চোখে ওমিক্রনের যে ধরনের লক্ষণ দেখা দিচ্ছে

73

বিশ্বব্যাপী ক্রমবর্ধমান ওমিক্রনে সংক্রমিত ব্যক্তিদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার রিপোর্টের মাধ্যমে বিশেষজ্ঞরা ও গবেষকরা লক্ষ্য করেন, করোনা মহামারির আগের রূপগুলোর তুলনায় বর্তমান লক্ষণগুলোর একেবারেই নতুন। প্রথাগত ৩টি কোভিড লক্ষণ- কাশি, জ্বর ও স্বাদ-গন্ধের পরিবর্তন ছাড়াও ওমিক্রনের আরও উল্লেখযোগ্য লক্ষণ দেখা দিচ্ছে আক্রান্তদের শরীরে।

সাম্প্রতিক গবেষণায় এসেছে, ওমিক্রনের বিভিন্ন লক্ষণগুলোর মধ্যে বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য এক গুরুতর উপসর্গ দেখা যাচ্ছে চোখে। অনেকেই এ বিষয়টিকে সাধারণ চোখের সমস্যা বলে  মনে করলেও তা হতে পারে ওমিক্রনের গুরুতর এক লক্ষণ।

বিএমজে ওপেন অপথালমোলজি জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণায় জানা যায়, কোভিডের লক্ষণগুলো চোখকেও প্রভাবিত করছে। ফলে চোখে দেখা দিতে পারে নানা রকম সমস্যা।

গবেষকরা কোভিড-পজিটিভ রোগীদের কাছ থেকে নিজ-প্রতিবেদিত ডেটা পেতে এক্ষেত্রে কাঠামোগত প্রশ্নাবলী ব্যবহার করেছেন। চোখ-সম্পর্কিত লক্ষণগুলোর ফ্রিকোয়েন্সি এবং সময়কাল সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করে, গবেষণা দল আক্রান্তদের নিকট থেকে চোখের সবচেয়ে সাধারণ কোভিড লক্ষণগুলো পেয়েছে।

চোখে যে লক্ষণ দেখা দিচ্ছে

গবেষকরা দেখেন, আক্রান্তদের চোখের সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণগুলো যথাক্রমে ফটোফোবিয়া, চোখে ব্যথা, ঘা ও চুলকানি। ফটোফোবিয়ায় বেশিরভাগ অংশগ্রহণকারীই এভাবে ভোগেন বলে জানা যায়। এছাড়া আলোর প্রতি সংবেদনশীলতাসহ চোখের ব্যথা হলো  প্রধান ওমিক্রনের লক্ষণ। এবং বাকি লক্ষণের মধ্যে আছে ঝাপসা দৃষ্টি, লালচে ও রক্তাক্ত চোখ।

সমীক্ষায় পাওয়া যায়, পুরুষ আর নারীদের ক্ষেত্রে করোনার উপসর্গে কোনো পার্থক্য নেই। প্রায় ৮১ শতাংশ অংশগ্রহণকারী  এ বিষয়ে জানান যে, তারা অন্যান্য লক্ষণগুলোর সাথে ২ সপ্তাহের মধ্যে চোখের লক্ষণগুলোও অনুভব করেছেন। অন্যদিকে ৮০ শতাংশ অধ্যয়ন অংশগ্রহণকারীরা জানান, তাদের চোখের সমস্যা ২ সপ্তাহেরও কম সময় ধরে স্থায়ী হয়েছিল।

কানাডিয়ান জার্নাল অব অফথালমোলজিতে প্রকাশিত এক সমীক্ষায় জানা যায়, কনজেক্টিভাইটিস বা গোলাপি চোখকে কোভিডের অন্যতম উপসর্গ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। কনজাংটিভাইটিস বলতে কনজাংটিভার প্রদাহকে বোঝায় এবং যা চোখের পাতার ভেতরের দিকে একটি পাতলা ঝিল্লি থাকে।

তাছাড়া চোখ ছাড়াও করোনার বিভিন্ন উপসর্গে ভোগেন আক্রান্তরা। যেমন- * শরীরের ব্যাথা * মাথাব্যথা * গলা ব্যথা

* নাক বন্ধ বা সর্দি * ক্ষুধামান্দ্য * ডায়রিয়া * উচ্চ তাপমাত্রা * ক্রমাগত কাশি * স্বাদ ও গন্ধ হারানো ইত্যাদি।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া