Logo
বৃহস্পতিবার, ২৮ মে, ২০২০ | ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিক্ষা সফরে একটা বৃদ্ধাশ্রমে গিয়ে হারানো দাদীকে খুঁজে পেল নাতনী, জানতে পারলো তার জায়গা হয়নি বাড়িতে!

প্রকাশের সময়: ২:২৪ পূর্বাহ্ণ - শুক্রবার | মে ১৫, ২০২০

তৃতীয় মাত্রা

একদিন স্কুল থেকে শিক্ষা সফরে একটা বৃদ্ধাশ্রমে গিয়েছিল দিতি নামের এই মেয়েটি। অকল্পিত ভাবে সেইখানে তখন নিজের আপন দাদুকে খুঁজে পেল নাতনী দিতি। দাদিমাকে বুকে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়ে মেয়েটি। দেরীতে হলেও সে জানতে পারলো যে কেন তার দাদীর জায়গা হয়নি তাদের বাড়িতে!

মা বাবাকে সেই ছোট থেকেই দেয়ালে পেরেক দিয়ে আটকানো ধুলো মাখানো ছবিটা দেখে অনেকবার জিজ্ঞেস করেছিল মেয়েটি তার দাদুর কথা। উত্তরে মা বাবা জানিয়েছেন তার দাদু অন্য রিলেটিভদের সাথে থাকেন। মেয়েটি অনেক বার বলেছিল দাদুকে দেখবে কিন্তু তার মা বাবা তাকে নিয়ে যায়নি। স্কুল ট্রিপে এসে মেয়েটি যখন ঘোলাটে চশমায় বারান্দায় হেলান দিয়ে বসে থাকা বৃদ্ধাকে দেখে তার ফ্রেমে আটকানো ছবিটার সাথে মিল খুঁজে পায়।

দৌড়ে গিয়ে দাদিমাকে জড়িয়ে ধরে মেয়েটি । দাদিমা তার নাতনির পরিচয় পেয়ে ঘোলাটে চশমাটা খুলে চোখ ঢলতে ঢলতে নাতনিকে বুকে জড়িয়ে নেয়। আমার ছেলের এতো বড় আলিশান ফ্লাটে আমার জায়গা হয়নি। বৌমাও আমাকে সহ্য করতে পারতো না। আমি তো বুড়িয়ে গেছি তাইনা!

তোর বাবাকে আমি কত কষ্ট করে মানুষ করেছি, কখনও বিন্দুমাত্র অভাবের আচড় লাগতে দেয়নি। নিজে কষ্টে থেকে তাকে সবসময় ভাল জায়গায় রেখেছি। তাকে বলেছিলাম বড় হয়ে আমাকে ভুলে যাসনে। কিন্তু বুঝতে পারিনি সে এতো বড় হয়ে যাবে।

একদিন স্কুল থেকে ভ্রমণের জন্য একটা বৃদ্ধাশ্রমে গিয়েছিল দিতি নামের এই মেয়েটি। অকল্পিত ভাবে সেইখানে তখন সে তার আপন দাদুকে খুঁজে পায়। দাদিমাকে বুকে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়ে মেয়েটি।

মা বাবাকে সেই ছোট থেকেই দেয়ালে পেরেক দিয়ে আটকানো ধুলো মাখানো ছবিটা দেখে অনেকবার জিজ্ঞেস করেছিল মেয়েটি তার দাদুর কথা।উত্তরে মা বাবা জানিয়েছেন তার দাদু অন্য রিলেটিভদের সাথে থাকেন।

মেয়েটি অনেক বার বলেছিল দাদুকে দেখবে কিন্তু তার মা বাবা তাকে নিয়ে যায়নি। স্কুল ট্রিপে এসে মেয়েটি যখন ঘোলাটে চশমায় বারান্দায় হেলান দিয়ে বসে থাকা বৃদ্ধাকে দেখে তার ফ্রেমে আটকানো ছবিটার সাথে মিল খুঁজে পায়।

দৌড়ে গিয়ে দাদিমাকে জড়িয়ে ধরে মেয়েটি । দাদিমা তার নাতনির পরিচয় পেয়ে ঘোলাটে চশমাটা খুলে চোখ ঢলতে ঢলতে নাতনিকে বুকে জড়িয়ে নেয়। আমার ছেলের এতো বড় আলিশান ফ্লাটে আমার জায়গা হয়নি।

বৌমাও আমাকে সহ্য করতে পারতো না। আমি তো বুড়িয়ে গেছি তাইনা!তোর বাবাকে আমি কত কষ্ট করে মানুষ করেছি, কখনও বিন্দুমাত্র অভাবের আচড় লাগতে দেয়নি। নিজে কষ্টে থেকে তাকে সবসময় ভাল জায়গায় রেখেছি। তাকে বলেছিলাম বড় হয়ে আমাকে ভুলে যাসনে। কিন্তু বুঝতে পারিনি সে এতো বড় হয়ে যাবে।

-সংগৃহীত

Read previous post:
সীতাকুণ্ডে কুমিরা এলাকায় ট্রাকের ধাক্কায় এক মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু

তৃতীয় মাত্রা মোঃ মামুনুর রশিদ মাহিন- সীতাকুণ্ড (চট্রগ্রাম): আজ বৃহস্পতিবার (১২ মে ২০) উপজেলার কুমিরা ইউনিয়নের এলাকায় দুপুর ২ টার...

Close

উপরে