গলাচিপায় কেন্দ্রীয় সার্বজনীন কালি মন্দিরে ৫৬ প্রহর ব্যাপী মহানাম সংকীর্ত্তন

68
গলাচিপায় কেন্দ্রীয় সার্বজনীন কালি মন্দিরে ৫৬ প্রহর ব্যাপী মহানাম সংকীর্ত্তন
গলাচিপায় কেন্দ্রীয় সার্বজনীন কালি মন্দিরে ৫৬ প্রহর ব্যাপী মহানাম সংকীর্ত্তন

খালিদ হোসেন মিলটন, গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: জগৎ জীবন সংসার সর্ব গ্রাসী অধর্মের করালে নিস্পেষিত। সনাতন ধর্মের অমৃত কথা বিস্মৃত হয়ে অনাচার ও

কুসংস্কারের আর্বতে, মানবকূল আজ অনিশ্বিত অন্ধকারের আছন্ন। মানবকূলের পতন প্রবণ ও মানবতা উত্তরণে-প্রেমের মহিমায় দূত হয়ে আবির্ভূত মহাবতারী শ্রী শ্রী ভগবান কৃষ্ণ, শ্বাশত বিশ্ব শান্তির মহামন্ত্র “ হরে কৃষ্ণ হরে কৃষ্ণ কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে হরে রাম হরে রাম রাম রাম হরে হরে” এই বাণী চিরন্তন পূজনীয়। সেই মহা কৃষ্ণ নামের পূর্নতা

পাওয়ার আশায়, গলাচিপা কেন্দ্রীয় কালী মন্দির কমিটির আয়োজনে প্রতি বছরের ন্যায় ৫ মে /২২ তারিখ থেকে ১১ মে ৭দিন ব্যাপী দিবারাত্রী শ্রী শ্রী তারকব্রহ্ম মহানাম যজ্ঞানুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বিভিন্ন জেলা থেকে ৯টি দল মন্দিরে অবিরাম মনোমুগ্ধ সুরে নাম কীর্ত্তন পরিবেশন করে চলছে। মন্দির কমিটির সভাপতি বাবু দিলীপ বনিক ও

সাধারণ সম্পাদক বাবু তাপত দত্ত, প্রেস ক্লাব সভাপতি ও সাংবাদিক খালিদ হোসেন মিলটনকে জানায় কীর্ত্তনের পূর্ব থেকে শ্রী মদ্ভাগবত পাঠ শীতলা মাতার পূজা, শ্রী কালি মাতার পূজা মহানাম যজ্ঞের অধিবাস ও মঙ্গল ঘট স্থাপনসহ হাজার হাজার সনাতন ধর্মালম্বী ভক্ত নারী পুরুষদের প্রসাদসহ খাবার পরিবেশনার আয়োজন রয়েছে। এছাড়া

বিভিন্ন ঐ কীর্ত্তন অনুষ্ঠানে ব্যক্তিগত তহবিল থেকে প্রসাদসহ খাবার পরিবেশন করে চলছে। কীর্ত্তন অনুষ্ঠানে সার্বিক সহযোগিতার জন্য প্রশাসন, পুলিশ ও মন্দির কমিটি ব্যবস্থা নিয়েছে। প্রতিদিন কালি বাড়ি ধর্মশালায় শত শত নারী পুরুষ ও বৃদ্ধরা হাজির হচ্ছে ভগবানের সানিধ্য পাবার।