Logo
সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ | ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

দিনভর খাঁ খাঁ কলকাতা বিমানবন্দর

প্রকাশের সময়: ২:১৭ অপরাহ্ণ - বুধবার | সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০

তৃতীয় মাত্রা

সারা দিনে মাত্র ছ’টি ফ্লাইট। যাওয়া-আসা মিলিয়ে যাত্রী ৬৪৬ জন। তার মধ্যে কলকাতায় বিমানবন্দরে এসেছেন ৩৫৩ জন। গিয়েছেন ২৯৩ জন। লকডাউন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু, শেষ মুহূর্তে রাজ্য সরকার সেই লকডাউন প্রত্যাহার করলেও ফ্লাইট পরিচালনা করেনি বেসরকারি কোনও সংস্থাই। তাদের যুক্তি ছিল, শেষ মুহূর্তে টিকিট বিক্রি করলেও পর্যাপ্ত যাত্রী পাওয়া যাবে না। ফলে, সারা দিন যেখানে প্রায় ১৪০টি ফ্লাইটে যাতায়াত করার কথা ছিল, সেখানে যাতায়াত করল মাত্র ছ’টি।

দু’টি ফ্লাইটে চালিয়েছে এয়ার ইন্ডিয়া। একটি হায়দরাবাদ গিয়েছে সকাল ৮টা নাগাদ। সেখান থেকে ফিরেছে ১০টায়। ফেরার ফ্লাইটে যাত্রী ছিল বেশি। বেঙ্গালুরু থেকে ১১টা নাগাদ শহরে এসে সাড়ে ১২টায় উড়ে গিয়েছে দ্বিতীয় ফ্লাইট। যাতায়াতে ভালই যাত্রী হয়েছে। অ্যালায়েন্স ছোট এটিআর ফ্লাইট চালিয়েছে ঝাড়সুগুড়ায়। সকাল সাড়ে ৮টা নাগাদ গিয়ে বিমানটি ফিরেছে বিকেল ৫টায়। আর এই তিনটি মাত্র ফ্লাইটের জন্য সকাল থেকে হা-পিত্যেশ করে বসে থেকেছেন ট্যাক্সিচালকেরা। অপেক্ষা করেছে ভলভোর ৩২টি বাস। সকালের দু’টি ফ্লাইটের যাত্রীরা যে যাঁর মতো বাড়ি চলে যাওয়ার পরেও নীচে অ্যারাইভ্যালে দেখা গেল, ট্যাক্সি নিয়ে অপেক্ষা করছেন রঞ্জন পাণ্ডে নামে এক চালক। আর তো মাত্র একটি ফ্লাইট বাকি! কত আর যাত্রী পাবেন! রঞ্জন বললেন, “কী করব! আমরা তো বিমানবন্দর থেকেই যাত্রী নিয়ে যাতায়াত করি। সকালে পণ্য বিভাগের দিক থেকে এক জন যাত্রীকে নিয়ে খিদিরপুরে গিয়েছিলাম। ফেরার পথে রাস্তা ফাঁকা। এক জন যাত্রীও পাইনি। খালিই আসতে হল। এখন বিমানবন্দরের কোনও কর্মী যদি ট্যাক্সি নিতে চান, তাই অপেক্ষা করছি।” একা রঞ্জন নন, লাইনে তখন অনেক ট্যাক্সি। সারা দিন বাস ছিল ৩২টি। বাসচালকেরা জানালেন, খালি বাস নিয়ে বিমানবন্দর থেকে বেরিয়ে ভিআইপি রোডে পড়লে তবে যাত্রী পাওয়া যাচ্ছে। তাঁদের চালাতে বলা হয়েছে। তাই চালাচ্ছেন।

আজ, রোববারের ফ্লাইট ধরবেন বলে শনিবার থেকেই কিছু যাত্রীকে বিমানবন্দরের টার্মিনালের বাইরে অপেক্ষা করতে দেখা গিয়েছে এ দিনও। তাঁরা সকলেই পেশায় শ্রমিক এবং আগে বিমানে ওঠেননি। যেমন উত্তরপ্রদেশের বালিয়া থেকে আসা একদল রাজমিস্ত্রি যাবেন পোর্ট ব্লেয়ারে। সেই দলে রয়েছেন ইন্দ্রজিৎ রাজভড় নামে এক জন। তাঁর নিজের ভাই কাজ করেন পোর্ট ব্লেয়ারে। বালিয়ায় লকডাউনে কাজ নেই। তাই ভাই পোর্ট ব্লেয়ার থেকে বিমানের টিকিট কেটে পাঠিয়ে দিয়েছেন। জানিয়েছেন, দিনে ৫৫০ টাকা মজুরির কাজ রয়েছে সেখানে। ভাই-ই তাঁকে জানিয়েছেন, ভোরের ফ্লাইট। তাই আগেই যেন ইন্দ্রজিতেরা কলকাতা বিমানবন্দরে পৌঁছে যান। তাই, শনিবার সকালেই কলকাতায় পৌঁছে যান ছ’জন।

 

Read previous post:
দোহারে বেড়েছে পেঁয়াজের ঝাঁজ

তৃতীয় মাত্রা মোঃ জাকির হোসেন, দোহার-নবাবগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি : ঢাকার দোহারে এক রাতেই বেড়েছে পেঁয়াজের ঝাঁজ। উপজেলার প্রতিটি বাজারেই দেখা...

Close

উপরে