Logo
রবিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২১ | ১লা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দীর্ঘদিন পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলায় আনন্দে উচ্ছিসিত কয়রার শিক্ষাঙ্গন

প্রকাশের সময়: ৮:৪৫ অপরাহ্ণ - রবিবার | সেপ্টেম্বর ১২, ২০২১

তৃতীয় মাত্রা

রাসেল আহাম্মেদ, কয়রা (খুলনা) প্রতিনিধি : ফুল ছাড়া যেমন বাগানের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায় না, বৃষ্টি ছাড়া যেমন চারুলতা, গাছ, লতা-পাতা সবুজে সমারোহ হয়ে সুশোভিত হয়ে ওঠে না, কোকিল ছাড়া বসন্ত যেমন মুখরিত হয়ে ওঠে না। ঠিক তেমনি শিক্ষার্থী ছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তার আপন রুপ কখনও ফিরে পায় না। দীর্ঘদিন পর শিক্ষার্থীরা তার বিদ্যানিড়ে এসে যেনো ফিরে পেয়েছে প্রানের স্পন্দন।

চলমান বৈশ্বিক মহামারী করোনা সংক্রমণের কারণে দীর্ঘ ৫৪৪ দিন (১৭ মাস ২৬ দিন) শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার পর শিক্ষা মন্ত্রাণালয়ের নির্দেশনা মোতাবেক সারা দেশের ন্যায় খুলনা জেলার কয়রা উপজেলায় ও ১২ই সেপ্টেম্বর খুলেছে স্কুল ও কলেজ। সকাল ৯ ঘটিকা হতে কয়রার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্য বিধি মেনে, মাস্ক ও নির্ধারিত পোশাক পরিধান করে, শিক্ষা সমাগ্রী সহ কাঁধে বই-খাতার ব্যাগ ঝুলিয়ে প্রফুল্লচিত্তে সারি বেধে পূর্বের নিয়মে শিক্ষার্থীরা আবারো ফিরেছে তাদের স্ব-স্ব প্রিয় বিদ্যাপীঠে ।

প্রথম দিন উৎসব আয়োজনের মাধ্যমে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বরণ করে নেন শিক্ষার্থীদের। শিক্ষার্থীদের কলরবে মুখরিত হয়ে উঠেছে প্রিয় শিক্ষাঙ্গন। প্রিয় ক্যাম্পাসে ফিরতে পেরে খুশি শিক্ষার্থীরা। প্রিয় শিক্ষক, বন্ধু-সহপাঠীদের পেয়ে কিছুতেই যেনো থামছিলো না তাদের অনুভুতি আনন্দ উচ্ছ্বাস। দীর্ঘদিন ঘর বন্ধি থাকায় একঘেয়েমি জীবন-যাপন, নানা অভিজ্ঞতা, আনন্দ-বেদনা, সুখ-দুঃখের কথা সহপাঠীদের সাথে ভাগাভাগি করতে যেনো কেউ ভুলিনি তারা।

আজ সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কয়রা সদরের কয়রা মদিনাবাদ সরকারি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কয়রা সরকারি মহিলা কলেজ সহ উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখা যায় স্কুলগুলোর ফটকে শিক্ষার্থীদের তাপমাত্রা নির্নয় করে প্রবেশ করানো হচ্ছে। তাদেরকে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার ও নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে। ফটকে স্কুলের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে শিক্ষক ও অভিভাবকদের ও অবস্থান করতে দেখা গেছে।

তবে অনেক স্কুলের শ্রেণিকক্ষে গিয়ে দেখা যায়, এক বেঞ্চে তিন-চার জন করে দুরত্ব বজায় না রেখে বসতে, শ্রেনীকক্ষে গিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মানছে না অনেকেই। অন্যদিকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে কিনা তা পরিদর্শন করতে দেখা যায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অনিমেষ বিশ্বাস কে। পরিদর্শনের অংশ হিসাবে বামিয়া এমএম মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এক রিওপেনিং অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশ গ্রহন করেন তিনি। বিদ্যালয়ের ম্যানিজিং কমিটির সভাপতি নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন প্রধান শিক্ষক মোঃ আওলাদ হোসেন সহ বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক, ম্যানিজিং কমিটির সদস্য ও অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন। বিদ্যালয়ে পুনরায় পাঠদান চালু করায় সকল ছাত্র-ছাত্রীদেরকে ফুল দিয়ে বরন করে নেওয়ার পাশাপাশি মাস্ক প্রদান, উপহার স্বরুপ খাতা প্রদান করা হয়। এ ছাড়া প্রধান অতিথি বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মাঝে পাঁচ শতাধিক মাস্ক সহ স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান করেন।

৫৫নং হরিকাটি কেসি সরকারি প্রথামিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কয়রা উপজেলা শিক্ষক সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ লুৎফর রহমান দৈনিক তৃতীয় মাত্রাকে বলেন দীর্ঘদিন পর বিদ্যালয় গুলোতে আবারও পূর্বের সেই পরিবেশ ফিরে এসেছে। ছাত্র-ছাত্রীদের উৎফুল্ল মনোভাব, উপস্থিতি ও আনন্দ দেখে আমরাও আনন্দিত, খুব ভালো লাগছে । ফুল ছাড়া যেমন বাগানে সৌন্দর্য বাড়ে না তেমনি শিক্ষার্থী ছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তার সৌন্দর্য ফিরে পায় না। করানো সংক্রামন রোধে আমাদের চেষ্টা করতে হবে যাতে সকলে স্বাস্থ্য বিধি মান্য করে।

আমাদী জায়গীরমহল তকিম উদ্দিন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষার্থী আজমিরা সুলতানা লামিয়া উচ্ছাসিত হয়ে বলেন, ‘মাধ্যমিক শিক্ষার প্রথম দিন আজ, ভর্তি হয়ে ক্লাস করতে পারিনি কোন দিন, সহপাঠীদের অনেকেরই চিনতাম না, সবার সঙ্গে আজ কথা হয়েছে নতুন অনেক বন্ধু পেয়েছি, খুব ভালো লাগছে। সেই সাথে খুব মিস করছি আমার পুর্ব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের। আমরা চায় আমাদের প্রতিষ্ঠান খোলা থাকুক, স্বাস্থ্য বিধি মেনেই স্কুল আঙ্গিনায় থাকবো আমরা ।

সেই সাথে দৈনিক তৃতীয় মাত্রার কথা হয় স্কুলে আগত জাহিদ হাসান নামে এক অভিভাবকের সাথে। তিনি বলেন ছেলেকে স্কুলে দিতে এসেছি, অনেক দিন পর স্কুল খুলেছে, পুর্বের সেই শিক্ষার পরিবেশ ফিরে পেয়েছে, ভার্চুয়াল ক্লাস আর বাসাতে পড়া লেখার মনোনিবেশ আর শিক্ষাবান্ধব পরিবেশের মধ্যে পাঠদান অনেক ব্যবধান রয়েছে। খুব ভালো লাগছে উপযুক্ত পরিবেশ দেখে।
উপজেলার কপোতাক্ষ মহাবিদ্যালয়, খান সাহেব কোমর উদ্দিন ডিগ্রি কলেজ, আমাদী জায়গীরমহল তকিমউদ্দিন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ডি.এফ নাকসা আলিম মাদ্রাসা সহ কয়রা সদরের সরকারি মহিলা কলেজে ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে পাঠদান কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। কলেজের পক্ষ থেকে সকল ছাত্রীদের মাঝে মাস্ক সহ হ্যান্ড সেনিটাইজার বিতরন করা হয়েছে। সর্বপরি স্বাস্থ্য বিধি মেনে বিভিন্ন কর্মসুচীর মধ্যে দিয়ে পাঠদান শুরু করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

Read previous post:
পলাশবাড়ীতে শিক্ষার্থীদের প্রাণোচ্ছল পদচারনায় মুখরিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

তৃতীয় মাত্রা পলাশবাড়ী (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ আবারো বাজলো ঢং-ঢং ঘন্টা। উড়লো লাল সবুজের পতাকা। প্রভাতী ঊষার সোনালী উদয়ে যেন দ্বিতীয় সকাল।...

Close

উপরে