Logo
শনিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৯ | ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আসামে করিমগঞ্জের নাম পাল্টে ‘শ্রীভূমি’ রাখতে চায় বিজেপি

প্রকাশের সময়: ২:৪০ অপরাহ্ণ - শনিবার | নভেম্বর ৯, ২০১৯

তৃতীয় মাত্রা

আসামের বরাক উপত্যকার অন্তর্গত করিমগঞ্জের নাম বদল করে শ্রীভূমি রাখার দাবি নিয়ে সেখানে দানা বাঁধছে নতুন বিতর্ক।

১০০ বছর আগে সিলেট সফরে এসে আসামের করিমগঞ্জে গিয়েছিলেন কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। সেই ঘটনার শতবার্ষিকী উৎযাপন করতে প্রস্তুতি নিচ্ছে ভারত সরকার।

আর সেই অনুষ্ঠানের আগেই করিমগঞ্জের নাম বদলে শ্রীভূমি রাখার দাবি তুলেছেন বিজেপির এক স্থানীয় নেতা ।

গত মঙ্গলবার এক সভায় জোরালোভাবে এমন দাবি তুললেন আসামের হোজাইয়ের বিজেপি বিধায়ক শিলাদিত্য দেব।

এই দাবি নিয়ে শিগগিরই ভারত কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে যাবেন বলেও জানিয়েছেন শিলাদিত্য দেব। এ সময় তার দাবির সঙ্গে জোর সমর্থন জানান আরেক বিজেপি নেতা মিশনরঞ্জন দাস।

করিমগঞ্জ নাম পাল্টে কেন শ্রীভূমি রাখতে হবে এমন দাবির ক্ষেত্রে শিলাদিত্য দেবের যুক্তি, করিমগঞ্জের বেশিরভাগ মানুষই সিলেটের। দেশ ভাগের কারণে করিমগঞ্জ এখন ভারতে। কিন্তু সিলেটের সঙ্গে তাদের একটা আবেগ জড়িয়ে আছে এখননো। রবীন্দ্রনাথ যেহেতু সিলেটকে ‘শ্রীভূমি’ বলে বর্ণনা করেছিলেন, তাই শ্রীভূমিই হবে করিমগঞ্জের উপযুক্ত নাম।

তিনি বলেন, রবীন্দ্রনাথের করিমগঞ্জ পদার্পনের শতবার্ষিকীতে তাকে শ্রদ্ধা জানানোর সব থেকে ভাল উপায় এটাই যে, তার বর্ণনা অনুযায়ী করিমগঞ্জের নাম যদি শ্রীভূমি রাখা হয়।

তবে বিশ্লেষকসহ করিমগঞ্জের মুসলমান অধিবাসীরা বিজেপি বিধায়কের এমন দাবিকে সম্পূর্ণ রাজনৈতিক বলে মনে করছেন।

ক্ষমতায় আসার পর থেকেই ভারতের বিভিন্ন স্থানের মুসলিম নাম বদলে হিন্দু নাম রাখা শুরু করেছে বিজেপি। সেই ধারাবাহিকতায় করিমগঞ্জের নাম বদলে দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন করিমগঞ্জের মুসলিম বাসিন্দারা।

এর আগেও বিজেপি যেভাবে কয়েকটি এলাকার ইসলামিক নাম বদল করেছে, এটাও সেরকমই একটা প্রচেষ্টা বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্লেষক ও দৈনিক যুগশঙ্খ পত্রিকার সম্পাদক অরিজিৎ আদিত্য।

তিনি বলেন, করিমগঞ্জের নাম বদলের প্রস্তাব কি স্থানীয়দের থেকে এসেছে? না আসেনি। তবে বিজেপি বিধায়কের এ নিয়ে মাথা ব্যথা কেন? এসব বিষয়ে স্থানীয়দের মতামতই অগ্রগন্য বলে মনে করেন তিনি।

এদিকে করিমগঞ্জের নাম শ্রীভূমি রাখার দাবি এ মুহূর্তে ওঠা বিপজ্জনক বলে মন্তব্য করেছেন বরাক উপত্যকা বঙ্গ সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্মেলনের সাধারণ সম্পাদক গৌতম দত্ত।

বিবিসিকে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘ যখন এনআরসির মাধ্যমে আসামের ১৯ লাখ মানুষ রাষ্ট্রহীন হয়ে পড়ার আশঙ্কায় রয়েছেন তখন একটা প্রান্তিক শহরের নাম বদলের প্রস্তাব অপ্রাসঙ্গিক তো বটেই, বিপজ্জনকও। আমরা সংগঠনগতভাবে এর বিরোধিতা করছি।’

কোনো এলাকার নাম পাল্টানোর দিকে মনযোগ না দিয়ে ডিটেনশান ক্যাম্পগুলোতে বন্দি কয়েকশত হিন্দু বাঙালিকে বাঁচাতে শিলাদিত্য দেবদের এগিয়ে আসা প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেন গৌতম দত্ত।

বিজেপি নেতা শিলাদিত্য দেবের এমন দাবির বিপক্ষে শুধু বিশ্লেষকসহ স্থানীয়রিই নয়, ইতিমধ্যে কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেস থেকেও করিমগঞ্জের নাম বদলের দাবির সমালোচনা করা হয়েছে।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

Read previous post:
স্লগ ওভারের চ্যালেঞ্জ

  তৃতীয় মাত্রা :  আগের ম্যাচে ৮ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হারলেও স্বাগতিক ভারতের বিপক্ষে চলতি টি২০ সিরিজ জয়ের সুযোগ এখনো শেষ হয়ে যায়নি বাংলাদেশের। এর জন্য আগামীকাল নাগপুরে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচটি জিততে হবে টাইগারদের। সিরিজ ফয়সালার ম্যাচের আগে বাংলাদেশ শিবিরের জন্য দুর্ভাবনা হয়ে দেখা দিয়েছে স্লগ ওভার। হাতে উইকেট থাকার পরও শেষ দিকে ঝড় তুলতে পারছেন না সফরকারী ব্যাটসম্যানরা। আবার ডেথ ওভারে বোলিংয়ের সময়ও বিপক্ষ দলের হার্ডহিটার ব্যাটসম্যানদের সামনে অসহায়ত্ব ফুটে উঠেছে বাংলাদেশের বোলারদের শরীরী ভাষায়। দিল্লিতে জেতায় রাজকোটেই সুযোগ ছিল সিরিজ জয়ের। টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে বড় কিছুরই ইঙ্গিত দিচ্ছিল সফরকারীরা। মাত্র ৫.৪ ওভারেই পঞ্চাশের নাগাল পেয়ে গেল বাংলাদেশ। লিটন দাস ও মোহাম্মদ নাঈম উদ্বোধনী জুটিতে ৭.২ ওভারে যোগ করলেন ৬০ রান। এ অবস্থায় দলের রান দুশোর নাগাল পেয়ে যাবে, এমনটাই ভাবছিলেন অনেকে। অথচ নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৫৩ রান নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হলো বাংলাদেশকে। হাতে চার-চারটি উইকেট থাকার পরও শেষ তিন ওভারে স্কোরবোর্ডে জমা পড়েছে মোটে ১৭ রান। বলাবাহুল্য রাজকোটের উইকেট ছিল পুরোপুরি ব্যাটসম্যানদের প্রাণ মন সঁপা। টি২০ খেলার ধরন অনুযায়ী হাতে উইকেট থাকলে শেষ ৩ ওভারে ৪০-৪৫ রান যোগ হওয়াটা খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু স্লগ ওভারে আগ্রাসী ব্যাটিং যেন ভুলে গেলেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। ম্যাচ শেষে স্কোরবোর্ডে ২৫-৩০ রান কম থাকার আক্ষেপ ঝরেছে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের কণ্ঠে। ম্যাচ শেষে বলেন, ‘ব্যাটিংয়ের জন্য উইকেট খুবই ভালো ছিল। আমাদের স্কোর বোর্ডে ২৫-৩০ রান কম ছিল। আমাদের ওপেনাররা খুব ভালো শুরু করেছিল। এটা ১৮০+ উইকেট ছিল।’ সেট হওয়া ব্যাটসম্যানদের ইনিংস টানতে না পারাটাকেও সামনে এনেছেন মাহমুদউল্লাহ। বলেছেন, ‘এ ধরনের উইকেটে একজন সেট ব্যাটসম্যানের ইনিংস টেনে নেয়াটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভারতীয় ইনিংসে দেখেন রোহিত নিজের ইনিংসটিকে টেনে নিয়ে গেছেন। আমাদের টপ অর্ডার থেকে যদি এমন একটা ইনিংস আসত, তাহলে আমাদের সুযোগ আরো বেশি আসত।’ রাজকোটে বাংলাদেশ ইনিংসে কোনো ফিফটি আসেনি। ত্রিশের ইনিংসটি তিনটি। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ আউট হওয়ার সময় ম্যাচের বাকি ছিল ৯ বল। ওই নয় বলে মাত্র ১১ রান যোগ হয়েছে বাংলাদেশ ইনিংসে। ২১ বলে ৩০ রান করেছেন মাহমুদউল্লাহ। বিপরীতে বাংলাদেশকে কোনো সুযোগই দেননি ভারত অধিনায়ক রোহিত শর্মা। ৪৩ বলের ইনিংসে ৮৫ রান করেন ভারত অধিনায়ক। রোহিত তাণ্ডবে ভারত ম্যাচ জিতেছে ২৬ বল হাতে রেখে। রোহিতের বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ের সামনে বাংলাদেশের বোলাররা তাদের অসহায়ত্ব আড়াল করতে পারেননি। যত সময় গড়িয়েছে ততই এলোমেলা হয়েছে বোলিং-ফিল্ডিং। পুরোপুরিই আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছিল সফরকারী বোলাররা। স্লগ ওভারের পরীক্ষা দেয়ার আগেই শেষ হয়ে যায় ম্যাচ। তবে আগ্রাসী ব্যাটিংয়ের সামনে বোলাররা যে করণীয় নির্ধারণ করতে পারেন না, সেটা রাজকোটে খুব ভালোভাবেই সুস্পষ্ট হয়ে গেছে। দিল্লিতে প্রথম ম্যাচে ৭ উইকেটের ব্যবধানে জিতে যাওয়াতে দুর্বলতাগুলো সেভাবে চোখে পড়েনি। তার পরও শেষদিকে কিন্তু ঝড় থামাতে পারেননি বাংলাদেশের বোলাররা। ওয়াশিংটন সুন্দর ও কুনাল পান্ডিয়ার আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে শেষ দুই ওভারে ৩০ রান যোগ হয় ভারতীয় ইনিংসে। দ্বিতীয় ম্যাচে ৪ উইকেট হাতে থাকা বাংলাদেশ শেষ ৩ ওভারে রানের চেয়ে বেশি বল খেলেছে। আর সিরিজের প্রথম ম্যাচে হারলেও শেষ ৩ ওভারে ৩৮ রান তুলতে সমর্থ হয়েছিল ভারত। তাদের হাতেও ছিল ৪ উইকেট। ব্যাটে-বলে স্লগের দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠার ওপরই বাংলাদেশের সিরিজ জয় নির্ভর করছে অনেকটা।

Close

উপরে