Logo
সোমবার, ১৬ জুলাই, ২০১৮ | ১লা শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

সৌদি আরব হারাল মিশরকে

প্রকাশের সময়: ২:৫৯ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার | জুন ২৬, ২০১৮

তৃতীয়মাত্রা :

২৮ বছর পর বিশ্বকাপে ফিরে মিশরকে স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন মোহাম্মদ সালাহ। কিন্তু চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে তার ইনজুরি বড় ধাক্কা হয়ে এসেছিল। প্রথম ম্যাচে না থাকলেও গ্রুপের শেষ দুই ম্যাচে ছিলেন তিনি, গোলও করলেন। তবে জয়ের দেখা পেল না মিশর। সোমবার শেষ মুহূর্তের গোলে সৌদি আরবের কাছে টানা তৃতীয় ম্যাচ হারল তারা।

‘এ’ গ্রুপের শেষ ম্যাচে ভোলগোগ্রাদে ২-১ গোলে মিশরকে হারিয়ে একমাত্র জয়ের স্বাদ নিয়ে দেশে ফিরছে সৌদি আরব।

টানা দুটি হারের পর প্রথম জয়ের লক্ষ্যে মুখোমুখি হয়েছিল মিশর ও সৌদি আরব। এই ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপের সবচেয়ে বয়স্ক খেলোয়াড়ের মর্যাদা পান মিশরের ৪৫ বছর বয়সী গোলরক্ষক এসাম এল হাদারি।

১২ ও ১৫ মিনিটে সেলিম আল-দাওসারি দারুণ দুটি সুযোগ নষ্ট করলে সৌদি আরব উচ্ছ্বাস করতে পারেনি। তার দুটি শট চলে যায় গোলবারের উপর দিয়ে। হঠাৎ করে ম্যাচ নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নেয় মিশর। ২২ মিনিটে আব্দুল্লাহ সাইদের লম্বা ক্রস পেয়ে দুজন ডিফেন্ডারকে পেছনে ফেলে গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে বল জালে জড়ান মোহাম্মদ সালাহ। টানা দ্বিতীয় ম্যাচে গোল করে মিশরকে উল্লাসে মাতান তিনি। দুই মিনিট পর শুধু গোলরক্ষককে পেয়েও বল গোলপোস্টের বাইরে দিয়ে মারেন লিভারপুলের ফরোয়ার্ড।

৩৩ ও ৩৪ মিনিটে মিশরের মিডফিল্ডার ত্রেজিগেত দুটি সুযোগ নষ্ট করেন। গোলপোস্টের পাশ দিয়ে বল চলে যায় দুইবারই। বরং ৩৯ মিনিটে তারা সৌদি আরবকে সমতা ফেরানোর সুযোগ করে দেয়। ডিবক্সের মধ্যে আহমেদ ফাতে হ্যান্ডবল করেন। রেকর্ডের দিনে দারুণ কিছু করার সুযোগ পেয়ে সফল হন এল হাদারি। ৪১ মিনিটে ফাহাদ আল-মুওয়াল্লাদের পেনাল্টি শট চমৎকার সেভ করেন বিশ্বকাপের সবচেয়ে বয়স্ক খেলোয়াড়। কিন্তু প্রথমার্ধের ইনজুরি সময়ের পঞ্চম মিনিটে আবারও পেনাল্টি পায় সৌদি আরব। আলী গাবর বক্সের মধ্যে ফাউল করেন ‍মুওয়াল্লাদকে। ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেয়। এবার সালমান আল-ফারাজের স্পট কিক ঠেকাতে পারেননি এল হাদারি। এটি ছিল টুর্নামেন্টের ১৮তম পেনাল্টি, এতে এক আসরে সবচেয়ে বেশি পেনাল্টির রেকর্ড স্পর্শ করল রাশিয়া বিশ্বকাপ।

বিরতির পর মিশরের গোলরক্ষক ৬৯ মিনিটে আরেকটি দারুণ সেভ করেন। প্রতিপক্ষের হেড গোলবারের উপর দিয়ে মাঠের বাইরে পাঠান এল হাদারি। পরের মিনিটে সালাহর বাড়িয়ে দেওয়া বল বক্সের প্রান্তে পায়ে পেয়েছিলেন মোহাম্মদ এলনিনি। কিন্তু তার শট খুঁজে পায়নি জাল।

অন্তত একটি পয়েন্ট নিয়ে দেশে ফেরার স্বপ্ন দেখছিল মিশর। কিন্তু তাদের হৃদয় ভেঙে দিয়ে ইনজুরি সময়ের পঞ্চম মিনিটে গোল করে সৌদি আরব। আব্দুল্লাহ ওতায়েফের অ্যাসিস্টে লক্ষ্যভেদ করেন আল-দাওসারি।

এতে গ্রুপে তৃতীয় দল হয়ে বিশ্বকাপ শেষ করল সৌদি আরব। ১২ বছর পর বিশ্বমঞ্চে ফেরা দলটি ১১ ম্যাচ পর প্রথম জয়ের দেখা পেল।

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
Read previous post:
কৌতিনিয়োই ব্রাজিলের মূল শিল্পী , নেইমার নন!

তৃতীয়মাত্রা : কোস্টারিকার বিপক্ষে ব্রাজিলের ২-০ গোলের জয়ে মূল প্রভাবকই ছিলেন ফিলিপে কৌতিনিয়ো। নির্ধারিত ৯০ মিনিটের খেলায় সেলেসাওরা যখন প্রতিপক্ষের...

Close

উপরে