Logo
রবিবার, ২৯ মার্চ, ২০২০ | ১৫ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

এসব নিয়মে অসতর্ক হলেই করোনায় আক্রান্ত হতে পারেন

প্রকাশের সময়: ১২:৩৬ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার | মার্চ ২৪, ২০২০

তৃতীয় মাত্রা

ডেস্ক রিপোর্ট : কোভিড-১৯। ডাক নাম করোনা ভাইরাস। হঠাৎ আমদানি হওয়া এই ভাইরাস নিয়ে বিশ্ব জুড়ে আতঙ্ক বিরাজ করছে। প্রথমে চিনের উহানে ধরা পড়লেও মহামারীর মতো এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের অনেক দেশে। এখনও এই ভাইরাসের কোন প্রতিষোধক আবিস্কার না হওয়ায় চিন্তায় পড়েছেন চিকিৎসকরা।

ভায়ারোলজিস্ট সুশ্রুত বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতে, জিনগত মিউটেশনের ফলে কোনও কোনও ভাইরাস তার স্বভাব, আকার, প্রকৃতি বদলে ফেলে। ফলে নতুন চেহারার সে সব ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করা কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। প্রয়োজনীয় পথ্য মজুতে আগেই এরা প্রাণঘাতী হয়ে ওঠে। করোনাও এই কারণেই এত প্রাণঘাতকে রূপান্তরিত হয়েছে।

ভাইরাসের থাবা থেকে বাঁচতে চিকিৎসকরা একটু সতর্ক থাকতে অনুরোধ করেছেন:

কেমন করে?
নাক-মুখ দিয়েই মূলত এই ভাইরাস প্রবেশ করে। এরপর শ্বসনতন্ত্রের (রেসপিরেটরি সিস্টেম) যে কোনও একটি কোষকে টার্গেট করে সে। সেই কোষটিই তখন হয়ে ওঠে ‘হোস্ট সেল’। বাড়িতে অতিথি এলে যেমন তাকে আদর-যত্ন করতে হয়, শ্বসনতন্ত্রও নতুন আসা এই ভাইরাসের যত্ন শুরু করে। যত্ন পেয়ে ফুলেফেঁপে ওঠে হোস্ট সেল। অবশেষে এই হোস্ট সেল ফেটে ভাইরাসকে উগড়ে দেয় বাইরে।

করোনার উপসর্গ

*এই ভাইরাসের প্রধান ও অন্যতম উপসর্গ এক টানা সর্দি-কাশি ও বুকে কফ জমে থাকা। তবে যে কোনও সাধারণ সর্দি-কাশিতে ভয়ের তেমন কিছু নেই। তখনই সচেতন হতে হবে, যখন কোনও প্রকার ওষুধেই শ্লেষ্মাজনিত সমস্যা সারছে না। সে ক্ষেত্রে পলিমারেস চেন রিঅ্যাকশন বা ‘পিসিআর’ পরীক্ষা করে এই ধরনের ভাইরাসের উপস্থিতির খোঁজ করা হয়।

*সর্দি-কাশির সঙ্গে জ্বরও ডেকে আনে এই ভাইরাস।

*সারাক্ষণ নাক দিয়ে কাঁচা জল পড়ার সঙ্গে শ্বাসকষ্টও এই অসুখের অন্যতম উপসর্গ।

*বুকে কফ জমে যাওয়া, মাথা যন্ত্রণা, গলাব্যথা তো থাকেই। এর সঙ্গে শ্লেষ্মাজনিত অসুখ বেড়ে নিউমোনিয়া ডেকে আনে। তা বাড়তে বাড়তে সিভিয়ার নিউমোনিয়ার দিকে বাঁক নিতে পারে।

অসুখ থেকে বাঁচতে কী করব?

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) এই করোনা ভাইরাস থেকে দূরে থাকতে বেশ কিছু পদক্ষেপের কথা জানিয়েছে। করোনা ভাইরাস নিয়ে বার বার সচেতন করছেন বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকরাও। পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান মঞ্চের চিকিৎসক ও ভায়ারোলজিস্টরাও এই নিয়ে সচেতন করছেন সকলকে।

*যে কোনও খাবার মূলত মাছ-মাংস ভাল করে ফুটিয়ে খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা। ফ্রিজেও এই ভাইরাস বেঁচে থাকে। তাই যে কোনও খাবার খুব ভাল করে গরম করে ও ফুটিয়ে খান।

*ফ্রিজে রান্না করা তরকারি ও কাঁচা তরকারি এক সঙ্গে রাখবেন না। নিয়মিত ফ্রিজ পরিষ্কার করুন।

*বাদুড়ে খাওয়া ফল বা খুঁত আছে এমন ফল খাবেন না। দীর্ঘ সময় কেটে রাখা ফলও এড়িয়ে চলুন।

*মাংস খাওয়ার ক্ষেত্রে কোনও বাধা নিষেধ নেই। এই নিয়ে অকারণ আতঙ্ক করতেও নিষেধ করছেন চিকিৎসকরা। তবে যে কোনও মাংসই খুব ভাল করে পরিষ্কার করে ও সুসিদ্ধ করে খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন তাঁরা।

*প্যাকেটজাত ইমপোর্টেড মাংস আপাতত না কেনার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

*সর্দি-কাশি এমনিতেই সংক্রামক অসুখ। করোনা-আতঙ্কের সময় তাই এ নিয়ে বাড়তি সতর্কতা নিতে হবে। দীর্ঘ দিন সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত এমন মানুষের থেকে দূরত্ব বজায় রাখুন অন্তত এক মিটার। বাড়িতে এমন কেউ থাকলে তার ব্যবহৃত জিনিসও আলাদা করে রাখুন।

*কিন্তু এ তো গেল চেনা পরিচিত মানুষের কথা। রাস্তাঘাটে বেড়িয়ে কোন মানুষ দীর্ঘ দিন ধরে আক্রান্ত তা বুঝবেন কী করে? তাই রাস্তায় বেরলেই মাস্ক ব্যবহার করুন। সাধারণ মাস্ক নয়, ত্রিস্তরীয় নীল বা সবুজ রঙের মাস্ক যা কেবলমাত্র ওষুধের দোকানে কিনতে পাওয়া যায়।

*ডিসপোজাল মাস্ক পরুন। মাস্ক ভিজে গেলে ও গোটা এক দিন ব্যবহার হয়ে গেলে তা বদলে ফেলুন।

*বাইরে থেকে বাড়ি ফিরে খুব ভাল করে কনুই অবধি হাত ধুয়ে নিন। আঙুলের ফাঁক, নখের কোনা, হাতের উপরিভাগ সবটাই ভাল করে ধুয়ে শুকিয়ে নেওয়ার জন্য কিছুক্ষণ হাত উঁচু করে রাখুন। ইথাইল অ্যালকোহল বা পটাসিয়াম পারম্যাঙ্গানেট দিয়ে হাত ধুতে পারেন। তবে সাবান দিয়ে ভাল করে পরিষ্কার করে নিলেও হবে।

*হাত উঁচু করে রেখে হাত শুকিয়ে তবেই কারও গায়ে হাত দিন। বিশেষ করে বাড়িতে শিশু থাকলে এই নিয়ম অবশ্য পালনীয়।

Read previous post:
২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সব গণপরিবহন চলাচল বন্ধ ঘোষনা

তৃতীয় মাত্রা কভিড-১৯ করোনাভাইরাসের কারণে এরইমধ্যে গণপরিবহন সীমিত আকারে চলাচল করছে। আজ মঙ্গলবার বিকাল থেকে করোনার কারণে সারাদেশে যাত্রীবাহী নৌযান...

Close

উপরে