• Tuesday, 06 December 2022
সিলেটে ৭ম আন্তর্জাতিক মণিপুরী সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্মেলন

সিলেটে ৭ম আন্তর্জাতিক মণিপুরী সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্মেলন


স্টাফ রিপেটার :  বাংলাদেশ মণিপুরী সাহিত্য সংসদ (বামসাস) এর ৭ম আন্তর্জাতিক মণিপুরী সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্মেলন ২০২২ অনুষ্ঠিত তহয়েছে। গতকাল ৪ নভেম্বর শুক্রবার সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে দিনব্যাপী আয়োজনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সকালে সংগঠনের শিশু শিল্পীদের কোরাস সংগীত এবং সম্মেলনের অতিথিরা প্রদীপ প্রজ্জ্বলন মাধ্যমে ৭ম আন্তর্জাতিক মণিপুরী সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্মেলন উদ্ভোধন করেন সিলেট জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সন্দ্বীপ কুমার সিংহ।


বামসাস সভাপতি কবি এ কে শেরামের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক নামব্রম শংকর এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত উদ্ভোধনী পর্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সন্দ্বীপ কুমার সিংহ, নীলিমা এস সি সিনহা ট্রাস্টের চেয়ারম্যান এডভোকেট এস সি সিনহা,  মণিপুরী সাহিত্য পরিষদ ইম্ফালের জেনারেল সেক্রেটারি ড. এলাংবম প্রিয়ব্রত সিংহ, বিশিষ্ট লেখক মণিপুরী সাহিত্য পরিষদ ত্রিপুরার প্রাক্তন জেনারেল সেক্রেটারি এল বীরমঙ্গল সিংহ এবং মণিপুরী সাহিত্য পরিষদ ত্রিপুরার  জেনারেল সেক্রেটারি থৌদাম নীলকুমার সিংহ।
সভায় বক্তারা বলেন, বাংলাদেশে মণিপুরী সাহিত্য চর্চা ও বিকাশে বাংলাদেশ মণিপুরী সাহিত্য সংসদ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এ ধরনের আয়োজনের মাধ্যমে সাহিত্য সংস্কৃতির চর্চা আরো গতিশীল করতে হবে। বাংলাদেশে বসবাসকারী মণিপুরী সম্প্রদায় তাদের নিজস্ব ভাষা, সাহিত্য এবং সংস্কৃতি পরিচর্যার মধ্যদিয়ে গৌরবময় উজ্ঝল দৃষ্টান্তের প্রতিফলন দেখিয়েছেন। সংখ্যার দিকে কম হলেও বিভিন্ন উন্নায়ন মূলক কর্মকান্ড ইতিহাসে দৃশ্যায়িত রয়েছে।


অনুষ্ঠানে মণিপুরের বিশিষ্ট লেখক উপন্যাসিক ক্ষেত্রি বীরকে নীলিমা সিনহা মেমোরিয়াল এওয়ার্ড প্রদান করা হয়।
সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্ব কবি সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শাবিপ্রবির বাংলা বিভাগের অধ্যাপক কবি জফির সেতু এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মণিপুরী সাহিত্য পরিষদ ইম্ফালের যুগ্ম সম্পাদক ড. এল রামেশ্বর সিংহ। কবি শেরাম নিরঞ্জনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কবি সম্মেলনে বাংলা, মণিপুরীসহ আরও কয়েকটি ভাষার কবি স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন।
বিকেলে সমাপনী অধিবেশনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ প্রগতি লেখক সংঘের কেন্দ্রীয় সভাপতি কবি গোলাম কিবরিয়া পিনু, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির মানবিক অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. আবুল ফতেহ ফাত্তাহ, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. জি এম মনিরুজ্জামান,  ড. এলাংবম প্রিয়ব্রত সিংহ এবং বিশিষ্ট লেখক এল বীরমঙ্গল সিংহ। নীহার রঞ্জন শর্মার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কবি এ কে শেরাম।


প্রবন্ধে কবি এ কে শেরাম উল্লেখ করেন, বাংলাদেশে মণিপুরী পরিচয়ে তিনটি জনগোষ্ঠী পরিচিত-মৈতৈ, মৈতৈপাঙল বা মনিপুরী মুসলিম এবং বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী জনগোষ্ঠী। বতর্মান ভারতের উত্তর-পূর্বঞ্চলীয় ক্ষুদ্র রাজ্য ‘মনিপুর’। মণীপুরের রাজ পরিবারের অভ্যন্তরীন কোন্দলের সুযোগে বার্মিজরা মণিপুর দখল করে প্রায় সাত বছর শাসন কওে ও ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। তখন মণিপুরের রাজা চৌরজিৎ অনুজ মারজিৎ ও গম্ভীর সিংহকে নিয়ে অনুগামী অনেক প্রজাসহ সিলেটে এসে ব্রিটিশ সরকারের কাছে আশ্রয় নিয়েছিলেন। তখন সিলেট শহরের মির্জাজাঙ্গাল এলাকায় বসতি স্থাপন করেন। যেটি বর্তমানে মণিপুরী রাজবাড়ি নামে পরিচিত। তখন থেকে বাংলাদেশে অভিবাসিত মণিপুরী সম্প্রদায় বাংলাদেশের ইতিহাস ঐতিহ্য এবং এদেশের বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক অবদান রেখেছেন। তাই বাংলাদেশে মণিপুরী সাহিত্য এবং সংস্কৃতি চর্চার উন্নয়নের জন্য সকলের সহযোগিতা কামনা করা হয়।
পরিশেষে কেএইচ সমেন্দ্র সিংহের পরিচালনায় বাংলাদেশ এবং  মণিপুরের শিল্পীদের সংগীত ও নৃত্য পরিবেশনায়  অনুষ্ঠিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

 
 

comment / reply_from