Logo
শনিবার, ১১ জুলাই, ২০২০ | ২৭শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে স্থানীয়দের সংঘর্ষে আহত ২২, অন্তত ১৫টি প্রতিষ্ঠান ভাংচুর

প্রকাশের সময়: ৭:৩১ অপরাহ্ণ - শনিবার | মে ২৭, ২০১৭

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়র ছাত্রদের সাথে স্থানীয়দের সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটেছে। শুক্রবার রাতে বরিশালের কর্নকাঠিস্থ বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের ২২জন আহত হয়েছে। সংঘর্ষের সময়ে ছাত্ররা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে।   পরে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ও পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। হামালার ঘটনা দিয়ে ছাত্র ও স্থানীয়দের পরপরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে।

হামলায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ছাত্র সিফাত আহম্মেদ, মার্কেটিং বিভাগের ছাত্র সবুজ আহম্মেদ, সাকিব, ফাইন্যান্স বিভাগের রিফাত, আইন বিভাগের রানা, নাইম আহম্মেদ মিষ্টু, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র আবিদুর রহমান, মিরাজ হোসেনকে শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। বাকীদের প্রথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। মুদী, খাবারের দোকান, চায়ের দোকান, ঔষুধের দোকানে অন্তত ১৫টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ ব্যাপারে কোন পক্ষই থানায় অভিযোগ দায়ের করেনি।

প্রতক্ষদর্শী ও  পুলিশ সূত্র জানায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান তৃতীয় বর্ষের ছাত্র মো. আল আমিনসহ তার কয়েক সহপাঠী মিলে শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে একটি দোকনে ধুমপান করছিলো। ওই সময়ে সেখানে স্থানীয় কয়েকজন গণ্যমান্য ব্যাক্তি বসে চা পান করছিলো। তারা ছাত্রদের অন্যত্রয় গিয়ে ধুমপান করতে অনুরোধ করে। এ নিয়ে  তাদের সাথে ছাত্রদের প্রথমে বাকবিণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে জয় নামের স্থানীয় এক যুবকের সাথে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ খবর বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যম্পাসে পৌঁছালে হলের ছাত্ররা দল বেধে লাঠিশোটা হাতে নিয়ে এসে স্থানীয়দের উপর হামলা চায়। স্থানীয়রা জোট বেঁধে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের ধাওয়া করে। প্রায় দুইঘন্টা ব্যাপী ধাওয়া পাল্টা দাওয়ায় উভয় পক্ষে ২২জন আহত হয়েছে।

আহত বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মো. আল আমিন বলেন, এলাকার বখাটেরা দীর্ঘদিন যাবৎ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের উত্যক্ত করে আসছিল। এছাড়া ক্যাম্পাসে মাদক বিক্রি ও সেবন করত তারা।   নিয়ে ছাত্রদের সাথে বখাদের দীর্ঘ দিন ধরে দ্বন্দ চলে আসছিলো। তার ধারাবাহিকতায় শুক্রবার রাতে আমিসহ আমার ১০/১২ জন বন্ধু ভার্সিটির সামনে একটি দোকনে আড্ডা দিচ্ছিলাম। এসময় স্থানীয় বখাটে জয়, বাপ্পি ও আশিক আমাদের দোকান থেকে চলে যেতে বলে। তবে আমরা যেতে অপরাগতা প্রকাশ করলে ২৫/৩০ জন সহযোগী সাথে মিলে ধারালো অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে আমাদের উপর হামলা চালায়। পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে অস্ত্র নিয়ে শোডাউন দিলে বিক্ষুদ্ধ ছাত্ররা এর প্রতিবাদ করে।

ছাত্র রাজীব বলেন, স্থানীয় বখাটে জয়সহ বেশ কয়েকজন ক্যাম্পাসে মাদক সেবন করে আসছিল। বিষয়টি আমরা কতৃপক্ষকে আগেও জানিয়েও কোন সুরাহা হয়নি। এর আগেও এদের সাথে বাকবিতণ্ডা হয়েছিল।

স্থানীয় মুদি দোকানী সেলিম জানান, স্থানীয় সামাজিক ব্যক্তিত্ত্ব সুরুজ মোল্লার সামনে বসে বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন ছাত্র ধূমপান করছিল। বিষয়টি এই এলাকার বাসিন্দা জয় দেখে তাদের অন্যস্থানে গিয়ে ধূমপান করতে বলায় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে জয়ের উপর চড়াও হয়। এ সময়ে জয়ের পক্ষ নিয়ে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিরা এর প্রতিবাদ জানালে তাদের সাথে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে শিক্ষার্থীরা হঠাৎ করে আমাদের উপর হামলা চালায়। এমনকি তারা বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাঙ্গচুর লুটপাট করে। ওই ঘটনায় স্থানীয় ১০ জন আহত হয়েছে। তাদের প্রথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয় ব্যবসায়ী মহসিন মোল্লা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা আমাদের দোকান ভাংচুরের সময় একটি কালো রঙের ব্যাগ নিয়ে প্রবেশ করে দোকানগুলো থেকে নগদ টাকা, মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। জমি বিক্রি করা দেড়লাখ টাকা ক্যাশ বক্সে রাখা ছিল। তার ভেঙ্গে সব টাকা নিয়ে গেছে ছাত্ররা।

আমিনুল ইসলাম সবুজ হাওলাদার নামে এক মুদি দোকানীর অভিযোগ, তার দোকান ভাঙচুর করে লুট করা হয় দশ হাজার টাকা। তিনি জানান, তার দোকানের সামনের সৈয়দ মেডিক্যাল হল ও মোল্লা মেডিক্যাল হল ভাংচুর করে সেখান থেকে লুট করেছে। ছাত্ররা কম পক্ষে অর্ধশত ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও ঘরবাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারি পুলিশ কমিশনার মো. নাসির উদ্দিন বলেন, তুচ্ছ বিষয় নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ও স্থানীয়দের সাথে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। ওই ঘটনায় ছাত্ররা অন্তত ১৫টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাংচুর করেছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। যদি কোন পক্ষ মামলা দিতে চায় তাহলে দ্রুতই মামলা গ্রহণ করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এছাড়া পরিস্থিতি শান্ত রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা রয়েছে।

Read previous post:
লক্ষ্মীপুরে সাংবাদিকদের সাথে জেলা প্রশাসকের মতবিনিময়

তৃতীয় মাত্রাঃ লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: সব ধরনের সমস্যা সমাধানে জেলাবাসীকে সাথে নিয়ে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন  লক্ষ্মীপুরের নবাগত জেলা প্রশাসক...

Close

উপরে