Logo
সোমবার, ২৭ মে, ২০১৯ | ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দশ বছরেও পাকিস্তান ঘরে ফিরাতে পারেনি ক্রিকেট

প্রকাশের সময়: ২:১৯ অপরাহ্ণ - রবিবার | মার্চ ৩, ২০১৯

তৃতীয় মাত্রা :

২০০৯ সালে ৩ মার্চ লাহোরে শ্রীলংকা দল বহনকারী বাসে হামলায় হামলার দশ বছর পূর্ণ হলো। কিন্তু এ হামলার পর শর্ত সাপেক্ষে দুই একটি ক্রিকেট দল পাকিস্তান সফর করলেও পূর্নাঙ্গভাবে ফেরেনি ক্রিকেট। পাকিস্তানের একটি বেখেয়ালিপনার জন্য দেশটির ক্রিকেট প্রেমীরা যেমন স্টেডিয়ামে বসে সরাসরি ম্যাচ দেখা থেকে বঞ্চিত তেমনি ঘরের মাটিতে খেলার সুযোগ হাতছাড়া হচ্ছে দেশটির ক্রিকেটারদের।২০০৯ সালে পাকিস্তানে খেলতে যায় শ্রীলঙ্কা ক্রিকটে দল। লাহোরে হোটেল থেকে গাদাফি স্টেডিয়ামে ম্যাচের জন্য কয়েকটি বাসে করে রওয়ানা হয় সফরকারী শ্রীলঙ্কান দল এবং ম্যাচ পরিচালনার জন্য বিদেশ থেকে লোকজন। এসময় ১২ জন বন্দুকধারী ঐ ক্রিকেট কনভয়ের জন্য ওঁত পেতে ছিলো। গাদাফি ক্রিকেট স্টেডিয়ামের কাছে মোড়ে গাড়িগুলো পৌঁছুনোর সাথে সাথে গুলি করে জঙ্গিররা।

এর ঘটনার পর দেশে পাকিস্তানে দিকে মুখ ফিরিয়ে নেয় টেস্ট খেলুড়ে দেশগুলো। তবে গত বছর লাহরো সফল ভাবে পাকিস্তান-আইসিসি বেস্ট ইলেভেনের খেলা অনুষ্ঠিত হয়। পরে ২০১৮ সালে পাকিস্তানে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। ২০১৫ সালে জিম্বাবুয়ে দল লাহোরে পাঁচটি ম্যাচ খেলে। গেল বছর এপ্রিলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে পাকিস্তান টি-টোয়েন্টির তিন ম্যাচ সিরিজ খেলে করাচিতে।

তবে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডে (পিসিবি) চেয়ারম্যান হিসেবে এহসান মানি যোগদান করার পর থেকেই দেশের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরাতে বিভিন্ন দেশে ধরনা দিচ্ছেন। কিন্তু ১০ বছর আগের সেই ক্ষত যখন শুকিয়ে যাচ্ছিলো, তখনই চলতি বছর বড় ধাক্কা খায় পাকিস্তান।

পাকিস্তানের মাটিতে এ বছরের মার্চে অস্ট্রেলিয়ার ৫টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলার কথা ছিল। কিন্তু নিরাপত্তার অজুহাতে অস্ট্রেলিয়ার সফর বাতিল করে। ফলে পিসিবি দক্ষিণ আফ্রিকাকে পাকিস্তানের মাটিতে যে সিরিজ খেলার জন্য রাজি করিয়েছিল, সেটাও হয়তো ঝুঁলে গেছে।

 

যেহেতু আপাতত পাকিস্তানে গিয়ে কোন দল ম্যাচ খেলতে রাজি হচ্ছে না, তাই পিসিবি সিদ্ধান্ত নেয় পাকিস্তান সুপার লিগের (পিসিএল) ফাইনালসহ ৮টি ম্যাচ পাকিস্তানে আয়োজন করার। তবে দুই তিন নামীদামি বিদেশি ক্রিকেটার ছাড়া এ ‍টুর্নামেন্টে তেমন কোন বিদেশি ক্রিকেটারদের খেলতে দেখা যায়নি।

ফলে বুঝাই যাচ্ছে, পাকিস্তানে খুব শ্রীঘ্রই ক্রিকেট ফিরছে না। আর জন্য দেশটির ক্রিকেট বোর্ড ও সরকারের অনেক গাফলতি কেই দায়ি করছেন ক্রিকেট বিশ্লেষকরা।

পাকিস্তানে সেই হামলার ঘটনা এখনও ভুলতে পারেননি তৎকালীন শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটার জয়াবর্ধনে। ‘‘মাঝেমধ্যেই ওই হামলার স্মৃতি তাড়িয়ে নিয়ে বেড়ায় তাকে। শুরুতে, কেউ একজন বলছিলেন, কেউ পটকা ফোটাচ্ছে। তখনই একজন চিৎকার করে ওঠেন-না, তারা আমাদের লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ছে’’

Read previous post:
লুকিয়ে লুকিয়ে ফুটবল খেলতেন মনিকা

তৃতীয় মাত্রা : মেয়ে হয়ে খেলবে ফুটবল? ফুটবল তো ছেলেদের খেলা। হয়তো এমনটা ধারণা পোষন করেছিলো মনিকার বাবা মা। তাই...

Close

উপরে