Logo
রবিবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২১ | ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দ্বিতীয় পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে রাশিয়ার সহযোগিতা চান প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশের সময়: ৯:০৪ অপরাহ্ণ - সোমবার | অক্টোবর ১১, ২০২১

তৃতীয় মাত্রা

দেশের দক্ষিণাঞ্চলে আরেকটি পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে রাশিয়ার সহযোগিতা চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার (১১ অক্টোবর) গণভবনে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পরমাণু শক্তি করপোরেশন রোসাটমের মহাপরিচালক আলেক্সি লিখাচেভ সৌজন্য সাক্ষাতে এলে রাশিয়ার কাছে এ সহযোগিতা চান প্রধানমন্ত্রী।

বৈঠকের পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা দেশের দক্ষিণাঞ্চলে আরেকটি পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করতে চাই। এ ব্যাপারে রাশিয়ার অব্যাহত সহযোগিতার প্রয়োজন।

রোববার (১০ অক্টোবর) পাবনার রূপপুরে প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের চুল্লিপাত্র স্থাপন করা হয়েছে। রাশিয়ার কারিগরি ও আর্থিক সহযোগিতায় এ পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রটি নির্মাণ করছে বাংলাদেশ। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পরমাণু শক্তি করপোরেশন রোসাটম এ সহযোগিতা দিচ্ছে।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের নিরাপত্তার বিষয়ে সর্বাধিক গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী রোসাটম’র মহাপরিচালককে এ বিষয়ে স্থানীয় জনগণকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার আহ্বান জানান।

আরএনপিপি’র নিরাপত্তার বিষয়টিকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেবেন এবং তারা প্ল্যান্টের কাছাকাছি এলাকায় সামাজিক উন্নয়নেও কাজ করছেন বলে জানান রোসাটমের মহাপরিচালক আলেক্সি লিখাচেভে।

তিনি বলেন, আরএনপিপি পরিচালনার জন্য তারা বাংলাদেশিদের প্রশিক্ষণ দেবেন এবং বাংলাদেশের বিদ্যুৎখাতে তাদের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

স্থানীয় কর্মীদের প্রশংসা করে আলেক্সি লিখাচেভ বলেন, ইঞ্জিনিয়ার, টেকনিশিয়ান ও অন্যান্য জনবলসহ ২০ হাজারেরও বেশি মানুষ আরএনপিপিতে কাজ করে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছেন। অনেক বাংলাদেশি কোম্পানিও সাব-কন্ট্রাক্টে কাজ করছে।

রোসাটম মহাপরিচালক বলেন, বাংলাদেশ ও রাশিয়ার পারস্পরিক সহযোগিতা পারমাণবিক ক্ষেত্রে প্রবেশ করেছে এবং ২০২৩ সালের মধ্যে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তিধর দেশে পরিণত হবে।

মহান মুক্তিযুদ্ধ ও যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনে রাশিয়ার সহযোগিতার কথা স্মরণ করেন এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে কর্মরত ৯০ শতাংশের বেশি রাশিয়ান নাগরিক কোভিড-১৯ টিকা দিয়েছেন জানিয়ে রোসাটম মহাপরিচালক বাংলাদেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান, অ্যাম্বাসেডর অ্যাট লার্জ মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সচিব জিয়াউল হাসান।

Read previous post:
‘মসজিদুল হারামে নামাজ আদায়ে পূর্ণ ডোজ ভ্যাকসিন বাধ্যতামূলক’

তৃতীয় মাত্রা পূর্ণ ডোজ ভ্যাকসিন গ্রহণ ছাড়া মক্কার মসজিদুল হারামে নামাজ আদায় এবং মদিনার মসজিদে নববী পরিদর্শনের সুযোগ না দেওয়ার...

Close

উপরে