Logo
মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল, ২০১৯ | ১০ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সানস্ট্রোক থেকে রক্ষা পেতে যা করবেন

প্রকাশের সময়: ৪:১৮ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার | এপ্রিল ৯, ২০১৯

তৃতীয় মাত্রা :

এপ্রিল মাস থেকেই গরমের প্রভাব টের পাওয়া যায়। যদিও কয়েক দিন ধরে ঝড় বাদলের কারণে গরম কিছুটা কম লাগছে। কিন্তু সামনেই আসছে গ্রীষ্মের তীব্র গরম। এই সময়ে সানস্ট্রোক হয় অনেকেরই। ছাতা বা ওড়নায় মাথা ঢেকে রাখলেও কড়া রোদ থেকে সব সময়ে বাঁচা যায় না। কিছু ক্ষেত্রে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। চিকিৎসকদের মতে, হিটস্ট্রোক ঠেকাতে সচেতনতার বিশেষ প্রয়োজন।

রোদে বেরিয়ে যদি দেখেন শরীরের তাপমাত্রা হঠাৎ অনেকটা বেড়ে গিয়েছে, তা হলে সর্তক থাকুন। সঙ্গে সঙ্গে ছায়ায় যান। এটাই কিন্তু সানস্ট্রোকের প্রাথমিক লক্ষণ। যদি দেখেন কাঠফাটা রোদে হঠাৎ মাথা ঘুরছে, তা হলে সাবধান হওয়া ভাল। অনেকেরই বমি হয়, তা হলে সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসকের পরার্মশ নিন। যদি কখনও মনে হয়, দেহের পেশি অবশ হয়ে যাচ্ছে অথবা শক্তি হারিয়ে ফেলছেন, তা হলে সাবধান থাকুন।

সাধারণত সানস্ট্রোক হলে প্রচণ্ড পরিমানে ঘাম হয়। আবার অনেকের উল্টো নিয়মে ঘাম না-ও হতে পারে। সানস্ট্রোক হলে অনেক সময়ে ত্বক লাল হয়ে যায়। যদিও সেটা সাময়িক। এছাড়াও চামড়ায় টান ধরে। তাই এমন লক্ষণ দেখলেও সাবধান হোন। রোদে বেরিয়ে হঠাৎ করে যদি দেখেন খুব দ্রুত হৃদস্পন্দন চলছে, তা হলে বুঝবেন আপনি সানস্ট্রোকের শিকার হতে পারেন। হঠাৎ করে চোখের সামনে সব আবছা দেখলে বা অন্ধকার দেখলে সাবধান হয়ে যান। অনেকে রোদে চোখ ধাঁধিয়ে গিয়েছে ভেবে ভুল করেন। তাই সতর্ক থাকুন।

চিকিৎসকদের মতে, গরমে এই সমস্যা হয়েই থাকে। উচ্চ রক্তচাপ যাদের, তাদের বিশেষে করে রোদ এড়িয়ে চলা উচিত। এছাড়া হালকা রঙের ঢিলে পোশাক পড়ুন। পানির বোতল, ছাতা ও সানগ্লাস সঙ্গে অবশ্যই রাখুন। যতখানি সম্ভব হালকা ও তেল-মসলা ছাড়া খাবার খান। এমন খাবার খান যাতে হাইড্রেটেড থাকেন।

Read previous post:
রাঙামাটিতে বৈসাবি উৎসব

তৃতীয় মাত্রা : পাহাড়ে বৈসাবি মানে উৎসব, আনন্দ উল্লাস। বছর ঘুড়ে বৈসাবি আসলে নানা আচার-অনুষ্ঠানে মেতে থাকে পার্বত্যাঞ্চলের ১০ ভাষাভাষি...

Close

উপরে