অযত্ন-অবহেলায় অরক্ষিত কেন্দুয়া শহীদ মিনার 

68

মোঃ আশরাফুল হক গোলাপ কেন্দুয়া (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি : অযত্ন-অবহেলায় প্রায় সারা বছরই অরক্ষিত থাকে কেন্দুয়া কেন্দ্রীয়  শহীদ মিনার। 

নেত্রকোনার কেন্দুয়ায় কেন্দ্রীয়  শহীদ মিনারটি ঠিকমতো রক্ষণাবেক্ষণ না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কেন্দুয়ার   সাধারণ মানুষ। পাশাপাশি শহীদ মিনানের যথাযথ মর্যাদা, পবিত্রতা ও ভাবগাম্ভীর্য রক্ষার বিষয়টি হানি হচ্ছে বলেও তাদের অভিযোগ। তবে সারা বছর ঐতিহ্যবাহী এ শহীদ মিনার বেহাল থাকলেও ২১ ফেব্রুয়ারিতে ৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে নিহত শহীদদের স্মরণে ফুল দেয়ার উদ্দেশ্যে কিছুটা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়। তবে কিছুদিন পর থেকেই আবার বেহাল হয়ে পড়ে এ শহীদ মিনার। এ বিষয়ে প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট মহলের কাছে কেন্দুয়ার মুক্তিযোদ্ধা ও সচেতন মহলের একটিই দাবি, তারা যেন শহীদ মিনারের মর্যাদা ও পবিত্রতা রক্ষায় জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। 

জানা যায়,গেইট না থাকার কারণে দিনের বেলা অনেকে জুতা-সেন্ডেল পরেই শহীদ মিনারের বেদিতে ঘোরাফেরা করে। তাছাড়া মূল বেদিতে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে থাকে নোংরা ময়লা-আবর্জনা, সিগারেটের প্যাকেটসহ অসংখ্য উচ্ছিষ্ট অংশ।   অথচ  এ শহীদ মিনারে প্রতি বছর ভাষা শহীদদের ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনসহ সর্বস্তরের মানুষ। আন্দোলন করতে গিয়ে যারা শহীদ হয়েছেন তাদের স্মরণেই এ শহীদ মিনার। যদি এর যথাযথ মর্যাদা রক্ষা না হয় তাহলে এ দেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদ ও ভাষা আন্দোলনের শহীদদের অপমান করা হয়। 

কেন্দুয়া উপজেলার চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব নুরুল ইসলাম বলেন, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ, ঊনসত্তরের গণআন্দোলনসহ দেশে যত আন্দোলন হয়েছে তার সব আন্দোলনের সূচনা হল ভাষা আন্দোলন। তবে শহীদদের স্মরণে নির্মিত শহীদ মিনারের আসল মর্যাদাই নতুন প্রজন্মসহ আমরা আজ ভুলতে বসেছি।  তিনি বলেন আরো বলেন শহীদ মিনারের বর্তমান অবস্থা খুবই নাজুক এবং শ্রীঘ্রই যথাযোগ্য মর্যাদায় তা সংরক্ষণ করা হবে।