Logo
বৃহস্পতিবার, ২৮ মে, ২০২০ | ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সিয়াম সাধনাতে নিপাত যাক হিংসা-বিদ্বেষ

প্রকাশের সময়: ২:৩৫ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার | মে ৫, ২০২০

তৃতীয় মাত্রা

মুরতুজা হাসান নাহিদ :আত্মশুদ্ধি অর্জন ও পরিশুদ্ধ জীবন পরিচালনার মাস হচ্ছে মাহে রমাদান। পবিত্র এ মাসে ধর্মপ্রাণ মানুষেরা যেন পরিশুদ্ধ জীবন গড়তে পারে সেজন্য মাসব্যাপী মহান আল্লাহ তায়াথলা তার বান্দাদের উপর রোজা ফরজ করেছেন। তাইতো এ মাসের বরকতে আল্লাহ তায়ালা জান্নাতের দুয়ার খুলে দেন জাহান্নামের দরজা বন্ধ করে দেন। এমনকি মানুষের প্রকাশ্য শত্রু শয়তানকেও শৃঙ্খলাবদ্ধ করে রাখেন।

সুতরাং মুমিনের আত্মশুদ্ধির বিশেষ মাধ্যম হচ্ছে ‘সাওম বা রোজা পালন করা। সিয়াম সাধনার মাধ্যমে আত্মার আধ্যাত্মিক শক্তি বিশেষভাবে বৃদ্ধি পায়, যার ফলে কুপ্রবৃত্তি, কুবাসনা দমন হয়।

আরবিতে বলা হয় সিয়াম, অর্থ ‘বিরত থাকা, ‘আত্মসংযম করা ইত্যাদি। অর্থ্যাৎ সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে পানাহার, দাম্পত্য মিলন ও রোজা ভঙ্গ হওয়ার সকল বিষয়াদি থেকে বিরত থাকার নামই হচ্ছে সিয়াম।

অপরদিকে ‘রমজ শব্দ থেকে এসেছে ‘রমজান। ‘রমজ শব্দের অর্থ হলো জ্বালিয়ে দেয়া, পুড়িয়ে দেয়া। পবিত্র রমজান মাসের রোজা পালনের মাধ্যমে মানুষ পরস্পরের মধ্যকার হিংসা-বিদ্বেষ, লোভ-লালসা ও গুনাহসমূহকে জ্বালিয়ে দেয়, পুড়িয়ে দিয়ে এবং পাপমুক্ত করে। পাশাপাশি মানুষের মনকে করে তোলে নির্মল, কোমল ও পবিত্র। আল্লাহ তাআলার করুনায় নিজেকে ক্ষমা লাভের যোগ্য করে তোলে। শুধু তাই নয়, সিয়াম সাধনার দাহনে মানুষের সমস্ত পাপ-পঙ্কিলতা পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

বলা হয়ে থাকে হিংসা পতনের মূল। আর রোযা মানুষকে হিংসা বিদ্বেষ থেকে বেঁচে থাকতে সহায়তা করে। সেজন্যই তো আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, সবরের মাসের (রমযান মাস) রোযা এবং প্রতি মাসের তিন দিনের (আইয়্যামে বীয) রোযা অন্তরের হিংসা-বিদ্বেষ দূর করে দেয়। (মুসনাদে আহমদ, সহীহ ইবনে হিববান)

ইসলাম অন্যের প্রতি হিংসা করা বা প্রতিহিংসাপরায়ণ হওয়াকে সম্পূর্ণরূপে হারাম বা নিষিদ্ধ করেছে। হিংসা-বিদ্বেষ, মানুষের শান্তিপূর্ণ ব্যাক্তি জীবন থেকে শুরু করে পারিবারিক ও সামাজিক জীবনকে অত্যন্ত বিষময় করে তোলে।

আর সিয়ামের মাধ্যমে মানুষ তার নফস ও শরীরকে পাপমুক্ত রাখতে সক্ষম হয়। দীর্ঘ এগারো মাসের পাপ পঙ্কিলতা থেকে মুক্তি লাভের অপূর্ব সুযোগ এ রমজান মাস।

সিয়ামের ফযিলতের কথা বলতে গিয়ে রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি ঈমানে উদ্বুদ্ধ হয়ে সওয়াব প্রাপ্তির আশায় রমজানের সিয়াম পালন করবে তার পূর্ব জীবনের সকল পাপরাশি ক্ষমা করে দেওয়া হবে। (সহিহ আল বুখারী)

রোযা প্রকৃতই ঢালস্বরূপ। রোযা সকল প্রকার পাপাচার, কামাচার, মিথ্যা, অশ্লীল কথাবার্তা ও ব্যাভিচার ও বেহায়াপনা থেকে বেঁচে থাকার উত্তম উপায়। এ প্রসঙ্গে হযরত উবাদাহ বিন সামিত (রা.) হতে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কে বলতে শুনেছি, তিনি বলেছেন, রোজা মানুষের জন্য ঢালস্বরূপ। যতক্ষণ পর্যন্ত না উহাকে ভঙ্গ করা হয়। (ইবনে মাজাহ শরীফ)।

মানুষদেরকে হিংসা-বিদ্বেষ, লোভ-লালসা, অশান্তি প্রভৃতি সামাজিক অনাচারের পথ পরিহার করে পরিশীলিত এবং পারস্পরিক ঐক্য ও ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ থাকতে হবে। সেজন্যই তো রাসূল (সা.) বলেছেন, “তোমরা হিংসা-বিদ্বেষ থেকে নিবৃত্ত থাকবে। কেননা, হিংসা মানুষের নেক আমল বা পুণ্যগুলো এমনভাবে খেয়ে ফেলে, যেভাবে আগুন লাকড়িকে জ্বালিয়ে নিঃশেষ করে দেয়।” (আবু দাউদ)

নিজের যতটুকু আছে, ততটুকু নিয়েই আমাদের সন্তুষ্ট থাকতে হবে। কেননা অন্যের দিকে তাকিয়ে বিদ্বেষ পোষণ করে হিংসার আগুনে জ্বলেপুড়ে ক্ষতি হওয়া ছাড়া আর কোনো লাভ নেই। সুতরাং আমরা ধর্মপ্রাণ মানুষেরা যদি আত্মশুদ্ধি অর্জন করতে চাই তাহলে অবশ্যই সর্বাবস্থায় হিংসা-বিদ্বেষ পরিহার করে চলতে হবে। আর পবিত্র রমাদান মাস আত্মশুদ্ধি অর্জনের অন্যতম মাধ্যম। আসুন আমরা পবিত্র এ মাহে রমাদানের সিয়াম সাধনার মধ্যদিয়ে হিংসা-বিদ্বেষ,পাপচার,কামাচারমুক্ত সুন্দর জীবন পরিচালনা করি।

 

মুরতুজা হাসান নাহিদ

শিক্ষার্থী, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া।

 

 

Read previous post:
‘সরকারের সমালোচনা করার চিরায়ত ভাইরাসে আক্রান্ত বিএনপি’

ফাইল ছবি তৃতীয় মাত্রা করোনার এই সংকটকালেও বিএনপি মহাসচিব সরকারের ব্যর্থতার নামে মিথ্যাচার করছেন বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ...

Close

উপরে