Logo
রবিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৯ | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সড়ক দুর্ঘটনার শিকার? আপনার করণীয়

প্রকাশের সময়: ৬:০৬ অপরাহ্ণ - বুধবার | আগস্ট ১৪, ২০১৯

 

তৃতীয় মাত্রা :

সড়ক দুর্ঘটনা কখনোই কাম্য নয়। তবুও দুর্ঘটনা ঘটতেই থাকে। প্রাণ যায় অহরহ। প্রতিটা সড়ক দুর্ঘটনাই সাধারণত মারাত্মক খবর বয়ে আনে। প্রাণটা না গেলেও মারাত্মক জখম বা আজীবনের জন্যে পঙ্গু হওয়ার ঘটনাও ঘটে। আর কেউ শারীরিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত না হলেও তার গাড়িটার বেশ ক্ষতি হয়ে যায়। শুধু গাড়ির ওপর দিয়ে গেছে এমন দুর্ঘটনার ক্ষেত্রেও অনেক ঝক্কি। তবে মাথা ঠাণ্ডা রেখে প্রাথমিক কিছু কাজ করা উচিত। যদি দুটো গাড়ির মধ্যে দুর্ঘটনা ঘটে থাকে, তবে প্রথমেই বিতণ্ডায় না জড়িয়ে দুজনকেই কয়েকটি কাজের পরামর্শ দিচ্ছেন অভিজ্ঞজনরা।

নিজে এবং অন্য গাড়ির যাত্রীরা সুস্থ আছে কিনা দেখুন
প্রথমেই দেখুন আপনি এবং আপনার গাড়ির সবাই ঠিক আছে কিনা। এবার বের হয়ে যে গাড়ির সঙ্গে দুর্ঘটনা ঘটেছে তার চালক ও যাত্রীদের খবর নিন। ব্যক্তি প্রাণ বাঁচানো সবার আগে জরুরি। তেমনটা হয়ে থাকলে অ্যাম্বুলেন্সে খবর দিন। প্রয়োজনে আশপাশের মানুষের সহায়তা চান।

পুলিশে খবর দিন 
প্রাথমিক ধকলের পর অবশ্যই পুলিশে খবর দিতে হবে। একমাত্র পুলিশ এসে পরিস্থিতি সামাল দিয়ে সমাধানের পথে এগোতে পারবে বলে আশা করা যায়। তারা দুর্ঘটনা সম্পর্কে রিপোর্ট করবে। পুলিশ ছাড়া সাধারণত দুর্ঘটনায় পতিত দুই বাহনের যাত্রী বা চালকের মধ্যে বিতর্ক চলতেই থাকে। সমাধানের পথে এগোতে চায় না কিছু।

গাড়ির ইন্স্যুরেন্সকে খবর দিন 
প্রতিটা গাড়িরই ইন্স্যুরেন্স থাকে। কিংবা গাড়ি কেনার পরই এটা করে নেয়া উচিত। আর দুর্ঘটনার পর পরই ইন্স্যুরেন্সকে খবর দিতে হবে। সংশ্লিষ্ট এজেন্ট জানামাত্রই ‘ক্লেইম প্রসেস’ নিয়ে কাজ শুরু করতে পারবেন। যদি এটা না করেন তো ক্ষতিগ্রস্ত গাড়ি নিয়ে ব্যাপক ঝক্কি পোহাতে হবে।

ছবি তুলে ফেলুন 
দুর্ঘটনার পর দুটো গাড়ি ঠিক যে অবস্থায় রয়েছে তার ছবি তুলে ফেলুন। এতে করে পরে পুলিশি তদন্তের ক্ষেত্রে আপনি আসল চিত্র দেখাতে পারবেন। পরের ঝামেলা এড়াতে চাইলে এ কাজটি মনে করে সেরে ফেলুন।

গাড়িটা ওখানেই থাক 
দুর্ঘটনার পর রাস্তায় জট লেগে যায়। বিশেষ করে ঢাকার মতো যানজটের শহরে একটা দুর্ঘটনা মানেই হাজারো গাড়ি আটকে পড়া, হাজারো মানুষের চরম দুর্ভোগ। সাধারণ দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে অনেকেই নিজেদের গাড়িতে রাস্তার পাশে সরিয়ে রাখেন। তবে দুর্ঘটনা ধরন যদি এমন হয় যে আপনাকে এটা নিয়ে পেরেশানি পোহাতে হবে, সেক্ষেত্রে এমনকি গাড়ি সরানোর কাজটিও পুলিশের ওপর ছেড়ে দেয়া ভালো। এতে করে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে দুই গাড়ির অবস্থান দেখে দুর্ঘটনার ধরন বুঝতে পারবে।

অন্য গাড়ির ইন্স্যুরেন্সের তথ্য নিন 
এক্ষেত্রে দুর্ঘটনার শিকার অন্য গাড়ির ইন্স্যুরেন্সের খবর নিন। যাতে করে পরে ক্ষতিপূরণ লেন-দেন সংক্রান্ত কোনো ঝামেলা পোহাতে না হয়। যোগাযোগেও সুবিধা হবে।

বিতণ্ডায় জড়াবেন না 
সাধারণত দুই গাড়ির চালক বা যাত্রীরা একে অপরকে দোষারোপ করতে থাকেন। বুদ্ধিমান হলে এটা করা উচিত না। আপনি কি করেছেন, অন্য গাড়ি কি করেছে ইত্যাদি আলোচনা এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। সবই বলবেন পুলিশ আসলে। আর প্রথমেই অন্য গাড়িকে দোষারোপ করতে যাবেন না। এতে অযথাই পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। তদন্তেই বেরিয়ে আসবে দোষ আসলে কার।

হতাশ হবেন না 
দুর্ঘটনার পর ভয় গ্রাস করে। অনেকে আবেগপ্রবণ এবং হতাশ হয়ে যান। চিৎকার-চেঁচামেচি শুরু করবেন না। যদি হতাশা গ্রাস করে, তো পুলিশকে ফোন দিয়ে গাড়িতে গিয়ে বসে থাকুন। নিজের ও অন্যদের ছোটখাটো চোট লাগলে তার দেখভাল করুন।

সূত্র: ইন্টারনেট

Read previous post:
পৃথিবীর কক্ষপথ ছেড়ে গেল চন্দ্রযান-২

  তৃতীয় মাত্রা : সম্প্রতি চন্দ্রযান-২ নামে ভারতীয় নভোযান উত্‍‌ক্ষেপণ করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার রাত ২.২১ মিনিটে পৃথিবীর কক্ষপথ ছেড়ে...

Close

উপরে