদের কারণে বাড়ীর অন্য সদস্যদের যাতে সমস্যাতে পড়তে না হয় আপনারা সেদিকে অবশ্যই খেয়াল রাখবেন। এদিকে সারা বাংলাদেশের মত সীমান্ত উপজেলা টেকনাফেও স্বল্প টাকায় অসহায়দের জন্য খোলাবাজারে চালের ব্যবস্থা করায় অসহায় উপকারভোগীগণ, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানিয়ে আল্লাহ তাআলার কাছে দু’হাত তুলে দোয়া কামনা করেছেন।