Logo
মঙ্গলবার, ০২ মার্চ, ২০২১ | ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কুকুর নয় বরং সামি হতে সাবধান!

প্রকাশের সময়: ১০:২৮ অপরাহ্ণ - বৃহস্পতিবার | ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২১

তৃতীয় মাত্রা

আল জাজিরার ‘অল দ্যা প্রাইমিনিস্টারস মেন’ শিরোনামের প্রতিবেদনটি নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই, এটা এখন টক অব দ্যা কান্ট্রি। দাবার চাল পড়েছে প্রতিপক্ষের সেনাপতিকে আক্রমণের মাধ্যমে, চেলেছেন তারেক। বার্গম্যানের সাথে নতুন ঘুটি হিসেবে সামি ও তাসনিম খলিলকে পেয়েছেন তারেক -অভিমত কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞদের। যদিও প্রতিবেদনটি কোন অনুসন্ধানি প্রতিবেদনের পর্যায়ে পড়ে না -বলছেন দেশের অভিজ্ঞ ও সিনিয়র সাংবাদিকগণ। তবে প্রতিবেদনটির অন্যতম চরিত্র জুলকারনাইন সায়ের খান ওরফে সামি কে নিয়ে ব্যপক তোড়জোড় চলছে, চলছে উৎকণ্ঠা। কাউকে দাওয়াত করে তার সাধারণ আলাপচারিতা কিংবা হস্যরসমূলক কথাবার্তা গোপনে ধারণ করে ‘তিলকে তাল’ করার মতো সেটি ‘স্টোরি কাভারেজ বেসিস’ ষড়যন্ত্রকারী ও তথাকথিত গণমাধ্যমে ছেড়ে দেয়ার জন্যই সামিকে নিয়ে এতো কথা।রীতিমতো ব্ল্যাকমেইলার হিসেবেই তাকে গণ্য করছে রাজনৈতিক মহলগুলো। বেশিরভাগই বলছে “কুকুর নয় বরং সামি হতে সাবধান”।

বাংলাদেশের মিডিয়া ব্যক্তিত্বদের অনেকের কাছেই বেশ পরিচিত মুখ সামি। ছিলেন চ্যানেল ওয়ান -এর ইভেন্ট ডিরেক্টর, আর এখন হয়েছেন কাতার ভিত্তিক গণমাধ্যম আল জাজিরার সোর্স। বর্তমানে হাঙ্গেরী প্রবাসী সামি মূলতঃ নারী সাপ্লায়ায়ার হিসেবে পারদশির্তার জন্য মিডিয়া পাড়ায় একসময় বিখ্যাত ছিলেন, যে কারণে তার ঠাঁই হয় তারেক জিয়ার প্রাণবন্ধু গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের টিভি চ্যানলেটিতে। যৌথবাহিনীর কাছে দেয়া লিখিত জবানবন্দীতে গিয়াস উদ্দিন আল মামুন বলেছেন “সামি আমার এবং তারেকের কাছে অদিতি সেন গুপ্তকে নিয়ে আসেন। আমি জেনেছিলাম সামির ‘এক্সেল ইভেন্ট’নামে একটি প্রতিষ্ঠান আছে। বিদেশী নায়ক নায়িকাদের সাথে তার যোগাযোগ আছে। পরে সামিকে আমি চাকরী দেই।”

জানা গেছে, এই সামির হাত ধরেই বাংলাদেশের গাজীপুর এলাকায় অবস্থিত ‘খোয়াব ভবনে’ -এর রংমহল রাঙিয়েছিলেন বলিউড তারকা শিল্পা শেঠি। ২রাত সেখানে অবস্থান করেন শিল্পা।হাঙ্গেরীর রাজধানী বুদাপেস্টের স্থানীয়দের মাধ্যমে জানা গেছে, তারেকের পেইড এজেন্ট হওয়ার কারণে সামি বিপুল অর্থ খরচ করার সামর্থ্য রাখে।

এছাড়াও ভারতের গায়িকা আলিশা চেন্নাই, বাংলাদেশের অভিনেত্রী ইপ্সিতা শবনম শ্রাবন্তি ও অভিনেত্রী মিলা হোসেনকেও রঙ্গ মঞ্চের রানি হিসেবে সাপ্লাই করতে চেয়েছিলেন সামি- তেমন আভিযোগও আছে।এরকম আরও বহু নারীর জীবন দুর্বিষহ করে তোলার অভিযোগ আছে মাদকাসক্তির দায়ে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী থেকে বহিষ্কৃত এই সাবেক ক্যাডেটের বিরুদ্ধে।

অস্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে ২০০৬ সালে দেশ ত্যাগ করে হাঙ্গেীর চলে যান সামি। সেখানে শুরু করেন  হোটেল ব্যবসা। ঢাকা থেকে কোন ভি আই পি ইউরোপে গেলেই পিছু নেন, ছবি তোলেন। আমন্ত্রণ জানাতো নৈশ ভোজে, গিফট হিসেবে দিতো দামী উপহারও।

মূলতঃ ইউরোপ আ’লীগের আভ্যন্তরীন গ্রুপিং এর সুযোগে ২০০৯ সালে দলটিতে যুক্ত হন সামি। খুব জলদি পরিণত হন আ’লীগের অতিথিপরায়ণ কর্মী হিসেবে। সাবেক আরো চার মন্ত্রীর সঙ্গেও সামির ঘনিষ্ঠতার খবর পাওয়া  গেছে। তারেকের পক্ষে এদের সঙ্গেও সামি একই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অনুমেয়।

-জিয়াউদ্দিন খন্দকার, স্টাফ রিপোর্টার

Read previous post:
দেশের ২১ জন বিশিষ্ট নাগরিক একুশে পদক পাচ্ছেন

তৃতীয় মাত্রা বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে এবার দেশের ২১ জন বিশিষ্ট নাগরিককে একুশে পদকে ভূষিত করছে সরকার। সংস্কৃতিবিষয়ক...

Close

উপরে